যশোর জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে শহরের চাঁচড়াস্থ বধ্যভুমিতে মোমবাতি প্রজ্জ্বল

0
459

নিজস্ব প্রতিবেদক : ’আন্তর্জাতিক গনহত্যা প্রতিরোধ দিবস’ পালন উপলক্ষে যশোর জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে শহরের চাঁচড়াস্থ বধ্যভুমিতে মোমবাতি প্রজ্জ্বল, আলোচনাসভা ও প্রতিবাদি আবৃত্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জাতিসংঘে ১৯৪৮ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো গণহত্যা প্রতিরোধ ও এ সংক্রান্ত শান্তি বিষয়ক একটি প্রথা গ্রহণ করে। তবে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০১৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর এ ৯ ডিসেম্বর দিনটিকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা স্মরণ ও প্রতিরোধ দিবস হিসাবে ঘোষণা করে।
জাতিসংঘ দিবসটি ঘোষণার পর থেকেই শিল্পকলা একাডেমি প্র্রতি বছর দিনটি পালন করে আসছে।
এ উপলক্ষে শনিবার বধ্যভুমি পাদদেশে আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মাহামুদ হাসান বুলু ও সাংবাদিক ফখরে আলম। আবৃত্তি করেন কাজী শাহেদ নওয়াজ, জাহিদুল ইসলাম জাদু ও দেবাশীষ দাস।
সম্মিলীত সাংস্কৃতিক জোট যশোরের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, তির্যক যশোরের সাধারণ সম্পাদক দীপংকর দাস রতন, জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার হায়দার আলী শিম্বা, মাহাবুবুর রহমান মজনু, সাজ্জাদ গনি খাঁন রিমন, রওশন আরা রাসু, জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক যোগেস দত্তসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন। এসময় মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত গনহত্যা প্রতিবাদ ও নিন্দা জনানো হয়।
এ দিবসের মূল লক্ষ্য হলো গণহত্যা বিষয়ক প্রথাটির ব্যাপারে সচেতনতা সৃষ্টি করা এবং গণহত্যায় মৃত ব্যক্তিদের স্মরণ ও সম্মান করা। দিবসটি জাতিসংঘের প্রতিটি সদস্য রাষ্ট্রকে এ বিষয়ও স্মরণ করিয়ে দেয় যে তাদের নিজ জনগণকে গণহত্যার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য দায়িত্ব আছে। গণহত্যার উস্কানি বন্ধ করা ও গণহত্যা ঘটলে তা প্রতিরোধ করা এই দায়িত্বের মধ্যে পড়ে।