যশোর মাদকাসক্তি নিরাময়কেন্দ্রে মাহাফুজুর হত্যা মামলায় আরো দুইজনের স্বীকারোক্তি

0
60

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর শহরের রেলরোড এলাকার যশোর মাদকাসক্তি নিরাময় ও পূনর্বাসন কেন্দ্রের মাহাফুজুর হত্যা মামলায় দুই পরিচালক সহ ১১ আসামির রিমান্ড শেষে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন। দুইজনেই হত্যার সাথে জড়িত বলে জানিয়েছেন তারা। মঞ্জুর করেছে আদালত।রোবব সোমবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট গৌতম মল্লিক ও জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুদ্দীন হোসাইনের পৃথক আদালত তাদের জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরআগে গত রোববার আটক ১১ আসামিকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ
আদালত সূত্র জানায়, স্বীকারোক্তিতে ঝিনাইদহ জেলার কোটচাদপুর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে আরিফুজ্জামান জানিয়েছেন, ঘটনার দিন তিনি প্রথমে মাহাফুজুরের দুই পা চেপে ধরেন।এছাড়া রানা, ফরহাদ, শাহিন, তৌহিদ ও রোকন মারপিট করে। পরে আরিফুজ্জামানও কয়েকটি কিল ঘুষি মারে।
এছাড়া অপর আসামি বেনাপোল পোর্ট থানার শাখারীপোতা গ্রামের মুকুল হোসেনের ছেলে ইসমাইল হোসেন জানিয়েছেন, মাহাফুজুর পাগলামি করছিলো। এসময় উপরে উল্লেখিত আসামি সহ তিনি নিজেও মারপিট করেন। একপর্যায় অসুস্থ্য হয়ে পরে মাহফুজুর। পরে তাকে বাথরুমে নিয়ে মারপিট করা হয়। শেষমেষ অচেতন হয়ে পড়ায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে মাহফুজুরের মৃত্যু হয়।
রিমান্ড ফেরত আসামিরা হলেন, প্রতিষ্ঠানের দুই পরিচালক বারান্দী মোল্লাপাড়া এলাকার আবুল হাসেমের ছেলে মাসুদ করিম ও বারান্দীপাড়া বটতলা এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে আশরাফুল কবির , শহরের কাজীপাড়া মসজিদের পাশের বাসিন্দা কামরুজ্জামানের ছেলে ওয়াহিদুজ্জামান, আরবপুর বাঁশবাড়িয়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে অহিদুল ইসলাম, হুসতলা বকচর এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে আল শাহরিয়ার রোকন, অভয়নগর উপজেলার বুইকারা গ্রামের আসর আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম, বেজপাড়া টিবি ক্লিনিক এলাকার এসএম জি মুক্তাদির ছেলে এসএস সাগর আজিজ, শেখহাটি হাইকোর্ট মোড় এলাকার মৃত ফজর আলীর ছেলে নুর ইসলাম, সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার বামখালী গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে ওয়াহিদুজ্জামান ওরফে সাগর।
উল্লেখ্য, গত ২২ মে যশোর মাদকাসক্তি নিরাময়কেন্দ্রে চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবন নগর উপজেলার মনিরুজ্জামানের ছেলে মাহাফুজুরকে মারপিট করে হত্যা করা হয়। যা প্রতিষ্ঠানের সিসি ক্যামেরায় মারপিটের চিত্র উঠে আসে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে মামলা করেন। পুলিশ দুই পরিচালক সহ ১৪ আসামিকে আটক করে। এর মধ্যে তিন আসামি আদালতে জবানবন্দি দেন। বাকি ১১ জনকে সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। রোববার রিমান্ড আবেদনের শুনানী শেষে আদালত প্রত্যেকের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ওইদিনই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চাঁচড়া ফাঁড়ির ওসি রোকিবুজ্জামান ১১ আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাদের মধ্যে সোমবার দুইজন আদালতে হত্যার দ্বায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। এছাড়া একই মামলায় গত ২৪ মে আরো তিন আসামি আদালতে জবানবন্দি দেন। তারা হলেন চৌগাছা উপজেলার বিশ্বাসপাড়া গ্রামের মশিয়ার রহমানের ছেলে রিয়াদ, মনিহার নীলগঞ্জ সাহাপাড়ার আব্দুর রশিদ মিয়াজীর ছেলে রেজাউল করিম রানা ও ঝিনাইদহ জেলার কোটচাদপুর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের সাবদার রহমানের ছেলে শাহিনুর রহমান।