যশোর র‌্যাব-ডিবি ও পিবিআইর অভিযান,রাশেদ হত্যায় মেহেদি দপম্পতিসহ ৪ আসামি আটক

0
90

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের অভয়নগরের ধোপাদী গ্রামে একটি মাছের ঘের থেকে উদ্ধার হওয়া ইজিবাইক চালক রাশেদ হত্যায় জড়িত স্বামী-স্ত্রীসহ ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুই জনকে আটক করে পিবিআই। অপর দু’জনকে আটক করে র‌্যাব-৬ যশোরের সদস্য ও ডিবি পুলিশ। এছাড়া নিহত রাশেদের ছিনতাই হওয়া ইজিবাইকটিও উদ্ধার করেছে র‌্যাব।
এ হত্যা মিশনে অংশগ্রহণকারী প্রধান আসামি বাঘারপাড়া উপজেলার বারভাগ গ্রামের মৃত নিজাম উদ্দিন মোল­ার ছেলে মেহেদী হাসান মিলনকে মুড়লী মোড় থেকে ও তার স্ত্রী ঝিকরগাছার পারবাজার গ্রামের মজিবর রহমানের মেয়ে জান্নাত আক্তার আয়েশাকে ঝিকরগাছার কৃষ্ণনগর থেকে শনিবার আটক করে পিবিআই। একইদিন জড়িত আরেক আসামি অভয়নগর উপজেলার কোটা গ্রামের কলিম বিশ্বাসের ছেলে রিমন বিশ্বাস বাবুকে বসুন্দিয়া মোড় থেকে আটক করে ডিবি পুলিশ।
এছাড়া রবিবার সকালে যশোর সদর উপজেলার সাড়াপোল থেকে অপর আসামি মাগুরার শালিখা উপজেলার একিন মোল­ার ছেলে বেল­াল হোসেনকে নিহত রাশেদের ইজিবাইকসহ আটক করে র‌্যাব-৬ সদস্যরা।
৪ আসামিকেই রবিবার আদালতে সোপর্দ করা হলে তাদের মধ্যে দু’জন মেহেদী ও তার স্ত্রী জান্নাত আদালতে হত্যার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার দালাল তাদের জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
পিবিআই ও র‌্যাব জানায়, আসামিরা আন্তঃজেলা চোর ও ছিনতাইচক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা বিভিন্ন জেলায় প্রতিনিয়ত অপরাধ করে যাচ্ছে। তারা বিভিন্ন সময় কাজের লোক ও ফেরিওয়ালা বেশে ঘোরাফেরা করে। একইভাবে তারা রাশেদের ইজিবাইকটি ছিনতাই করতে গিয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।
এদিকে পিবিআই জানায়-আটক রিমন বিশ্বাস বাবু রাশেদের ইজিবাইক ভাড়া ঠিক করে দেয়। পরিকল্পনানুযায়ী আসামি মেহেদী ও তার স্ত্রী জান্নাত আক্তার আয়েশাকে নিয়ে রাশেদের ইজিবাইকটি রিজার্ভ করা হয়। আসামি মেহেদী হাসান মিলন ও আয়েশা রাশেদ উদ্দিনের ইজিবাইকে চড়ে প্রথমে রাজগঞ্জ ঝাঁপা বাওড় এলাকায় বেড়াতে যায়। ঝাঁপায় ভাসমান সেতুতে তারা কিছুক্ষণ ঘোরাফেরা করে। এরপর ইজিবাইক নিয়ে অভয়নগর উপজেলার ধোপাদী মশরহাটিগামী ইটের রাস্তার পাশে নির্জন স্থানে যায়। এরপর মেহেদী হাসান মিলন ইজিবাইক থামিয়ে নিজের পরনে থাকা রাবারের বেল্ট খুলে ভিকটিম রাশেদের গলায় ফাঁস দিয়ে জোরে টেনে ধরে। আয়েশা ভিকটিমের দুই পা চেপে ধরে। ভিকটিম রাশেদ উদ্দিনের শরীর নিস্তেজ হলে আসামি মেহেদী হাসান মিলন ও তার স্ত্রী আয়েশা রাশেদের লাশ ঘেরের পানির মধ্যে ফেলে দেয়। পরে ইজিবাইক রাজারহাট এলাকায় এনে আসামী মিলনের এক বন্ধুর কাছে বিক্রি করে দেয়।
এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই যশোরের এসআই ডি এম নুর জামাল হোসেন জানান, ঘটনার পর এসআই স্নেহাশীষ দাসের নেতৃত্বে একটি টিম আসামিদের আটকে অভিযান চালান। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রথমে তারা আয়েশাকে আটক করে। এরপর আয়েশা নানা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করতে থাকে। পরে তার স্বামীকেও আটক করা হয়। আটকের পর তারা হত্যার ঘটনাটি স্বীকার করে।
উলে­খ্য, গত ২ মার্চ সকালে ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালীর জসিম উদ্দিনের ছেলে রাশেদ উদ্দিন ইজিবাইক নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি। পরদিন সকালে অভয়নগর উপজেলার ধোপাদী এলাকার একটি মাছের ঘের থেকে গলায় রশি পেঁচানো অবস্থায় তার মরদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় রাশেদের বাবা অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে অভয়নগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর তার হত্যা রহস্য উন্মোচিত হলো।