যশোর বাস মালিক সমিতির নিরুত্তাপ নির্বাচন নিয়ে সদস্যরা হতাশ !

0
259

১৯ আগষ্ট ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হচ্ছে

এম আর রকি : ১৯ আগস্ট যশোর বাস মালিক সমিতির নির্বাচন। ইতোমধ্যে নির্বাচনে অংশ গ্রহনেচ্ছুক সদস্যরা মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন । ২ আগষ্ট বুধবার ছিল মনোনয়ন পত্র গ্রহনের শেষ দিন। এবার র্দীঘ ৫ বছর পর এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নির্বাচনে তেমন কোন তাপ-উত্তাপ পরিলক্ষিত হচ্ছেনা। এবছর নির্বাচনে সভাপতিসহ দু’টি পদে ভোট না হওয়ার সম্ভবনা চুড়ান্ত হয়ে গেছে। কমিটির বর্তমান সভাপতি আলী আকবর সহসভাপতি-১ আবুল কাশেম যত দিন ইচ্ছা ততো দিন সংগঠনের নেতা থাকতে পারবেন। তাদের বিপরীতে কোন প্রার্থী থাকবে না। সংগঠনের সাধারণ সভায় সদস্যরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে অনেক বাস মালিকদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ওই সিদ্ধান্তের উপর অনেকেই আপত্তি করেছেন। অভিযোগ উঠেছে সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আজীবণ সদস্য পদ লাভের সুযোগ থাকলেও নেতা হওয়ার সুযোগ নেই। সূত্রগুলো জানিয়েছেন কৌশলে ওই দুইটি পদ দখল করা হয়েছে । আর এই কারনে এই নির্বাচনে কোন তাপ-উত্তাপ হচ্ছেনা। খোজ নিয়ে আরো জানা গেছে, ৫ বছর পরপর এই সংগঠনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। তার ধারা বাহিকতায় সম্প্রতি ২০১৭ সাল থেকে ২০২২ সাল ৫ বছরের জন্য সংগঠন পরিচালনার জন্য নির্বাচনী তফসীল ঘোষণা করা হয়। তফসীল অনুযায়ী ২২ জুলাই খসড়া ভোটার তালিকা উপস্থাপন করা হয়। ২ আগষ্ট বুধবার ছিল মনোনয়ন সংগ্রহের শেষ দিন। এদিন অনেকে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। ৫ আগস্ট বিকলে তিনটার মধ্যে মনোনয়ন জমা দেয়ার সময় নির্ধারণ করেছে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। ১০ আগস্ট মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ১৯ আগস্ট সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বাস মালিক সমিতির আরএন রোডস্থ অফিসে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে নিশ্চিত করে নির্বাচন পরিচলনা কমিটির কমিশনার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ইসহক এই তথ্য জানিয়েছেন।
কমিটি নিয়ে বিভিন্ন সূত্রগুলো জানিয়েছে, বাস মালিক সমিতির নির্বাচনের সভাপতি এবং সহসভাপতি-১ এই দুই পদে কোন ভোট হবে না। এই দুই পদে যারা আছেন তারা চাইলে আজীবন থাকতে পারবেন। কিন্তু গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এই দুই পদে আজীবণ নেতা হওয়ার সুযোগ না থাকলেও বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদ সভা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে আলী আকবর,আবুল কাশেম যথাক্রমে সভাপতি ও সহসভাপতি-১ আজীবণ থাকবেন। গঠনতন্ত্রের ১১ ধারা অনুযায়ী সমিতির স্বার্থ এবং প্রয়োজনে সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্যদের মধ্যে থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় কোন সদস্যকে আজীবণ সদস্যপদ প্রদান করা যেতে পারে। যা সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারণ সভায় অনুমোদিত হতে হবে। অভিযোগে আরো জানাগেছে, গঠনতন্ত্রের ওই ১১ ধারায় আজীবণ সদস্য পদ দেয়া যেতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু আজীবন নেতা হওয়ার কথা উল্লেখ করা নেই। অথচ আলী আকবর এবং আবুল কাশেম আজীবন নেতা থাকবেন বলে কৌশলে সভায় সিদ্ধান্ত আকারে পাশ করে নেয়া হয়েছে। এর ফলে যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও অন্য কোন সদস্য সভাপতি বা সহসভাপতি-১ হতে পারবেন না। এই ধরনের সিদ্ধান্তের প্রতি এখন সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। কমিটির মেরুদন্ড হিসেবে চিহ্নিত সাধারণ সম্পাদকের পদটিও একই কায়দায় দখলে নেয়ার প্রস্তাব এসেছিল বলে অনেকে অভিযোগ করছেন। কিন্তু বর্তমান সাধারণ সম্পাদক হাসান ইমাম সিদ্দিকী মুকুল অসুস্থ্য। তিনি দায়িত্ব নিতে অপারগ হওয়ায় ওই পদে নির্বাচন জমে উঠার সম্ভবনা রয়েছে । আবার সদস্য না এমন কাউকে সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসানোর জন্য হিসাব নিকাশ পরিকল্পনা হচ্ছে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন।এই বিষয়ে বর্তমান সভাপতি আলী আকবরের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি জানান,আজীবন নেতা এটা গত ১০ বছর ধরে হয়ে আসছে। কার্য্য নির্বাহী কমিটির সভায় এ ধরনের সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত করা হয়। এমনকি সাধারণ সভাকরে সদস্যরা সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছেন। নিয়ম মোতাবেক ও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সংগঠনের সদস্য না এমন কেউ নির্বাচন করার কোন সুযাগ নেই। নির্বাচন পরিচলানা কমিটির কমিশনার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ইসহক সাংবাদিকদের জানান,বাস মালিক সমিতি সিদ্ধান্ত নিয়েছে এ বছর দু’ পদে ভোট হবে না। তাদের সিদ্ধান্তের প্রয়োজনীয় তথ্য আমাদের কাছে দিয়েছে। যার ফলে সংগঠনের গঠনতন্ত্র মোতাবেক ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here