যশোর পৌরসভা এক নং ওয়ার্ডে আড়াইশ’ ফুট সড়কের জন্য ২৫ হাজার মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই

0
329

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাত্র ২৫০ ফুট সড়কের জন্য ২৫ হাজার মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই। যশোর পৌরসভার এক নং ওয়ার্ডের একটি সড়কের জন্য এই দুর্ভোগ বছরের পর বছর পোহাতে হচ্ছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বার বার জানানো হলেও কোন কাজ হয় না। আশ্বাসের পর আশ্বাস পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে এলাকার মানুষের।
এলাকাবাসী জানায়, যশোর-নড়াইল সড়কের ভিসা অফিসের পূর্ব পাশ থেকে সাহাপাড়া কালভাট পর্যন্ত ২৫০ ফুট সড়ক। এই সড়কের সঙ্গে রয়েছে একটি ড্রেন। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ চলাফেরা করে। বৃষ্টি হলে এলাকাটি তলিয়ে যায়। ড্রেনের ময়লা পানি মানুষের বাড়ি-ঘরে প্রবেশ করে। সে সময় দুর্ভোগের শেষ থাকে না। যাদের নিচু বাড়ি তারা অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নেন। আর এভাবেই চলে আসছে বছরের পর বছর।
এলাকার মানুষ জানায়, তারা চাঁদা তুলে সড়কে ঘেঁস ফেলে চলাচলের উপযোগি করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। ভোটের আগে আশ্বাস দেয়। ভোটের পর আর কেউ খোঁজ-খবর নেয় না। তারা যেন এক অন্য গ্রহের মানুষ। সমাজের অচ্ছুৎ মানুষের মত তাদের বসবাস করতে হয়।
এলাকার বাসিন্দা ফোরকান হোসেন জানান, এই সড়ক ও ড্রেনটি নির্মাণের জন্য বেশ কয়েকবার মাপ নিয়ে গেছে। কিন্তু কাজ হয় না। বর্তমান মেয়র এলাকায় এসে ঘুরে দেখে গেছেন। তিনি আশ্বাসও দিয়েছিলেন। সড়কসহ ড্রেনটি নির্মাণ করে দেবেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত হয়নি। আমরা এলাকার মানুষ বেশ কয়েকবার মেয়র সাহেবের সাথে দেখা করেছি। কিন্তু কোন কাজ হয় না। আমরা চাই আমাদের এই ছোট সড়ক ও ড্রেন ও সড়কটি সংস্কার করে দেওয়া হোক।
একই এলাকার বাসিন্দা বুলবুল আহমেদ বলেন, আমরা পৌর সভার সকল প্রকার ট্যাক্স-ভ্যাট দিয়ে বসবাস করি। কিন্তু পৌরসভা থেকে আমাদের কোন সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয় না। আমরা মেয়র সাহেবকে বলেছি, আমাদের ছোট এই ড্রেন ও রাস্তাটি করে দেবার জন্য। কিন্তু আজ পর্যন্ত করে দেননি।
কথা হয় এলাকার বাসিন্দা সঞ্জয় কুমার অধিকারীর সাথে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এই রাস্তাটির জন্য যত মানুষের কাছে আমরা গিয়েছি। ততবার যদি সৃষ্টি কর্তার ডাকতাম তাহলে সৃষ্টিকর্তা আমাদের এই রাস্তাটি করে দিতেন।
এলাকার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম সিরাজ বলেন, বর্তমান মেয়র সাহেব ভোটের আগে আমাদের সড়কটি করে দেবার আশ্বাস দিয়েছিলেন। ভোটের পর তিনি ভুলে গেছেন। আমরা আশ্বাসে আশ্বাসে বসবাস করে আসছি। শুধু বর্তমান মেয়র নয়, তার আগের মেয়র সাহেবরাও আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু আমাদের সড়ক ও ড্রেনের কোন কাজ হয় না।
এ ব্যাপারে যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টুর মোবাইল ফোনে কয়েকবার ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here