ঢাকুরিয়া কলেজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যশোর দুর্নীতি দমন কমিশন অফিসে অভিযোগ

0
86

ঢাকুরিয়া কলেজে শিক্ষক নিয়োগের ভূয়া কাগজ পত্র দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ
নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকুরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ তাপস কুন্ডুর বিরুদ্ধে শিক্ষক নিয়োগের ভূয়া কাগজ পত্র দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ ও নানা অনিয়মের কারণে যশোর দুর্নীতি দমন কমিশন কার্য্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মফিজুর রহমান। ভূক্তভুগিরা সঠিক তদন্ত করে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছে।
সূত্রে জানাযায়, মণিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ তাপস কুন্ডুর বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সে কলেজ প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে সব শিক্ষক কর্মচারীদের কাছ থেকে নাটকিয় ভাবে বিভিন্ন অজুহাতে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। অধ্যক্ষ তাপস কুন্ডু কাউকে কোন হিসাব না দিয়ে নিজের ইচ্ছা মতো খরচ করে চলেছে বলে অভিযোগ। আবুল হোসেন একজন ইসলামের ইতিহাস প্রভাষক হিসাবে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে একটি ভূয়া নিয়োগ পত্র ও একটি ভূয়া যোগদান পত্র দিয়ে ৫লক্ষ টাকা নিয়েছে। পরে তাকে নিয়োগ দিচ্ছে না আবার টাকাও ফেরৎ দিচ্ছে না। মৃগংগ বিশ্বাস সমাজকর্ম প্রভাষক তার কাছ থেকে ৫লক্ষ ৯০ হাজার টাকা নিয়ে তার কোন নিয়োগ পত্র দেয়নি এবং এমপিওর জন্য শিক্ষা মন্ত্রণলয় কোন কাগজ পত্র পাঠায়নি। বিমল কুমার রায় অর্থনীতি প্রভাষক ২০১১ সাল থেকে কর্মরত আছেন। তার সমস্ত কাগজ পত্র থাকা সত্ত্বেও তাকে বাদ দিয়ে ইনামুলের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময় তাকে নিয়োগ দেওয়ার পাইতারা করছে। সঞ্জিবন বিশ্বাসের কাছ থেকে ৩লক্ষ ৫২ হাজার টাকা নিয়েছে। তাকে নিয়োগ দিচ্ছে না আবার টাকাও ফেরৎ দিচ্ছে না। খবিরুল ইসলাম ইতিহাসের প্রভাষক ২০১৩ সাল থেকে কলেজের শিক্ষকদের নামের তালিকায় ব্যানবেইজে আছে তাতে এই শিক্ষকের নাম নেই। সে দির্ঘদিন একটি সিমেন্ট কোম্পানিতে চাকরি করতেন। সে কোন দিন কলেজে আসেনি। কিন্তু তাকে এমপিওভুক্ত করার চেষ্টা চলছে। সুপ্রিয়া ঘোষ সমাজ কল্যানের প্রভাষক হিসাবে ২লক্ষ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে ২০১৩ সালে নিয়োগ দিয়েছিলেন। ২০১৫ সালে সে চাকরী ছেড়ে চলে গেছে কিন্তু তার টাকা ফেরৎ দিচ্ছে না। আনিছুর রহমান শুকুরকে পিওয়নের চাকরী থেকেও বাদ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। ঢাকুরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ তাপস কুন্ডুর বিরুদ্ধে শিক্ষক নিয়োগের ভূয়া কাগজ পত্র দেখিয়ে লক্ষ লক্ষ আত্মসাৎ ও নানা অনিয়মের কারণে যশোর দুর্নীতি দমন কমিশন কার্য্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মফিজুর রহমান। ভূক্তভুগিরা সঠিক তদন্ত করে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য দাবি জানিয়েছে। ঢাকুরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ তাপস কুন্ডু জানান, যারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে তারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরী করে। আর তাদের পোষ্টে আমি এখনো নিয়োগ দেয়নি। তাহলে আমি কি করে তাদের টাকা ফেরৎ দিবো।