যশোর শহরের আশ্রম মোড় রেলরোড এলাকায় সন্ধ্যা নামলেই বাড়ছে অপরাধ প্রবনতা

0
336

এক শিক্ষার্থী ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ খোঁজ নেয়নি
এম আর রকি : সন্ধ্যা নামলে যশোর শহরের আশ্রম মোড় রেলরোড এলাকায় ছিনতাইকারীদের পদচারনা জন সাধারণ চরম ভীতির মধ্যে অতিবাহিত করছে। গত ১০ ডিসেম্বর সন্ধ্যারাতে আশ্রম মোড় রেলরোড ডিজিটাল ছাত্র মেসের সামনে এক শিক্ষার্থীকে অজ্ঞাতনামা ছিনতাইকারীরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। ওই এলাকায় সন্ধ্যা নামলেই বিভিন্ন ছাত্রাবাস,ছাত্রী নিবাস,স্থানীয় বাসিন্দা ও ভাড়াটিয়ারা চরম আতংকের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। তাছাড়া, ছুরিকাঘাতের ঘটনা থানায় অভিযোগ দায়ের করলে ১১ দিনেও পুলিশ খোঁজ নেয়নি অভিযোগকারী যুবককে। পুলিশের এহেন কর্মকান্ডের কারণে পুলিশের যথা সেবা নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন?



স্থানীয় লোকজন ও ভাড়াটিয়ারা জানিয়েছেন,শহরের রেলরোডস্থ আশ্রম মোড় এলাকায় অনেক দিন ছিনতাই মুক্তর পর হঠাৎ করে ছিনতাইকারীরা সংঘবদ্ধ হচ্ছে। তারা দিনের পাশাপাশি সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে ছিনতাইয়ের কাজে নেমে পড়ছেন। রীতিমত পুলিশের টহলের অভাবে ছিনতাইকারীরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
সূত্রগুলো বলেছে,ছিনতাইকারীরা ওই এলাকার ছাত্রা ও ছাত্রী নিবাসের পাশাপাশি ভাড়াটিয়াদের টার্গেট করছে। ছিনতাইকারীরা সন্ধ্যা নামলেই তাদের টার্গেট ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ছাত্রাবাস,ছাত্রীনিবাস,ভাড়াটিয়াদের পিছু নিচ্ছে। ছিনতাইকারীরা সংখ্যায় ২ থেকে ৪ জন এহেন কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের টহলের অভাবে দিন দিন ওই এলাকায় ছিনতাইয়ের ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে।
যশোর বাঘারপাড়া উপজেলার ধলগ্রামের বাসিন্দা বর্তমানে আশ্রম মোড় রেলরোড ডিজিটাল ছাত্র মেসে থাকেন সুভাষ বিশ্বাসে ছেলে সন্দিপ বিশ্বাস। তিনি গত ১০ ডিসেম্বর সন্ধ্যা আনুমানিক ৬ টায় সন্দিপ বিশ্বাস ডিজিটাল ছাত্রাবাসের পিছনে মোবাইল ফোনে কথা বলার সময় হঠাৎ অজ্ঞাতনামা ২/৩জন ছিনতাইকারী তার পেটে চাকু ঠেকিয়ে তার কাছ থেকে স্যামসাং মোবাইল ফোন সেট মূল্য ১২ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা কালে সন্দিপ বিশ্বাস চিৎকার দেয়। সাথে সাথে ছিতাইকারীদের মধ্যে একজন সন্দিপ বিশ্বাসের শরীরের পিছনের অংশে ধারালো চাকু দিয়ে স্বজোরে আঘাত করে। সন্দিপ বিশ্বাস ছিনতাইকারীকে দ্রুত ধাক্কা মেরে দৌড়ে উক্ত ছাত্রাবাসের মধ্যে প্রবেশ করে। পরিস্থিতি বেগতিক হওয়ার পূর্বে ছিনতাইকারীরা দ্রুত পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহন করে। সেখান থেকে সন্দিপ বিশ্বাস ছাত্রাবাসে শয্যাশায়ী থেকে মেসের অপর ছাত্র সুব্রত পালের মাধ্যমে কোতয়ালি মডেল থানায় পরের দিন ১১ ডিসেম্বর অভিযোগ দায়ের করেন। কোতয়ালি মডেল থানায় ১১ ডিসেম্বর কর্মরত এসআই সন্দিপ বিশ্বাসের টাইপকৃত অভিযোগ নামা গ্রহন করেন। অথচ গতকাল ২০ ডিসেম্বর ১১ দিন অতিবাহিত হলেও থানায় দায়েরকৃত অভিযোগের কোন হদিস নাই। পুলিশের দায়িত্বহীনতার কারণে যশোর শহরে ছিনতাইসহ নানা অপরাধের ঘটনা আশংকা জনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। পুলিশের এহেন কর্মকান্ডে আশ্রম মোড় রেলরোডস্থ এলাকার বাসিন্দারা হতবাক হয়ে পড়েছেন। তারা অবিলম্বে ছিনতাইকারী প্রতিরোধে পুলিশের তড়িৎ পদক্ষেপ দাবি করে পুলিশ সুপারসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here