যশোর বড় বাজার এলাকায় সরকার নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যবসা সয়লাব

0
774

অবৈধ ব্যবসার হোতা গ্রেফতার এড়াতে কূট কৌশল নিয়েছে !

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভ্রাম্যমান আদালতের চোখ ফাঁকি দিয়ে যশোর বড় বাজার এলাকায় পলিথিনের বড় মোকাম গড়ে উঠেছে। ব্যবসার হোতা পুলিশের সোর্স পরিচয়দান কারী গৌরাঙ্গপাল ওরফে বাবু পাল গোটা বাজার এলাকায় পলিথিন সরবরাহ করছে। সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে গৌরাঙ্গপাল পলিথিনে সয়লাব করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,রোববার রাত আনুমানিক ১১ টায় শহরের বড় বাজার হাটখোলা রোডস্থ আবাসিক হোটেল সিটির অদূরে পলিথিন বোঝাই করে দু’টি ভ্যান আসে। উক্ত স্থানে বসে থাকা সদর পুলিশ ফাঁড়ির এক সদস্য পলিথিন বোঝাইকৃত দু’টি ভ্যানের চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করার এক পর্যায় ভ্যান দু’টি দাঁড় করায়। ভ্যান চালককে উক্ত পুলিশ পলিথিনের মালিক কে জানতে চাইলে ভ্যান চালক পুলিশের উত্তরে জানান, পলিথিনের মালিক গৌরাঙ্গ পাল ওরফে বাবু পাল সহযোগী লিটন সাহা ও অরবিন্দু। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে ভ্যান চালক পলিথিনের মালিকদ্বয়কে মোবাইলে সংবাদ দিলে বাবু বাজার সংলগ্ন চতুর্থতলা ভবনে অবস্থান নেওয়া গৌরাঙ্গ পাল নেমে পলিথিন বোঝাই ভ্যানের কাছে আসে। তার কিছুক্ষন পর ব্যবসার পার্টনার লিটন সাহা ও অরবিন্দু আসে। পুলিশ পলিথিনের মালিকদ্বয়কে অবৈধ পলিথিন আনার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পলিথিন ব্যবসার হোতা বাবু পাল প্রতিত্তুরে বলেন বড় স্যারের সাথে চুক্তি রয়েছে। উক্ত পুলিশকে অবৈধ পলিথিনের চালান ছেড়ে দেওয়ার কথা বলেন। কর্তব্যরত পুলিশ বড় স্যারের কথা শুনে সরকার নিষিদ্ধ পলিথিনের বড় চালান ছেড়ে দিয়ে স্থান ত্যাগ করেন। বড় বাজার সূত্রগুলো জানিয়েছেন,গৌরাঙ্গ পাল ওরফে বাবু পাল সরকারের নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে রাতারাতি যশোরের একটি পত্রিকার পরিচয় পত্র সংগ্রহ করেছেন। সংবাদ কর্মী না হয়েও নিজেকে সংবাদ পত্রের বড় পদের একটি কার্ড তার দখলে রয়েছেন। পুলিশী ঝামেলা এড়ানোর জন্য মাঝে মধ্যে তিনি ওই সংবাদ পত্রের বড় কার্ডের পরিচয় দেয়। তাছাড়া,পলিথিন ব্যবসা করে আজ সে কয়েক লাখ টাকার মালিক বনে গেছেন। সূত্রগুলো বলেছে,শহরের হাটখোলা রোড,গোহাটা রোড,বড় বাজার,হাট চান্নিসহ বেশ কয়েকটি রোডে পলিথিন সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। বাবু পালের নেতৃত্বে পলিথিন ব্যবসা গোটা বাজার বিস্তারলাভ করেছে। বাজারের ব্যবসায়ী নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানিয়েছেন, গৌরাঙ্গ পাল প্রায় প্রতিদিন গভীর রাতে লোকের মাধ্যমে ট্রেন ও বিভিন্ন মাধ্যমে পলিথিনের বড় চালান বড় বাজার এলাকায় তুলছেন। উক্ত সড়কে এই ব্যবসা ৯ জন নিয়ন্ত্রন করছেন। ভ্রাম্যমান আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মাঝে মধ্যে অভিযান পরিচালনা করে জরিমানা আদায় করার নজির থাকলেও বাবু পাল এই ব্যবসা ছাড়ছে না। যার কারনে সরকারের নিষিদ্ধ পলিথিনের ব্যবহার বন্ধ ও পাটের তৈরী ব্যাগের ব্যবহারে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই অবিলম্বে গৌরাঙ্গ পাল ওরফে বাবু পালকে গ্রেফতার পূর্বক সরকারের উদ্দেশ্য সফল করার জন্য স্থানীয় বাজারের ব্যবসায়ীরা প্রশাসনের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here