যশোর পৌরসভা নির্বাচন : ১০ কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার

0
104


নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর পৌরসভা নির্বাচনে ১০ কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন।বৃহস্পতিবার তারা নির্বাচন কমিশনে আবেদনের মাধ্যমে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন।মেয়র পদে চারজন ও কাউন্সিলর পদে ৭৮ প্রার্থী মনোনয়ন কিনেছিলেন। এরমধ্যে ৪ ফেব্রুয়ারি যাচাই বাছাইয়ে দুই মেয়র ও তিন কাউন্সিলর প্রাথীর মনোনয়ন বাতিল হয়। তবে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মারুফুল ইসলাম হাইকোর্টে রিট করেন। তার ব্যাপারে কোনো কাগজপত্র জেলা নির্বাচন অফিসে আসেনি।

আজ শুক্রবার মেয়র ও কাউন্সিলর মিলিয়ে ৬৭ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেবে নির্বাচন কমিশন। মনোনয়ন প্রত্যাহারকারীরা হলেন ১ নম্বর ওয়ার্ডে মিজানুর রহমান,২ নম্বর ওয়ার্ডে আশরাফুল কবির বিল্লাল, ৩ নম্বর ওয়ার্ডে শামীম আহম্মেদ রনি, মোঃ কামরুজ্জামান, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ফেরদাউস হোসেন সোমরাজ, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে পাপিয়া আক্তার, আজিজুল ইসলাম সেলিম, বিল্লাল পাটোয়ারী, ৭ নম্বর ওয়ার্ডে এসএম মাহমুদুল হাসান সুমন, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে গৌরাঙ্গ পাল বাবু।

তবে মনোনয়ন বাতিল হওয়া বিএনপির মেয়র প্রার্থী মারুফুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বহাল রাখা সংক্রান্ত হাইকোর্টের কোনো চিঠি নির্বাচন অফিসে আসেনি। এমন কি নির্বাচন স্থগিত বিষয়ে কোন চিঠিও তারা পাননি বলে জানান যশোর জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার হুমায়ুন কবীর।

নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, যশোর পৌরসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ছিল ২ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার। এদিন মেয়র পদে চার প্রার্থী ও ৭৮ জন কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। গত বৃহস্পতিবার যাচাইবাছাইয়ে ঋণ খেলাপি হওয়ায় বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও যশোর পৌরসভার সাবেক মেয়র মারুফুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে জেলা নির্বাচন কমিশন। একই সময় মনোনয়নপত্রের সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না দেয়ায় আব্দুর রহমান কাকন মৃধা, মনোনয়নসহ হলফ নামায় ক্রুটি থাকায় ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ইকবাল কবির, টুটুল মোল্লা ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রিয়াজ উদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। দুই মেয়র,কাউন্সিলর সহ ৭৭ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়। বৈধ প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাহারের দিন ছিল ১১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার। এদিন ৭টি ওয়ার্ড থেকে ১০জন কাউন্সিলর প্রার্থী নিজেদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। আজ শুক্রবার ৬৭ প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।

প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হায়দার গণি খান পলাশ, ইসলামী শাসন আন্দোলনের প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সর্দার। কাউন্সিলররা হলেন ১ নম্বর ওয়ার্ডে সংরক্ষিত আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী আয়েশা ছিদ্দিকা, মোছাঃ আইরিন পারভিন, সুফিয়া বেগম, মোছাঃ রেহেনা পারভীন, রুমা আক্তার, সান-ই শাকিলা আফরোজ, অর্চনা অধিকারী, মোছাঃ সেলিনা খাতুন ও রোকেয়া বেগম। ২ নম্বর ওয়ার্ডে সংরক্ষিত আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী নাসিমা আক্তার জলি, মোছাঃ নাছিমা সুলতানা। ৩ নম্বর ওয়ার্ডে সংরক্ষিত আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী শেখ রোকেয়া পারভীন ডলি, সালমা আক্তার বানী। ১ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ টিপু সুলতান, জাকির হোসেন রাজিব, সাহিদুর রহমান, জাহাঙ্গীর আহম্মাদ শাকিল। ২ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী শেখ সালাউদ্দীন আহম্মেদ, জাহিদুল ইসলাম, তপন কুমার ঘোষ, মীর মোশাররফ হোসেন বাবু, শেখ রাশেদ আব্বাস রাজ, ওসমানুজ্জামান চৌধুরী ও অনুব্রত সাহা। ৩ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী উম্মে মাকসুদা মাসু, দেলোয়ার হোসেন টিটো, ওমর ফারুক, শফিকুল ইসলাম, সাব্বির মালিক, শেখ মোকছিমুল বারী। ৪ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী জাহিদ হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ মঈন উদ্দীন। ৫ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী রাজিবুল আলম, হাফিজুর রহমান, মোকছেদুর রহমান ভুট্টো, শরীফ আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, হাবিবুর রহমান চাকলাদার, মিজানুর রহমান বাবলু ও শাহাজাদা নেওয়াজ। ৬ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ আনিসুজ্জামান, আশরাফুল হাসান, মোঃ আশরাফুজ্জামান, এসএম আজহার হোসেন স্বপন, আলমগীর কবির সুমন ও ৭ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী শামসুদ্দিন বাবু, জুলফিকার আলী, শাহেদ উর রহমান রনি,শাহেদ হোসেন নয়ন, গোলাম মোস্কফা, আবু শাহ জালাল, কামাল হোসেন ও রবিউল ইসলাম রবি। ৮ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী মনিরুজ্জামান মাসুম, প্রদীপ কুমার নাথ বাবলু, ওবাইদুল ইসলাম রাকিব, সন্তোষ দত্ত। ৯ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ আসনে কাউন্সিলর প্রার্থী শেখ নাসিম উদ্দীন পলাশ, শেখ ফেরদৌস ওয়াহিদ, আজিজুল ইসলাম, মোঃ শেখ শহিদ, মোঃ আসাদুজ্জামন,স্বপন কুমার ধর, খন্দকার মারুফ হুসাইন ও আবু বক্কর সিদ্দিক।

এ ব্যাপারে জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার হুমায়ুন কবীর, বলেছেন মনোনয়ন বাতিল হওয়া বিএনপির মেয়র প্রার্থী মারুফুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বহাল রেখেছে হাইকোর্ট। তবে এ সংক্রান্ত কোন চিঠি আমরা পায়নি। চিঠি পেলে নিয়ম অনুযায়ী তার প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে। এমন কি নির্বাচন স্থগিত বিষয়েও কোনো চিঠি আসেনি।