যশোর শহরের আদ-দ্বীন হাসপাতালের নার্সিং ইনস্টিটিটিউটে জিন ভূত আতংক পাঁচজন অসুস্থ্য ১০ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষনা

0
792

এম আর রকি : যশোর শহরের চাঁচড়া ডালমিল আদ-দ্বীন সখিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং ইনস্টিটিউটের ছাত্রীদের মধ্যে জিন ভূত আতঙ্ক শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার রাতে ৩০ জন ছাত্রী অসুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে পাঁচজনকে রোববার সকালে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অবস্থা বিবেচনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আগামী ১০ মার্চ পর্যন্ত ওই নার্সিং ইনস্টিটিউট বন্ধ ঘোষণা করেছেন।
শিক্ষার্থীদের মাঝে জিন ভূত আতংকের বিষয়টি নিয়ে কর্তৃপক্ষ প্রথমে চরম গোপনীয়তা রক্ষা করে। পরে মুখ খুলতে বাধ্য হয়েছেন। তারা জানিয়েছে, নার্সিং ইনস্টিটিউটের দুই শিক্ষার্থীর সাইকোলজিক্যাল ইলনেসের কারণে অন্যরা ম্যাস হিস্টিরিয়ায় আক্রান্ত হন। তবে, তারা এখন সম্পূর্ন বিপদমুক্ত। যশোর শহরতলীর চাঁচড়া এলাকায় অবস্থিত বেসরকারি আদ-দ্বীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্সিং ইনস্টিটিউটে এ ঘটনা ঘটে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, ইনস্টিটিউটের দোতলার যে রুমে শিক্ষার্থীরা থাকেন, সেগুলোর একটিরও দরজা নেই। আর নিচ তলায় তাদের শেখানোর জন্যে একটি লাশ কাটা ঘর রয়েছে। এই কক্ষেরও দরজা নেই। এই কক্ষে তাদের শেখানোর জন্যে মরদেহের ব্যবচ্ছেদ করা হয়। এ কারণে কক্ষে থাকা শিক্ষার্থীরা প্রায় রাতেই ভয় পান।
শিক্ষার্থীরা আরো জানান, প্রায় ১৪ দিন আগে তাদের মধ্যে একজন রাতে প্রচন্ড ভয় পান। বিষয়টি তাদের মধ্যে ভীতির সঞ্চার করেন। পরদিন সকালে বিষয়টি তাদের হাউজ কিপারকে জানালে তিনি তাদের দোয়া পড়ে ফুঁ দিয়ে দেন। তিনি বিষয়টি বাইরে প্রকাশ করতে নিষেধ করেন।
শিক্ষার্থীরা আরো জানান, শনিবার রাত ৯ টায় তাদের মধ্যে দুজন হঠাৎ করে ‘জিন ভূত জিন’ বলে চিৎকার করতে থাকেন। একপর্যায়ে রুমে থাকা অন্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ ভীতি সঞ্চার হয় এবং একে অপরের গলা টিপে ধরেন। একপর্যায়ে ওইরুমে থাকা ২৯ জনসহ পাশের রুমের মেয়েদের মধ্যেও তা ছড়িয়ে পড়ে। ওই সময় ভয়ে অনেকের মুখ দিয়ে ফেনাও বের হয়। হুড়োহুড়িতে কয়েকজন পায়ের নিচেও চাপা পড়েন। এতে পাঁচ শিক্ষার্থীর অবস্থা খারাপ হয়ে পড়েন। পরে তাদের শহরের রেল রোডে অবস্থিত নিজস্ব চিকিৎসা কেন্দ্র হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শিক্ষার্থীরা জানান, এসব বিষয় যাতে বাইরে না বলা হয়, তার জন্য হাউজ কিপার তাদের অনেকের মোবাইল ফোন সেট সিজ করে নেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাসপাতালের অধ্যক্ষ ডা. খান শাকিল আহম্মেদ সাংবাদিকদের বলেন, নার্সিং ইনস্টিটিউটে বিভিন্ন বর্ষের মোট ১৯০ ছাত্রী রয়েছে। এদের মধ্যে দুটি মেয়ের সাইকোলজিক্যাল সমস্যা রয়েছে। এদের অবস্থা মাইনর এবং মেজরের মাঝামাঝি। তারা প্রায়ই এ ধরনের আচরণ করে ও অপ্রকৃতিস্থ হয়ে পড়ে। বিষয়টির ব্যাপারে হাউজকিপার তাকে কখনো জানাননি। শনিবার রাতে এ বিষয়টি অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে ইনস্টিটিউটের পাঁচটি কক্ষের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তাদের মধ্যে পাঁচজনকে আমাদের নিজস্ব হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তারা এখন আশঙ্কামুক্ত। তিনি বলেন, রোববার সকালে তিনি তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাদের চাহিদা অনুযায়ী ভবনের কিছু কাজ সংস্কার করার ব্যবস্থা নিয়েছি। সে কারণে আগামী ১০ মার্চ পর্যন্ত নার্সিং ইনস্টিটিউট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মেয়েরা হল ত্যাগ করেছে। আগামী ১১ মার্চ আবার শিক্ষার্থীরা তাদের কার্যক্রম শুরু করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here