যশোর শহরের খড়কী পীরপাড়ায় সামান্য ঘটনায় যুবক খুন দু’জন গুরুতর ঘটনায় মামলা,নারীসহ আটক ১০

0
559

বিশেষ প্রতিনিধি : সামান্য ঘটনায় শহরের খড়কী পীরপাড়া এলাকায় বুধবার সন্ধ্যারাতে ছুরিকাঘাত ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আল আমিন (২৭) খুন হয়েছে। এসময় ছোট আল আমিন (২৪) ও সাহেব আলী (৪৪) নামে দু’জন গুরুতর জখম হয়েছে। এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ১৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮জন উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত আল আমিন যশোর শহরের খড়কী পীরপাড়া এলাকার আলমগীর হোসেনের ছেলে। কোতয়ালি মডেল থানার মামলা নং ০৪ তারিখঃ ০২/০৪/২০ ইং। এঘটনায় পুলিশ ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে। এরা হচ্ছে, খড়কীপীরবাড়ি এলাকার মজু খানের মেয়ে নাছরিন সুলতানা তুলি, সিদ্দিক হোসেরে ছেলে পিকুল হোসেন, সোবহানের ছেলে মিন্টু, মন্টু, সিদ্দিক আলীর ছেলে মুকুল, বিপুল, বাবুর ছেলে শিমুল, মিন্টুর ছেলে ইমন, সদর উদ্দিনের ছেলে টুটুল ও রহমত আলীর ছেলে সিদ্দিক।
আলমগীর হোসেন কোতয়ালি মডেল থানায় দায়ের কৃত এজাহারে বলেছেন তিনি বিএটিবি কোম্পানীতে সিকিউরিটি গার্ডে চাকুরী করে। দায়েরকৃত এজাহারে আসামী করেছেন, শহরের খড়কী পীরপাড়ার সোবহানের ছেলে জামাল হোসেন, মজু খানের ছেলে অনু, মিন্টুর ছেলে হিরা, ইমন,মজু খানের মেয়ে ও বাপ্পার স্ত্রী নাছরিন সুলতানা তুলি, বাবলুর ছেলে বাপ্পা, সিদ্দিক আলীর ছেলে বিপুল,মুকুল,মৃত বাবুর ছেলে শিমুল,মৃত সদর উদ্দিনের ছেলে টুটুল,মৃত রহমত আলীর ছেলে সিদ্দিক আলী, অনুর ছেলে অমিত, সোবহানের ছেলে পিন্টু,মন্টুর ও মিন্টু,সিদ্দিক হোসেনের ছেলে পিকুল হোসেন,পিন্টুর ছেলে পিয়াস,মনজুর ছেলে রনি ও জুয়েলসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮জন।
তিনি দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন,তার বড় ছেলে আল আমিনের বন্ধু শামীম বুধবার বিকেল ৪ টায় নাছরিন সুলতানা তুলির বাড়ির সামনে দিয়ে মোটর সাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় শামীমকে দাঁড় করায়। উক্ত শামীমকে গালিগালাজসহ মোটর সাইকেল লাথি মেরে শামীমকে শাসিয়ে জানায় এই পথ দিয়ে চলাফেরা করবি না। এই ঘটনার জের ধরে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় বড় ছেলে আল আমিন,তার বন্ধু শামীম,ছোট আল আমিন প্রতিবেশী জলিল ও আলমগীর হোসেনের ভাইরা ভাই সাহেব আলী খড়কী পীরপাড়া জনৈক লুৎফর রহমানের চা ও মুদী দোকানের সামনে অবস্থানকালে হঠাৎ নাছরিন সুলতানা তুলির হুকুমে উক্ত আসামীরা আল আমিনসহ অন্যান্যদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। আল আমিন, ছোট আল আমিন ও সাহেব আলীকে জাপটে ধরে ছুরিকাঘাত করে। অন্যান্যদের মারপিট করে হুমকী দিয়ে আসামীরা চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় আল আমিন,ছোট আল আমিন ও সাহেব আলীকে সন্ধ্যারাতে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। বড় আল আমিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে চিকিৎসকগন খুলনা মেডিকেল কলেজে রেফার্ড করে। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর জরুরী বিভাগের চিকিৎসক আল আমিনকে মৃত বলে ঘোষনা করে। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত নাছরিন সুলতানা তুলিসহ ৬/৭ জনকে গ্রেফতার করেছে বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মিলন কুমার মন্ডল জানিয়েছেন। তাবে তাদের নাম বলা যাবেনা বলে তদন্ত কর্মকর্তা মিলন কুমার মন্ডল জানান তিনি খুব ব্যস্ত রয়েছেন। গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরনের প্রস্তুতি গ্রহন করা হচ্ছে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত।