যশোর প্রথম বিভাগ ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন প্রদীপ্ত পথ ক্রিকেট একাডেমি

0
51

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সুপার লিগ পর্বের প্রথম ম্যাচে উপশহর ইয়ুথের কাছে হেরে সেরা হওয়ার রেস থেকে পিছিয়ে পড়েছিল শিরোপা প্রত্যাশী প্রদীপ্ত পথ ক্রিকেট একাডেমি। দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণ ভাবে ঘুরে দাঁড়ায় ঝিকরগাছার দলটি। আজাদ স্পোর্টিং ক্লাবকে উড়িয়ে বাঁচিয়ে রাখে সম্ভবনা। শুক্রবার লিগের শেষ ম্যাচে আরএন রোড বয়েজকে হারিয়ে যশোর প্রথম বিভাগ ক্রিকেটের শিরোপা নিজেদের করেছে হিরা-মুকুল-রানা-বাশাররা।

শামস্-উল-হুদা স্টেডিয়ামে ৯ রানে হেরেও রানার্সআপ হয়েছে আরএন রোড বয়েজ। সেই সাথে দল দুটি আগামী মৌসুমে প্রিমিয়ার ডিভিশনে নাম লিখিয়েছে। প্রদীপ্ত পথ ক্রিকেট একাডেমি ও আরএন রোড বয়েজের সমান ১০ পয়েন্ট নিয়ে রান রেটে পিছিয়ে থেকে তৃতীয় হয়েছে উপশহর ইয়ুথ ক্লাব।

লিগের বাইলজ অনুযায়ি যশোর প্রথম বিভাগের সেরা দল সুযোগ পাবে প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট। অপরদিকে সর্বনিম্ন পয়েন্টধারি দুই দল নেমে যাবে দ্বিতীয় বিভাগের টায়ার-১।

পিচ খেলার উপযুক্ত না হওয়ায় নির্ধারিত সময়ের ৪০ মিনিট পর বল মাঠে গড়ায়। এতে ৪২ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। ব্যাট করতে নেমে দুই রানে দুই উইকেট হারিয়ে বসে। সেখান থেকে প্রতিরোধ গড়ে তোলে নিপুন ও সজীব। দুজনে একসাথে ১১ ওভার ৩ বল ক্রিজে কাটিয়ে করেন ৪৭ রান। নিপুন ব্যক্তিগত ২৩ রানে ফিরলে ভাঙ্গে এই জুটি। এরপর মুকুল জুটি গড়েন বাশারের সাথে। তবে তাদের জুটি খুব বেশি সময় স্থায়ী হয়নি। ১৬ বলে ২টি চার ও এক ছয়ে ১৯ রান করে ফিরলে ভাঙ্গে ৩১ রানে জুটি। এর কিছু সময় পর বাশারের পথ ধরেন সজীব। ফেরার আগে সজীব ৭২ বলে ৪টি চারে করেন ৩৩ রান। এরপর একপ্রান্তে আগলে রাখেন শমসের আলম হিরা। হিরার ৩৯ রানের উপর ভর করে ৪০ ওভার ২ বলে অল আউট হওয়ার আগে ১৬২ রান করতে পারে প্রদীপ্ত পথ। দলের নবম ব্যাটার হিসেবে সাজঘরে ফেরার আগে হিরা করেন ইনিংসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৩৯ রান। ৪৩ বলের ইনিংসে হিরা মারেন ১টি চার।
বল হাতে আরএন রোড বয়েজের সপ্তক শাহারিয়ার ৯ ওভার বল করে ১টি মেডেনসহ ২৮ রানে ৪টি উইকেট সংগ্রহ করেন। এর পাশে মুরাদ হাসান নবাব ১৮ ও তাহমিদ হাসান কাফি ২টি করে উইকেট দখল করেন। এছাড়া ইমন একটি উইকেট নেন।

রানার্সআপ আরএন রোড বয়েজ
জবাবে ব্যাট করতে নেমে দারুন শুরু করে আরএন রোড বয়েজের দুই ওপেনার রাকিবুল ইসলাম ও জুনায়েদ হোসেন। পাঁচ ওভারে স্কোর বোর্ডে জমা করেন ৩৮ রান। ৭ রানের ব্যবধানে দুই ওপেনার সাজঘরে ফিরলে রান তোলার গতিতে ভাটা পড়ে। সেই সাথে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা। শেষ পর্যন্ত পুরো ৪২ ওভার খেললেও ৯ উইকেট হারিয়ে ১৫৩ রান করতে পারে।
ব্যাট হাতে দলের পক্ষে রাকিবুল ইসলাম ১৬ বলে ৩টি চার ও ২টি ছয়ে ২৮, আবু সাঈদ অপরাজিত ২৫, মুরাদ হাসান নবাব ১৭ ও আসাদুল্লাহ ১৪ রান করেন। বল হাতে প্রদীপ্ত পথ একাডেমির বাশার ৮ ওভার বল করে ৪টি মেডেনসহ ১৭ রানে ৪টি, শুভ ছয় ওভার বল করে ১০ রানে ও আবির ২৯ রানে ২টি করে উইকেট দখল করেন।