যশোর মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরি স্কুলের শিক্ষাথীর বুকে লাথি মেরে বেধড়ক মারলেন শিক্ষক

0
25

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে শ্রেণীকক্ষে ৯ম শ্রেণী পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে বেধড়ক মারধর ও বুকে লাথি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। মারধরে সারা শরীরে গুরুতর জখম নিয়ে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে ঐ শিক্ষার্থী। আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুরে সাড়ে ১২টার দিকে শহরের মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরি উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। শিক্ষকের অনৈতিক আচাচরণের শিকার শুভ ইসলাম নামের শিক্ষার্থী শহরের শংকরপুর এলাকার পলাশ হোসেনের ছেলে। সে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী। এদিকে শ্রেণীকক্ষে শিক্ষক শিক্ষার্থীকে বেধড়ক মারপিটের সাথে বুকে লাথি দেওয়ার ঘটনায় অভিভাবক মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা ঘটনার সুষ্ঠু বিচার ও তদন্ত দাবি করেছেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শুভ ইসলাম জানায়, তাদের বিদ্যালয়ে এখন অর্ধবার্ষিকী পরীক্ষা চলছে। বৃহস্পতিবার ছিল তাদের শেষ পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষ হওয়ায় ক্লাসরুমে কয়েকজন বন্ধু ও বান্ধবী মিলে ছবি তুলছিলাম। এটা দেখতে পেয়ে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলাম এসে আমাকে বেধড়ক বেত্রাঘাত শুরু করেন। একপর্যায়ে আমাকে জোরে বুকে লাথি মারলে আমি দূরে ছিটকে পড়ে যাই। সে আরও বলে, আমাদের কোনো দোষ নাই। পরীক্ষা শেষে ক্লাস রুমে হৈহল্লা চিৎকার করেনি। বিনাকারণে এসে শুধু আমাকে মারলো।

অভিযুক্ত সহকারী প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, এর আগেও শুভ বিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খল কার্যকলাপের সাথে জড়িত ছিল। বারবার তাকে সর্তক করা হলেও সে নিজেকে শুধরায়নি। বৃহস্পতিবার পরীক্ষা শেষ হলে ছেলেটি একটি শ্রেণীকক্ষে তার কয়েকজন বন্ধুকে নিয়ে তাদের সঙ্গে থাকা একটি মেয়ের সাথে সেলফি তুলছিল। তাদের সেলফি ও ছবি তোলা দৃষ্টিকটু হওয়ায় রাগে ছেলেটিকে মারধর করেছি। তবে রাগের মাথায় লাথি মারা ঠিক হয়নি।

এ বিষয়ে শিক্ষার্থীর মা শাহানা খাতুন বলেন, আমার ছেলে ভালো ছেলে। এলাকায় খারাপ ছেলেদের সাথে মিশে না। বিদ্যালয়ে ছেলে-মেয়েরা আসে শেখার জন্য। সেখানে তারা দোষ করলে; শাসন করার অধিকার শিক্ষকদের আছে। তবে বেধড়ক মারপিট ও বুকে লাথি মারা কোনো শিক্ষকের কাজ না। আমার ছেলেটারে বুকে লাথি মেরেছে; ঐ লাথিতে যদি ওর বড় কোনো বিপদ হতো এর দায় কে নিতো। তাছাড়া এমনভাবে ছেলেকে মেরেছে সারা শরীরে জখমের দাগ ও সাদা স্কুল ড্রেস রক্তে লাল হয়ে গেছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সবুর খান বলেন, শিক্ষার্থীর দোষ থাকলেও এভাবে মারা ঠিক হয়নি। সহকারী শিক্ষক রাগের মাথায় কাজটি করেছে। ঘটনাটি ঘটার পর আমি অভিযুক্ত শিক্ষককে শোকজ নোটিশ দিয়েছি। পৌর নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। আগামী তিনদিনের মধ্যে কমিটি রিপোর্ট দেয়ার পর তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।