যশোর পৌরসভার ৬ নাম্বার ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে লড়বেন যারা

0
129

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন নির্বাচনে যশোর পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে ইচ্ছুক ৯ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এদেরমধ্যে একজন নারীসহ ৭ জনই নতুন মুখ। প্রার্থীরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর আলমগীর কবীর সুমন, জেলা যুবলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আজাহার হোসেন স্বপন, আশরাফুজ্জামান, আনিছুজ্জামান, পাপিয়া আক্তার, আশরাফুল হাসান, আজিজুল ইসলাম, আজিজুল হক ও বিল্লাল পাটোয়ারী।
এলাকা ঘুরে জানা গেছে, যশোর পৌরসভার এ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করার মানসে জোরে-সোরে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা অনেকেই তাদের সমর্থকদের নিয়ে গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আবার কেউ কেউ নির্বাচন করবেন কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয়। ২ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর তারা গণসংযোগে নামবেন।
তবে শহর আওয়ামী লীগ নেতা তরুণ ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক বর্তমান কাউন্সিলর আলমগীর কবীর সুমন (হাজী সুমন) সাড়ম্বরে গণসংযোগ ও প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি জানান, আমরা পারিবারিকভাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতি করি। নির্বাচনে বিজয়ী হলে কাউন্সিলর হিসেবে অতীত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে আমার প্রতি এলাকাবাসীর বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে যথাসাধ্য চেষ্টা করব। তিনি বলেন, সামাজিক নানা উন্নয়ন কর্মকা-ে জড়িয়ে আছি। এলাকাবাসির পাশে ছিলাম, আছি ও থাকব।
তিনি সকলের সমর্থন ও দোয়া প্রার্থনা করেন।
আলমগীর কবীর সুমন বলেন, গত পাঁচ বছর কাউন্সিলর হিবেবে এলাকাবাসীর চাহিদাপূরণে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ সম্পন্ন করেছি। যারমধ্যে রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ ও সংস্কারসহ শৌচাগার নির্মাণ, বৈদ্যুতিক পোল স্থাপন করে স্ট্রিট লাইটের মাধ্যমে এলাকা আলোকিতকরণ, নলকূপ সরবরাহ, বজ্য ব্যবস্থাপনা কন্টেইনার স্থাপন, বস্তি উন্নয়ন করা হয়েছে। এছাড়া সামাজিক দায়বদ্ধতায় করোনাকালে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প স্থাপন ছাড়াও এলাকার এক হাজার ৪৬০ পরিবারের মধ্যে ওএমসি কার্ড প্রদান ছাড়াও তিন হাজার ২৮০ পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী এলাকায় তিন হাজার মাস্ক বিতরণ, অনলাইন সার্ভিসের মাধ্যমে এক হাজার ২৭০ পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। এছাড়া সুবিধাবঞ্চিত আরো পাঁচ শতাধিক পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে হুইল চেয়ার প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া মসজিদ মন্দিরে আর্থিক অনুদানসহ বিভিন্ন সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। তিনি জানান, এলাকাবাসীর সেবা দিতে আপ্রাণ চেষ্টা করেছি। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে। আরো উন্নয়নের লক্ষ্যে অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আবারো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। তিনি এলাকাবাসীর মূল্যবান ভোট প্রার্থনা করেন। এবারও যদি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হই তবে ওয়ার্ডবাসীর আমার প্রতি যে ভালবাসা তা প্রতিদান দিতে কুন্ঠিত হব না। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেন।
পৌর কাউন্সিললর পদে গতবার দুই নির্বাচন করে পরাজিত হওয়া সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনের পরিচিত মুখ জেলা যুবলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক যশোর ইনস্টিটিউটের কার্যনির্বাহী পর্ষদের নির্বাচিত সদস্য আজাহার হোসেন স্বপন এবারো নির্বাচন করতে চান।
তিনি বলেন, এলাকাবাসী সমর্থন পেয়ে যদি নির্বাচিত হই তবে এলাকার অলিগলির রাস্তাঘাট সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনেজ ব্যবস্থার আমূল সংস্কার করে ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে সচেষ্ট থাকব। যুবসমাজকে মাদক থেকে দূরে রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব। সর্বোপরি এলাকাবাসীর মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে সেই মোতাবেক কাজ করব। এলাকাবাসীর প্রত্যাশা ও চাহিদা পূরণে যথাসাধ্য সচেষ্ট থাকবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। আজাহার হোসেন স্বপন সকলের দোয়া ও সমর্থন প্রার্থনা করেন।
এদিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আনিছুজ্জামান জানান, দলের সিদ্ধান্তে প্রথমবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। নির্বাচিত হলে তিনি আল্লাহপাকের হুকুমত করে এলাকাবাসীর সেবা করতে চান।
এছাড়া আওয়ামী লীগের তরুণকর্মী আশরাফুজ্জামান প্রথমবার নির্বাচন করার লক্ষ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তিনি বিজয়ী হলে মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও ভূমিদস্যুমুক্ত এলাকা গড়তে চান।
নির্বাচন করতে ইচ্ছুক সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য আশরাফুল হাসান জানান, মাদক, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে বরাবর সোচ্চার ছিলাম। এছাড়া এলাকাবাসীর সুখে-দুঃখে সবসময়ই পাশে আছি, ছিলাম ও থাকবো। সামাজিক নানা কর্মকা- পরিচালনায় একটা প্লাটফর্ম থাকলে ভাল হয়। সেই জন্য এবারে এ নির্বাচনে প্রথমবার অংশ নিচ্ছি। বিজয়ী হলে আরো ভালভাবে নাগরিক সেবা প্রদানে ভূমিকা রাখবো।
জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের (৪৬২) প্রচার সম্পাদক স্বেচ্ছাসেবক লীগের শহর কমিটির সাবেক সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল ইসলামও প্রথমবার নির্বাচন করার লক্ষ্য নিয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে রাজনীতি করি। নাগরিক সেবা দেয়ার মানসিকতা নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। বিজয়ী হলে এলাকাবাসীর সাথে নিয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করবো।
এছাড়া মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন চাঁচড়া ডালমিল পশ্চিম অংশের বাসিন্দা আজিজুল হক। তার কোন প্রচার-প্রচারণা নেই। তিনি ২৮ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।
এছাড়া একমাত্র নারী প্রার্থী পোস্ট অফিস পাড়া মুন্সি মিনহাজ উদ্দিন রোডের বাসিন্দা পাপিয়া আক্তার যিনি নির্বাচন করার লক্ষ্যে ২৭ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তিনি এখনও গণসংযোগ শুরু করেননি। মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ক কোনো কথা বলতে চাননি। শুধু জানান দোয়া চাই।
এদিকে ৩১ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বিল্লাল পাটোয়ারী। তিনি শহর যুবলীগের সদস্য। তিনি এবারই প্রথম নির্বাচন করছেন। তিনি জলাবদ্ধতা নিরসনসহ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন আলোকিত ওয়ার্ড গঠন করে এলাকাবাসীর জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে চান। তিনি বলেন, এলাকাবাসীর সাথে নিয়ে মাদক, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজমুক্ত ওয়ার্ড গঠনে সকলের সহযোগিতা চাই।
উল্লেখ্য, প্রায় ৪১ হাজার মানুষের বসবাস এ ওয়ার্ডে, ভোটার সংখ্যা ১৩ হাজার ৫৪৮। এর মধ্যে ছয় হাজার ৬১৫ জন পুরুষ ও ছয় হাজার ৯৩৩ জন নারী ভোটার।