যশোর রেজিষ্ট্রি অফিসের বহুলালোচিত নূরু এখন বহাল তবিয়তে দূর্নীতি চালিয়ে যাচ্ছে

0
388

এম আর রকি যশোর: পত্রপত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর নূরু বেজায় ক্ষেপেছেন। সে তার বিরুদ্ধে তথ্য সরবরাহকারীকে খুঁজছে।এছাড়া,নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানের সাথে আপোষ মীমাংসা করার জন্য তার সিন্ডিকেটের সদস্য আতিয়ার,হিরা,কাজী রবিউলসহ অনেকে আলাপ আলোচনা করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

নির্ভরযোগ্যসূত্র গুলো বলেছে,রেজিষ্ট্রি অফিসের সামান্য পিওন পদে চাকুরী করে নূরু এখন কোটিপতি বনে গেছেন। সে প্রথমে জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে যোগদান করে জমি রেজিষ্ট্রি বাবদ অবৈধভাবে অর্থ কামানোর পথ সৃষ্টি করে। টাকা ছাড়া জেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে কোন জমি রেজিষ্ট্রি হয়না এমন খাতের হোতা নূরু সদ্য যোগদানকারী নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে অফিসের মধ্যে এলোপাতাড়ীভাবে মারপিট করে এখন অস্বীকার করছেন। এমনকি তার সিন্ডিকেটের সদস্য আতিয়ার রহমান,কাজী রবিউল,হিরাসহ যারা গত ১২ জুন বিকেলে নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে মারপিট করে অফিস থেকে বের করে দিয়েছিল। তারা এখন কৌশল নিয়ে আপোষ মীমাংসার চেষ্টা করছে। আব্দুল হান্নানকে কৌশল নিয়ে জানিয়েছেন,যারা ঘটনার দিন হামলা চালিয়েছে তাদেরকে কেউ চেনেন না। তবে তাদেরকে রেজিষ্ট্রি অফিসের আশপাশে দেখা গেলে ধরা হবে।সূত্রগুলো জানিয়েছেন,নূরু মনিরামপুর উপজেলার রেজিষ্ট্রি অফিসে পিওন পদে চাকুরী করলেও সে সেখানে প্রতিদিন না গিয়ে জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে অবস্থান করে। সে মনিরামপুর উপজেলা রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে যে কোন মূর্হুতে জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে যোগদান করবেন বলে বেড়াচ্ছে। নূরু পিওন পদে চাকুরী করে নিজস্ব প্রেস স্থাপন করেছেন। শহরের এমএম আলী রোডের একটি মার্কেটে তার প্রেস রয়েছে। সূত্রটি আরো জানায়,নূরু সদর উপজেলার চাঁচড়া সাড়াপোল রোডে তার মেয়ের জামাতাকে একটি অত্যাধুনিক বাড়ি কিনে দিয়েছেন। সোমবার ১৯ জুন রাত আনুমানিক ৯ টায় উক্ত নূরু তার মেয়ের বাড়িতে বিভিন্ন সন্ত্রাসী নিয়ে বৈঠক করেছেন। কিভাবে তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। তিনি ওই বৈঠকে বলাবলি করেছেন,তার নামে লিখে কিছুই হবেনা । তিনি হুংকার দিয়ে বলেছে,জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনকে লাঞ্চিত করেছি। তাছাড়া,তার জমি রেজিষ্ট্রি করা বাবদ অর্থ নিয়েছি তাতে তার কিছুই হয়নি। বড়জোর বদলী হয়েছি। আগামীতে আবার জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে ফিরছি বলে হুংকার দিচ্ছে। তবে নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নান কিভাবে থানায় অভিযোগ করে এখানে চাকুরী করেন সে বিষয়টি পরে দেখবেন বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে প্রতিদিন যে জমি রেজিষ্ট্রি হয়। তার হিসাব নূরুকে তার সিন্ডিকেটের সদস্যরা জানিয়ে দেয়। তার হিসেব ছাড়া কোন জমি রেজিষ্ট্রি হয়না জেলা কার্যালয় । জেলা রেজিষ্ট্রার নূরুকে হিসেবে করে চাকুরী করতে বাধ্য হন। তার কারণ নূরু বিশাল শক্তিশালী সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রন করেন। যশোর সদর উপজেলার ভাতুড়িয়া গ্রামের ও রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকার লোকজনের কাছে নূরু একটি আলোচিত নাম। প্রতিদিন জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে যে টাকা অবৈধভাবে উপার্জন হয়ে থাকে তার সিংহভাগ টাকা নূরু সিন্ডিকেটের সদস্যদের দিতে হয়। প্রতিদিনের টাকা একটি নির্দিষ্ট স্থানে জমা রাখা হয়। পরে সে গুলি বন্টন করা হয়। প্রতি বৃহস্পতিবার জেলার ৮টি রেজিষ্ট্রি অফিসের অবৈধভাবে উপার্জিত টাকা ভাগাভাগি করা হয়। এ ব্যাপারে নূরুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান,তার নামে লিখলে কি হবে। আমি সামান্য পিওন পদে চাকুরী করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here