যশোর শহরের পুরাতন কসবা নিরিবিলি এলাকায় এক যুবককে কৌশলে ডেকে আটকে রেখে চাঁদাদাবি দুই চাঁদাবাজ গ্রেফতার

0
440

বিশেষ প্রতিনিধি : মোবাইলের মাধ্যমে মাত্র ৬ মাস পরিচয়ের সূত্র ধরে যশোর জজ কোটের পিয়ন মাসুম বিল্লাল (৩০) কে ডেকে নিয়ে একটি বাসায় আটকে রেখে চাঁদা সরুপ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে মারপিট করে মোবাইল কেড়ে নেওয়ার অভিযোগে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ দুই চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে। এরা হচ্ছে, যশোর শহরের পুরাতন কসবা নিরিবিলি এলাকার মৃত কাজী আব্দুস সাত্তার দুলালের ছেলে কাজী সাজ্জাদ জহির তিতু ও ইউনুচ শেখের ছেলে জুয়েল শেখকে গ্রেফতার করেছে। ঘঁনাটি যশোর শহরের পুরাতন কসবা নিরিবিলি এলাকার ৩ নং আসামী কাজী হাসান নাছির মিতুর বসত বাড়িতে।
যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ভরতপুর গ্রামের বর্তমানে যশোর শহরের ঘোপ সেন্ট্রাল রোডের জনৈক রাজেক আহমেদ এর বাড়ির ভাড়াটিয়া শওকত আলীর ছেলে মাসুম বিল্লাল বৃহস্পতিবার রাতে কোতয়ালি মডেল থানায় এক নারীসহ ৫ জনকে আসামী করে এজাহার দায়ের করেছেন। আসামীরা হচ্ছে, শহরের পুরাতন কসবা নিরিবিলি এলাকার মৃত কাজী আব্দুস সাত্তার দুলালের ছেলে কাজী সাজ্জাদ জহির তিতু,কাজী হাসান বছির ঋতু,কাজী হাসান নাছির মিতু,একই এলাকার ইউনুচ শেখের ছেলে জুয়েল শেখ ও শহরতলী নীলগঞ্জের আব্দুর রহমানের মেয়ে মোছাঃ মিনাসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন।
মাসুম বিল্লাল তার দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, বিগত ৬ মাস পূর্বে মোছাঃ মিনার সাথে তার পরিচয় ঘটে। পরিচয়ের সূত্র ধরে মাঝে মধ্যে তার সাথে কথা বার্তা ও দেকা সাক্ষাত হতো। বৃহস্পতিবার ১৪ মে দুপুর ১২ টায় মিনা খাতুন তার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তাকে ডেকে দেখা করতে বলে। শহরের পুরাতন কসবা নিরিবিলি এলাকার কাজী হাসান নাছির মিতুর বাড়িতে দেখা করতে বলে। দুপুর ১ টায় উক্ত বাড়িতে পৌছালে সেখানে অন্যান্য আসামীরা মাসুম বিল্লালকে একটি কক্ষে আটকে রেখে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদাদাবি করে। চাঁদার টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে মারপিট করে। এ সময় চাঁদাবাজরা তার স্ত্রী পারভীনাকে মাসুম বিল্লালের নাম্বার থেকে ফোন করে চাঁদার টাকা দিতে বলে। কাজী হাসান নাছির মিতু ৩১ শ’ টাকা মোবাইল চাঁদা সরুপ কেড়ে নেয়। বিষয়টি পারভীনা কোতয়ালি মডেল থানা পুুলিশকে জানায়। কোতয়ালি মডেল থানার এসআই কামাল হোসেনসহ একদল পুলিশ বিকেল সোয়া ৪ টায় উক্ত বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মাসুম বিল্লালকে উদ্ধার করে। এ সময় চাঁদা দাবির অভিযোগে কাজী সাজ্জাদ জহির তিতু ও জুয়েল শেখকে গ্রেফতার করে। বাকী চাঁদাবাজ দৌড়ে পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃত কাজী সাজ্জাদ জহির তিতু ও জুয়েল শেখকে শুক্রবার ১৫ মে আদালতে সোপর্দ করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই কামাল হোসেন ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানান।