যশোর ঝিনাইদহ মাগুরা সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত ৬ ॥ আহত ৩৫

0
315

বিশেষ প্রতিনিধি : বৃহস্পতিবার যশোর ঝিনাইদহ,বেনাপোল ও মাগুরা সড়কে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ৬জন নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে ৩৫জন। নিহতরা হলো, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বলিদাপাড়া গ্রামের ইবাদত বিশ্বাসের ছেলে ইব্রাহিম (৫০) ও উপজেলা শহরের মহিলা কলেজ গেট এলাকার শিক্ষক আমিনুল ইসলাম (৪৫), অজ্ঞাত মহিলা (৬০), ভোলা জেলা সদরের কুতুবা গ্রামের সিরাজুল হকের ছেলে কাভার্ডভ্যান চালক দুলাল (২৫), মাগুরার শালিখা উপজেলার রাধাডাঙ্গা গ্রামের রফিক বিশ্বাসের ছেলে আমিরুল ইসলাম (২৮), মোকলেস বিশ্বাসের ছেলে তরিকুল ইসলাম (৩০)।
আহতরা হলেন, ফুলজান বেগম (৪৫), কানিজ ফাতেমা (৩৫), সোমা খাতুন (২৫), উমায়রারা (২৪), জিল্লুর রহমান (৪০), শ্রীতি দাস (১০), আ: রাজ্জাক (৩০), রোজিনা (২৭), স্বপ্না (২৮), সবুজ (১৯), মোযা (২০), হাবিবুর (১০), জালাল উদ্দিন (৫০), তোফাজ্জেল (৫০), মনোয়ার হোসেন (৪৫), আনোয়ার (৩৫), পংকজ দাস (৪৭), আজাদ (৩৫), শংকর (৩৫), রিতা (৪৫), শিলা (২৪), মেহেরবানু (৪৫), ময়না (৫০), শাহিদা (৩৫), চন্দনা (১০), মুন্নী (৪০), জোছনা (২৯), আমেনা (৩৫), কুমিল্লা জেলা সদরের ফিরিঙ্গিও হাটের রুহুল আমিনের ছেলে বাসের হেলপার রিপন (২০) সহ ৩৫জন। আহতদের যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে যশোর থেকে ছেড়ে আসা শাপলা পরিবহনের (সোনালী লিখন) একটি বাস (পাবনা-বা-১১-০০৭৮) ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বৈশাখী তেলপাম্প এলাকায় পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি সাইকেল আরোহীকে চাপা দিয়ে পাশ্ববর্তী একটি কড়াইগাছে ধাক্কা দেয়। এতে শিশু-নারী ও পুরুষসহ অন্তত ৩০-৩৫জন আহত হন। দুর্ঘটনার পর স্থানীয় লোকজন ও কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। দুর্ঘটনায় হতাহতদের উদ্ধার কাজে অংশ নেন ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার। তিনি নিজেই অ্যাম্বুলেন্স চালিয়ে রোগীদের চিকিৎসার ২৫০ শয্যা জেনারেল নিয়ে যান। যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. ওয়াহেদুজ্জামান টিটো জানিয়েছেন, হাসপাতালে আনার আগেই দুইজনের মৃত্যু হয়। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে দায়িত্ব প্রাপ্ত পুলিশ সদস্য রুহুল আমিন জামান, দুর্ঘটনায় নিহত তিনজনের লাশ মর্গে রয়েছে।কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এর আগে গত ৯ মে যশোর-কুষ্টিয়া মহাসড়কের যশোর সদর উপজেলার সাতমাইল এলাকায় বাস দুর্ঘটনায় ৬জন নিহত ও আরও অন্তত ৪০জন আহত হন। হেলপার রিপন, পুলিশ ও হাসপাতালে সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাতে রাজধানীর তেজগাঁও থেকে কাভার্ডভ্যানটিতে পণ্যবোঝাই করে তারা যশোরের বেনাপোলে আসছিলেন। ভোর ৫টার দিকে নাভারন বাজারের কাছে গাড়ির চালক নিয়ন্ত্রণ হারান। এ সময় ভ্যানটি গাছটিতে ধাক্কা দিলে চালক ও হেলপার গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল ৭টার দিকে চালক দুলাল মারা যান। এবং হেলপার রিপন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার আব্দুর রশিদ দুলাল হকের মৃত্যু নিশ্চিত করেন। আহত রিপন আশংকামুক্ত বলে জানান ডা. রশিদ। নিহত আমিরুলের ভাই ইমদাদুল ইসলাম জানান, তার ভাই এবং তরিকুল বৃহস্পতিবার বিকালে মোটরসাইকেল চালানো শিখছিলেন। এক পর্যায়ে বাড়ির পাশে রাধাডাঙ্গা মোড়ে একটি মেহগনি গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলটির ধাক্কা লাগে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে আনা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here