যশোর পৌরসভার ৭ নাম্বার ওয়ার্ডে ৮ জনের দৌড়

0
183

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন নির্বাচনে যশোর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে জোরে-সোরে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারী ৮ প্রার্থী। নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক এসব প্রার্থীর মধ্যে পাঁচজনই নতুন মুখ। এলাকার দেয়ালে দেয়ালে তাদের পক্ষে পোস্টারের প্রচারণা জমে উঠেছে। প্রার্থীরা ২ ফেব্রুয়ারির আগে মনোনয়নপত্র জমা দেবেন বলে জানিয়েছেন।
প্রার্থীরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা, সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান আবু শাহ জালাল, সাবেক কাউন্সিলর অ্যাড. জুলফিকার আলী জুলু, জাহিদুল ইসলাম সজীব, শামসুদ্দিন বাবু, শাহেদুর রহমান, শাহেদ হোসেন ও কামাল হোসেন।
নির্বাচন করতে ইচ্ছুক বর্তমান কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা জানান, কাউন্সিলর হিসেবে সবসময়ই এলাকাবাসীর পাশে ছিলাম, ভবিষ্যতেও থাকবো। তিনি আরো বলেন, ২০১৫ সালে প্রথম নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হয়ে অবহেলিত আমার এলাকার উন্নয়ন শুরু করেছি। যা সম্পন্ন করার লক্ষ্য নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো আবরো নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি। তিনি বলেন, এলকার রাস্তাঘাট ড্রেনেজ ব্যবস্থা উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছি। এলাকার আরো রাস্তাঘাট সংস্কার করে উন্নয়ন করা প্রয়োজন। এছাড়া জলাবদ্ধতা এ অঞ্চলের একটা বড় সমস্যা। এ সমস্যা নিরসনে এবং ওয়ার্ডের অবোকাঠামোর মাননোন্নয়নে যথাসাধ্য চেষ্টা করা করবো।
তিনি বলেন, কাউন্সিলর পদ কোন লাভজনক পদ নয়; এটা একটা সম্মানীয় পদ। এ পদে আসতে হলে সেবার মানসিকতা নিয়ে আসতে হয়। আমি এই মানসিকতা ধারণ করি। আশা করি এলাকাবাসীর সমর্থনে বিজয়ী হয়ে তাদের সেবা করার সুযোগ পাব।
সাবেক কাউন্সিলর জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের প্রচার সম্পাদক অ্যাড. জুলফিকার আলী জুল জানান, এবার নিয়ে চার বার নির্বাচন করছি। সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রেখে এলাকাবাসীর সুখে দুঃখে সব সময়ই তাদের পাশে ছিলাম, আছি ও থাকব। ২০০৩ সালে প্রথম নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হই। এরপর ২০১১ সালে নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করি। কিন্তু ২০১৫ সালের নির্বাচনে অংশ নিলেও রাজনৈতিক নানা কারণে বিজয়ী হতে পারিনি। সামাজিক দায়বদ্ধতায় আবারো নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি।
তিনি বলেন, এ এলাকা দরিদ্র জনবসতি। সুবিধা বঞ্চিত এসব মানুষের প্রতি সরকার প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা সুষ্ঠু বণ্টণে ভূমিকা রাখতে চাই। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত এ এলাকা। যে এলাকায় জলাবদ্ধতা এক বড় সমস্যা। জলাবদ্ধতাসহ এলাকার সকল সমস্যা নিরসনে কাউন্সিলর হিসেবে আগের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে কার্যকর ভূমিকা রাখতে সচেষ্ট হবো। তিনি বলেন, এবার যদি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হই তবে ওয়ার্ডবাসীর আমার প্রতি যে ভালবাসা তা প্রতিদান দিতে কুন্ঠিত হবনা। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেন।
সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান আবু শাহ জালাল জানান এবার নিয়ে চতুর্থবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। ১৯৯৯ সালে প্রথমবার নির্বাচন করে বিজয়ী হন। এরপর ২০০৩ সালে দ্বিতীয়বার নির্বাচন করে বিজয়ী হয়ে প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। ২০১৫ সালে নির্বাচনে প্রার্থী হলেও পরে প্রচার প্রচারণায় ছিলেননা তিনি। দুইবারের মেম্বর আবু শাহ জালাল বলেন, অতীত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এলাকাবাসীর সেবা করতে চাই। তিনি বলেন সবসময়ই এলাকাবাসীর পাশে ছিলাম। এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছি।
নির্বাচনে নতুন মুখ তরুণ সমাজসেবক সংস্কৃতিকর্মী শাহেদ উর রহমান রনি বলেন, অবহেলিত এ ওয়ার্ডে দরিদ্র মানুষের বসবাসই বেশি; সুবিধাবঞ্চিত এসব মানুষের কাছে কেউই যায় না। এলাকাবাসীর পাশে বিশেষ করে অবহেলিত সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী করছি।
তিনি বলেন, আল্লাহতালার ইচ্ছায় আর এলাকাবাসী সমর্থন পেয়ে যদি নির্বাচিত হই তবে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত ওয়ার্ড উপহার দেয়ার জন্য সকলকে সাথে নিয়ে কাজ করব। এছাড়া এলাকার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার দিকে সর্বোচ্চ নজর দেয়া হবে। এছাড়া রাস্তাঘাট সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনেজ ব্যবস্থার আমূল সংস্কার করে ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে সচেষ্ট থাকব। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন প্রার্থনা করেন।
প্রথমবার নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা ওয়ার্ড যুবলীগের আহ্বায়ক কামাল হোসেন তুহিন জানান, এলাকাবাসীর ভাল-মন্দ দেখার পাশাপাশি তাদের খেদমত করার লক্ষ্য নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। বিজয়ী হলে এলাকার মাদক নিয়ন্ত্রণ, আইন-শৃঙ্খলা উন্নয়নে আরো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। এছাড়া জলাবদ্ধতা নিরসন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করব। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন প্রার্থণা করেন।
প্রথমবারের মত নির্বাচনে অংশ নেয়া জাহিদুল ইসলাম সজিব জানান, সেবার মানসিকতা নিয়ে অবহেলিত এ এলকার উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে চাই। তাই এলাকার মুরব্বিদের দোয়া নিয়ে নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। তিনি বলেন, বর্তমানে এলাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা জলাবদ্ধতা। এ জলাবদ্ধতা নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।
এছাড়া যুবলীগকর্মী শাহেদ হোসেন নয়ন প্রথম নির্বাচন করার লক্ষ্য নিয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তিনি জানান, স্থানীয় বাসিন্দা হিসেবে এলাকাবাসীর সেবা করাসহ আদর্শিক নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে চাই। এমন মানসিকতা নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। তিনি বলেন, এলাকাবাসীর সাথে সবসময়ই আছি, ছিলাম ভবিষ্যতেও থাকবো। তিনি বলেন, সকলের সমর্থন ও দোয়া নিয়ে বিজয়ী হলে এলাকাবসীকে জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে মুক্তি দিতে চাই। পাশাপাশি মাদকের ছোঁবল থেকে যুবসমাজকে রক্ষা করতে কার্যকর ভূমিকা রাখতে চান তিনি।
আরো মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন চোপদার পাড়ার শামসুদ্দিন বাবু। বারবার মোবাইল করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
উল্লেখ্য, প্রায় ৪৫ হাজার মানুষের বসবাস এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ১৮ হাজার ৬৭১। এরমধ্যে ৮ হাজার ৯৪৮ জন পুরুষ ও ৯ হাজার ৭২৩ জন নারী ভোটার রয়েছে।