যশোর পৌরসভার ৮ নাম্বার ওয়াের্ডর হালহাকিকত

0
150

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর পৌরসভার ৮ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করার মানসে জোরেসোরে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগ অব্যাহত রেখে এলাকাবাসীর পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন সকলেই।
নির্বাচন করতে ইচ্ছুকরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সন্তোষ দত্ত, সাবেক কাউন্সিলর বিএনপি নেতা মনিরুজ্জামান মাসুম, যুবনেতা তরুণ সমাজসেবক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা প্রদীপ কুমার নাথ বাবলু, জেলা তাঁতীলীগের সহসভাপতি গৌরাঙ্গ পাল বাবু এবং জেলা মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চের সাংগঠনিক সম্পাদক শহর ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ওবায়দুল ইসলাম রাকিব।
এদিকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যপারে শুক্রবার বিকেলে কথা হয় বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত যুবদলের সাবেক নেতা মনিরুজ্জামান মাসুমের সাথে তার বাড়িতে। তিনি এবার নিয়ে চার বার নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। এরমধ্যে একবার বিজয়ী হন তিনি।
মনিরুজ্জামান মাসুম বলেন, এলাকাবাসীর সুখে-দুঃখে সব সময়ই তাদের পাশে ছিলাম, আছি ও থাকব। ২০০৩ সালে প্রথম নির্বাচনে অংশ নিয়ে পরাজিত হন। এরপর ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, ভোটার যদি ভোট কেন্দ্রে যেয়ে তাদের ইচ্ছেমত ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন তবে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবো। তিনি বলেন ইভিএম এ ভোট সুষ্ঠু হবে এটা আশা করতেই পারি। বিজয়ী হলে এলাকাবাসীর প্রত্যাশাপূরণে যথাসাধ্য চেষ্টার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন মনিরুজ্জামান মাসুম। তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেন।
এদিকে বর্তমানসহ তিনবার বিজয়ী কাউন্সিলর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সন্তোষ দত্ত এবার নিয়ে ছয়বার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তিনি ১৯৯৩ সালে প্রথম নির্বাচনে অংশ নেন। ১৯৯৯, ২০০৩ ও ২০১৫ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হন তিনি।
শুক্রবার বিকেলে তার ব্যক্তিগত বেজপাড়া কার্যালয়ে সন্তোষ দত্তের সাথে কথা হয় এবারের নির্বাচন বিষয়ে। তিনি জানান, অতীত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এলাকাবাসীর সেবা করতে চাই। একটা পরিচ্ছন্ন ওয়ার্ড বিনির্মাণে ভূমিকা রেখে এলাকাবাসীর স্বস্তি দিতে আরো বেশি বেশি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। সর্বোপরি এলাকাবাসীকে নাগরিক পরিসেবা দিতে কোন অবহেলা করব না এবং পৌর কর্তৃপক্ষের অবহেলা মেনে নেয়া হবে না। ওয়ার্ডভিত্তিক প্রাপ্য বরাদ্দ আদায় জোরাল অবস্থান ও বন্টনে কোন প্রকার অনিয়ম করা হবে না বলে তিনি জানান। বর্তমানে সাবেক কাউন্সিলর সন্তোষ দত্ত জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সহসভাপতি, জেলা শ্রমিকলীগ সড়ক পরিবহন শাখার সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি এলাকাবাসীর সমর্থন কামনা করেন।
এদিকে যুবনেতা তরুণ সমাজসেবক প্রদীপ কুমার নাথ বাবলু জানান, এলাকাবাসীর সেবা করতে ও এলাকার সার্বিক উন্নয়নে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হতে চাই। এ লক্ষ্যে কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হলে অবহেলিত এ ওয়ার্ডে অগ্রাধিকার দিয়ে শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে আলোকিত যুবসমাজ গঠনে দৃঢ় ভূমিকা রাখবেন বলে তিনি জানান। একইসাথে পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন ওয়ার্ড উপহার দিয়ে এলাকাবাসীর চলমান জীবনে স্বস্তি ফিরিয়ে দিতে আপ্রাণ চেষ্টা করা হবে বলে তিনি জানান। তিনি পোস্টার ও প্যানা সাইন বোর্ডে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। একইসাথে তিনি গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন।
এ তিন প্রার্থী ছাড়াও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন নতুন দুই মুখ। এদের মধ্যে জেলা তাঁতীলীগের সহসভাপতি গৌরাঙ্গ পাল বাবু জানান, এলাকাবাসীর আগ্রহে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। নির্বাচনে বিজয়ী হলে এলাকাবাসীর প্রত্যাশা পূরণে যথাসাধ্য চেষ্টা করবো।
এছাড়া নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে ব্যাপকভাবে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চের সাংগঠনিক সম্পাদক শহর ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ওবায়দুল ইসলাম রাকিব। তিনি জানান, তার এলাকায় সাধারণ মানুষ নাগরিক সেবা থেকে বঞ্চিত। নির্বাচিত হলে নাগরিকদের জন্য সরকার কর্তৃক যেসব সুযোগ-সুবিধা আসে তা সুষ্ঠুভাবে বণ্টন করে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করা হবে। এলাকাবাসী সকলের মতামতের ভিত্তিতে এলাকার উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তরুণ এ সমাজসেবক বলেন, মানবিক সমাজ গঠন করতে ভূমিকা রাখবো। এলক্ষ্যে গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছি। তিনি এলাকাবাসীর দোয়া ও সমর্থন প্রার্থনা করেন।
উল্লেখ্য, ৮ ওয়ার্ডের মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার মানুষের বসবাস এ ওয়ার্ডে, ভোটার সংখ্যা ১৩ হাজার ৩৩২।