যশোর মনিরামপুরে ছিন্নমুলের বাড়ি দখলকে কেন্দ্র করে ভবদহপাড়ের আন্দোলনে দানা বেঁধে উঠেছে

0
39

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের মনিরামপুরে টেকা নদীর তীরে ছিন্নমুল পরিবারকে তাড়িয়ে দিয়ে বসতবাড়ি দখলের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভবদহপাড়ের আন্দোলনে দানা বেঁধে উঠেছে। দখলবাজদের উচ্ছেদ করে ছিন্নমূল পরিবারকে বসতবাড়ি ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে ধারাবাহিক আন্দোলনের কর্মসূচি অনুযায়ি রোববার সকাল থেকে শুরু হয়েছে গণস্বাক্ষর। এ দিকে তদন্ত টিমের প্রধান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রুহুল আমিন জানিয়েছেন তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। দু একের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।
জানাযায়, উপজেলার নেহালপুর ইউনিয়নের ভবদহের টেকা নদীর তীরে শ্মশানের খাস জমিতে দেশ স্বাধীনের আগে থেকে পাঁচাকড়ি গ্রামের রমেশ মল্লিক, সুফেন মল্লিক, উর্মিলা মল্লিক ও দিলু মল্লিকসহ ছিন্নমূল বেশ কয়েকটি পরিবার কাঁচা অর্ধকাঁচা ঘর তৈরী করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে। এরা সবাই দিনমজুর। গত ২ ফেব্রুয়ারি রাতে পাঁচাকড়ি গ্রামের হরেন্দ্র নাথ বিশ্বাষের ছেলে কয়েকটি মৎস্যঘেরের মালিক প্রভাবশালী পবিত্র বিশ্বাষ তার দলবল নিয়ে সুফেন মল্লিক ও তার পরিবারবর্গকে মারধরের পর সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে তাড়িয়ে দিয়ে ঘরবাড়ি দখল করে। সেই থেকে সুফেন মল্লিক ও তার পরিবার নিখোঁজ রয়েছে। এ ঘটনায় সুফেন মল্লিকের ভাই রমেশ মল্লিক লিখিত অভিযোগ করলে ৪ ফেব্রুয়ারি রাতে নেহালপুর পুলিশ ফাঁড়িতে ইনচার্জ এসআই সৈয়দ বখতিয়ার হোসেনের নেতৃত্বে সালিশী সভার আয়োজন করা হয়। সালিশী সভায় নেহালপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রুহুল আমিনকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত টিম গঠন করা হয়। কমিটির প্রধান রুহুল আমিন জানান, তদন্ত করে সকল অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। দখলকারি প্রবিত্র যে ষ্ট্যাম্প প্রদর্শন করেছে তাতে উল্লেখ রয়েছে ২৪৬ নম্বর মৌজার ১৬ শতক জমি তিনি কিনেছেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে ২৪৬ নম্বর হলো কপালীয়া মৌজা। আর দখল করেছে পাঁচাকড়ির ২৪৫ নম্বর মৌজার শ্মশানের জমি।এ ব্যাপারে দুএকের মধ্যে লিখিত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে। রুহুল আমিন অভিযোগ করেন ছিন্নমুলদের বসতবাড়ি দখলকারী পবিত্র বিশ্বাস এলাকার চরমপন্থী সন্ত্রাসীদের সাথে নিয়ে প্রায় প্রতি রাতেই অন্যান্য ছিন্নমূলদের জীবননাশ সহ বিভিন্ন হুমকিধামকি দেওয়া অব্যাহত রেখেছে।
রমেশ মল্লিক জানান, সন্ত্রাসীদের রামরাজত্বের কারনে অন্যান্য ছিন্নমুলদের পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করা দুরুহ হয়ে পড়েছে। বিষয়টি জানাজানি হলে ভবদহসহ আশপাশের জনসাধারনের মধ্যে ক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠে। দখলবাজদের প্রতিহত করতে এলাকাবাসী আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষনা করে। গত রোববার ভবদহপাড়ের টেকারঘাট বালিকা বিদ্যালয় মাঠে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ থেকে নতুন কর্মসূচি ঘোষনা করা হয়। সেই কর্মসূচি অনুযায়ি রোববার থেকে শুরু হয়েছে গণস্বাক্ষর। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রুহুল আমিন জানান, দখলবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে ইতিমধ্যে প্রায় সহ¯্রাধিক স্বাক্ষর হয়েছে। দুএকের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য স্বপন ভট্ট্রাচার্য্য, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা চেয়ারম্যান এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হবে। তিনি ঘোষনা দেন দখলবাজদের উচ্ছেদ করা না পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। তবে নেহালপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সৈয়দ বখতিয়ার হোসেন জানান, তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাবার পর পরবর্তি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।