যশোর-বেনাপোল এশিয়ান হাইওয়ে ছয় লেনে উন্নীতসহ বেনাপোল বন্দরের অবকাঠামোগত উন্নয়নের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

0
386

নিজস্ব প্রতিবেদক :দেশের রাজস্ব আদায়ের অন্যতম স্থলবন্দর যশোরের বেনাপোলের সাথে সারা দেশের জেলা গুলির যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতি ও দ্রুত করণে যশোর বেনাপোল মহাসড়ক ছয় লেনে করার দাবি করেছেন বেনাপোল কাস্টমস ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্টস এসোসিয়েশন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। রোববার বেলা ১১ টায় প্রেসক্লাব যশোর কনফারেন্স রুমে যশোর বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ক ও বেনাপোল বন্দরের উন্নয়ন বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে ৯ দফা দাবি সম্বলিত তুলে ধরে বক্তব্য দেন সংগঠনের সভাপতি আলহাজ্ব মফিজুর রহমান সজন।
যশোর-বেনাপোল জাতীয় মহাসড়ক ও বেনাপোল বন্দরের অবকাঠামোগত উন্নয়নের অভাবে দু-দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য স্থবিরতা নিরসনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা। তিনি বলেন বেনাপোল স্থল বন্দর দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একটি সর্ববৃহৎ স্থল বন্দর। ভারতের সাথে অসম বণিজ্যে বেনাপোল বন্দরের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিবছর দেশের সিংহভাগ শিল্প কলকারখানা ও গার্মেন্টস ইন্ডাষ্ট্রিজ মালামাল আমদানি হয় এই বন্দর দিয়ে এবং সার্বিকভাবে এখানে ২০ হাজার কোটি টাকার মালামাল আমদানি রফতানি হয়ে থাকে। ইতিমধ্যে এ বন্দরটি এশিয়ান হাইওয়ের সাথে সংযুক্ত হয়েছে। ভারতের কোলকাতা থেকে মাত্র ৭০ কিলোমিটার দূরত্বে অত্যন্ত কম সময়ে এ বন্দর দিয়ে মালামাল আমদানি করা সম্ভব। প্রতিদিন এই পথে ৬/৭ হাজার পাসপোর্ট যাত্রী ভারত-বাংলাদেশ যাতায়াত করে থাকে। এ জন্য চেকপোস্ট সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখতে হবে। পৃথিবীর অন্যান্য আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে। সেখানে বেনাপোল-পেট্রাপোল চেকপোস্ট খোলা থাকে মাত্র আট ঘণ্টা।
এছাড়া,দূ-দেশের প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের র্দীঘদিনের দাবির কথা বিবেচনা করে কোলকাতা-বেনাপোল ও খুলনা রুটে সরাসরি যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের শুভ উদ্বোধন হয়েছে।আন্তদেশীয় ঐতিহাসিক ট্রানজিট চুক্তি বাস্তবায়ন হয়েছে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। এ পথে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বাস-পরিবহন কোলকাতার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করেছে। এছাড়া এ বন্দর থেকে প্রতিবছর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সাত হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায় করছে সরকার। সংবাদ সম্মেলনে বলেন, দেশের অন্যতম রাজস্ব আদায়ের স্থল বন্দর বেনাপোলের সাথে দেশের যানবাহন চলাচল এখন পুরোপুরি অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এই সড়কের মাঝামাঝি অবস্থিত ঝিকরগাছায় কপোতাক্ষ নদের ওপরকার সেতুটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।’
তিনি বলেন, ”দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর হলেও বেনাপোলে রয়েছে নানা সংকট। বন্দরে পণ্য রাখার জায়গায় তীব্র সংকট। ভারতের অংশে ৫-৭ হাজার গাড়ি ২০-২৫ দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করে পণ্য খালাসের জন্য। বন্দরে পণ্য ওঠানো-নামানোর যন্ত্র বিকল। ফলে বর্তমানে দিনে ৩-৪শ’য়ের বেশি গাড়ির পণ্য আনলোড করা যাচ্ছে না। এতে বিপুল ক্ষতির মুখে পড়ছেন ব্যবসায়ীরা।সংবাদ সম্মেলনে ভারত থেকে আমদানি করা যানবাহন রাখার জন্য নতুন ইয়ার্ড নির্মাণের দাবি জানানো হয়। এক্ষেত্রে নোম্যান্সল্যান্ড-সংলগ্ন এলাকায় ৫০ একর জমি অধিগ্রহণ করে ওপেন ইয়ার্ড/শেড নির্মাণের দাবি করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বেনাপোল-পেট্রপোল স্থলবন্দরের সঙ্গে সংযুক্ত ভারতের যশোর রোডের দুই ধারের শতবর্ষী পুরনো গাছ কেটে আমদানি-রফতানির সুবিধার্থে মহাসড়ক আট লেনে উন্নীত করছে ভারত সরকার। সেই আদলে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের দুই পাশের শতবর্ষী গাছ কেটে সড়কটি ছয় লেনে উন্নীত করতে হবে। বন্দরের গুদামে পণ্যের ধারণক্ষমতা ৩০ হাজার মেট্রিক টনের। সেখানে পণ্য ওঠানো-নামানো হচ্ছে এক লাখ টনের মতো। আরো ২০টি নতুন গুদাম নির্মাণ না করলে বাণিজ্যে বিরূপ প্রভাব পড়ছে।
সংগঠনটির বন্দরে নতুন ইয়ার্ড নির্মাণ করা, বন্দরে প্রশাসনিক ভবনসহ ৫০ শয্যার একটি হাসপাতাল নির্মাণ। বন্দরে পণ্য ওঠানো-নামানোর জন্য দশটি ক্রেন, দশটি ফরকলিফটসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সরবরাহের দাবিও জানায়। এ ছাড়া পণ্যের নমুনা নিরীক্ষার জন্য জরুরি ভিত্তিতে বেনাপোল কাস্টমস হাউসে বিএসটিআইয়ের একটি শাখা অফিস স্থাপনের করার দাবি জানান।সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাব দেন সংগঠনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন, সহ-সভাপতি মো. নুরুজ্জামান, সাবেক সভাপতি শামসুর রহমান, ভারত-বাংলাদেশ চেম্বারের ল্যান্ডপোর্ট সাব কমিটির সভাপতি মতিউর রহমান, সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক মহসিন মিলন,জামাল হোসেন, কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহমান,হারুণ-অর-রশীদ,নাসির উদ্দিন, সদস্য মহসীন প্রমুখ।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here