যশোর রাজারহাটে গৃহবধূ মনিরা বেগম খুনের ঘটনায় ৮ মাস পর হত্যা মামলা স্বামী গ্রেফতার

0
234

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর সদর উপজেলার রাজারহাট মোল্লাপাড়া গ্রামের এক বাড়িতে গত বছর ১১ অক্টোবর গৃহবধূ মনিরা বেগম (১৯) মৃত্যুর ঘটনায় হত্যামামলায় রুপান্তরিত হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ গৃহবধূর স্বামী সুমন মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে। সে ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার তারাবুনিয়া গ্রামের মৃত মতিয়ার রহমান মোল্লার ছেলে। এছাড়া, অপর দু’জন আসামীরা হচ্ছে, একই এলাকার আব্দুল মোতালেব শেখ এর ছেলে শেখ মোঃ মনিরুজ্জামান ও শেখ মোঃ মনিরুজ্জামানের স্ত্রী মোছা সুখি বেগম। কোতয়ালি মডেল থানার মামলা নং ৩৫ তারিখঃ ১৪/৬/২০ ধারা ৩০২/৩৪ পেনাল কোড।
পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া উপজেলার রাজপাশা (হাওলদার বাড়ি) এর সোহরাব হোসেন হাওলাদারের স্ত্রী নাছিমা বেগম রোববার ১৪ জুন বিকেলে বাদী হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করেন,তার মেয়ে মনিরা বেগমকের সাথে ২ মাস পূর্বে সুমন মোল্লার বিয়ে হয়। বিয়ের পর সুমন মোল্লা তার স্ত্রী মনিরা বেগমকে যশোর সদর উপজেলার রাজারহাট মোল্লাপাড়া গ্রামের মিজানুর রহমানের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। সেখানে স্ত্রী মনিরা বেগমের কাছে যৌতুক বাবদ মোটর সাইকেল কেনার জন্য ১লাখ ১৫ হাজার টাকা দাবি করে। এর পর গত বছর ১১ অক্টোবর দুপুর ১২ টা হতে রাত ৮ টার মধ্যে মনিরা বেগম মারা যায়। মনিরা বেগমের মৃত্যুর সংবাদ মনিরা বেগমের নন্দাই মোতালেব নাছিমা বেগমকে জানায়। মনিরা বেগম হৃদ যন্ত্র ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যশোর জেনারেল হাসপাতালে মারা গেছে। মেয়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে নাছিমা বেগম পরের দিন জামাই সুমন মোল্লার রাজাপুর তারাবুনিয়া গ্রামে যায়। সেখানে মনিরা বেগমকে তড়িগড়ি করে দাফনের চেষ্টা করলে মনিরা বেগমের মা নাছিমা বেগমের সন্দেহ হয়। রাজাপুর থানায় মৃত্যু সংক্রান্ত একটি অভিযোগ দায়ের করলে রাজাপুর থানা পুলিশ একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১৮/১৯ তারিখ ১২/১০/১৯ ইং। উক্ত অপমৃত্যু মামলা সংক্রান্ত ব্যাপারে মনিরা বেগমের লাশের সুরোতহাল প্রতিবেদন সম্পন্ন করে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে। ময়না তদন্ত রিপোর্টে মনিরা বেগমকে হত্যা করা হয়েছে আসার পর নাছিমা বেগম বাদি হয়ে মামলা দায়ের করে। শনিবার রাতে পুলিশ সুমন মোল্লাকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করে।#