যশোর বহুমুখি পাটশিল্প উদ্যোক্তা সেবা কেন্দ্রের রান্নাঘরের কোনে বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবি

0
73

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর বহুমুখি পাটশিল্প উদ্যোক্তা সেবা কেন্দ্র (জেইএসসি) এখন কর্মকর্তার বাসভবনে পরিণত হয়েছে। সেবা কেন্দ্রটির সেন্টার ইনচার্জ মোহাম্মদ দিদারুল হক সেখানে রেখেছেন ডিপ ফ্রিজ, ফ্রিজ, ও খাট। তার অফিস কক্ষে দেখা গেছে যত্রতত্রভাবে পড়ে রয়েছে জামাকাপড়। ইতিমধ্যে তাকে মন্ত্রণালয় থেকে শোকজ করা হয়েছে।

সরেজমিন অফিসটিতে গিয়ে দেখা যায়, রান্নাঘরের গ্যাস সিলিন্ডারের পাশে নিচে রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। তার নিচে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ছবি। অফিসটির পিয়ন ব্যস্ত থাকেন কর্মকর্তার দুপুরের খাবার রান্না করা নিয়ে। অফিসকক্ষে গ্যাসে রান্না করায় রয়েছে চরম নিরাপত্তা ঝুঁকি। অফিসটিতে কয়েকদিন গিয়ে ইনচার্জকে পাওয়া যায়নি। পরে তাকে ফোন দিলে তিনি অফিসে আসেন।

বহুমুখি পাটশিল্প উদ্যোক্তা সেবা কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, এখানে উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। বছরে ৪৫-টি প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। মূলত দক্ষতা, মার্কেটিং ও পণ্যের গুনগত মান নিয়ে উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ চলে। বাকি সময়ে কর্মকর্তাদের কোনো কাজ থাকেনা। যেকারণে সরকারি অফিসটি এখন বাসা-বাড়িতে পরিণত হয়েছে। সেখানে সেন্টার ইনচার্জ নিজে রাত্রিযাপন করেন। রয়েছে তার আসবাবপত্র ও ইলেকট্রনিক্স জিনিস। সরকার তার বেতনের সাথে ৪০ শতাংশ বাড়িভাড়া প্রদান করেন। অথচ তিনি অফিস কক্ষেই থাকেন।

সেবাকন্দ্রটির ইনচার্জ মোহাম্মদ দিদারুল হকের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ হলো তিনি অফিসের রান্নাঘরে নিচে ফেলে রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর ছবি। যার ভিডিও চিত্র ও স্টিল ছবি রয়েছে মিডিয়ার কাছে। বিষয়টি নিয়ে তার সাথে কথা বললে তিনি জানান, পুরাতন ছবি নিচে রেখেছি। বিষয়টি তার প্রধান কার্যালয় দেখবে।

জেডিপিসি’র প্রধান কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম আকন্দ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি আমাদের নির্বাহী পরিচালক অবগত। ইতিমধ্যে তাকে শোকজ করা হয়েছে। কেননা পুরাতন ছবি হলেও প্রধানমন্ত্রীর ছবি নিচে ফেলে রাখা যায়না। এটি গুরুতর অপরাধ। তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বস্ত্রপাট মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বাজেট) ও নির্বাহী পরিচালক (জেডিপিসি) রেখা রানী বালো বলেন, বহুমুখি পাটশিল্প উদ্যোক্তা সেবা কেন্দ্র যশোরের ইনচার্জকে অফিসে রাতযাপন ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি নিচে ফেলে রাখার ঘটনায় শোকজ করা হয়েছে। তাকে শাস্তির আওতায় আনা হবে।