যশোর শহরের প্রবেশ দ্বার গুলোতে নেই কোন ট্রাফিকিং ব্যবস্থা

0
444

যত্রতত্র গাড়ি চলাচল পার্কিং আর দখলদারিত্বের কারণে নিত্য-নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে সড়ক দূর্ঘটনা

ডি এইচ দিলসান : ব্যস্ত ও গুরুত্বপূর্ণ হলেও যশোর শহরের নূতন খয়েরতলা ভাস্কর্য মোড়, চাচড়া মোড়, মুড়লি মোড়, নিউ মার্কেটসহ যশোরের প্রবেশ দ্বার গুলোতে নেই কোন ট্রাফিকিং ব্যবস্থা। তবে যখন কোন ভিআইপি, সিঅঅইপি ও রাজনৈতিক নেতারা আসেন তখন সেই রুটে বসানো হয় ট্রাফিকিং ব্যবস্থা, শেষ হলেই তাদেও ডিউটিও শেষ। যে কারণে যত্রতত্র গাড়ি চলাচল আর সে কারণে সড়ক দূর্ঘটনা এখানকার নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা এর শিকার হচ্ছে আশংকাজনক হারে। তার উপর অবৈধ নসিমন-করিমন চলাচলের পাশাপাশি ভাঙ্গা রাস্তা এ পরিস্থিতিকে আরো দুর্বিসহ করে তুলেছে। অথচ এ ব্যাপারে কোন মাথাব্যথা নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। লোকবল সংকটের দোহাই দিয়ে বরাবরই বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে ট্রাফিক বিভাগ।
এ ব্যাপারে যশোরের টি আই সার্জেন্ট সাখাওয়াত বলেন, অফিসার কম থাকলে পালবাড়িসহ গুরুত্ব পূর্ণ মোড় গুলোতে আমরা ট্রাফিকিং ব্যবস্থা রাখতে পারি না, তবে তিনি বলেন সাফিসার বেশি থাকলে ট্রাফিকিং ব্যবস্থা সচল থাকে। তিনি দাবি করেন যশোরের মনিহার ও মুড়লি মোড়ে সব সময় ট্রাফিকিং ব্যবস্থা সচল থাকে অন্য মোড় গুলোতে সব সময় চালু রাখা সম্ভব হয় না। যদিও বাস্তবে মনিহার এলাকা ছাড়া অন্য কোথাও নিয়মিত ট্রাফিকিং ব্যবস্থা চালু থাকতে দেখা যায়না। যতটুকু থাকে তাউ প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম।
সূত্রমতে, উত্তরবঙ্গের যেকোন জেলা থেকে যশোর শহরে প্রবেশের মূল রুট হচ্ছে নূতন খয়েরতলা স্বাধীনতা ভাস্কর্য মোড়। অনুরূপভাবে যশোর-বেনাপোল সড়কের প্রবেশমুখ হওয়ায় বৃহত্তম স্থল বন্দর বেনাপোল হয়ে দেশের অভ্যন্তরে আমদানি-রপ্তানীকৃত পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রেও সবচেয়ে বেশী ব্যবহৃত হয় এ মোড়টি। ফলে সমসাময়িক সময়ে শহরের অন্যতম ব্যস্ত ও গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে পরিণত হয়েছে এটি। আর এসকল কারণে মোড়টি দিয়ে প্রতিদিন অন্তত দু’সহস্রাধিক বিভিন্ন রুটের পরিবহন, ট্রাক ও পিকআপ চলাচল করে। এছাড়া মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল, ইজিবাইক, নসিমন-করিমনের মত ছোট যানতো রয়েছেই। যা এ মোড়ের ব্যস্ততাকে আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।
সরেজমিনে দেখা গেছে, সকাল থেকে রাত অবধি যান চলাচলের এ ব্যস্ততা। স্বল্প স্থানের এ মোড়ে দু’রুটের ইজিবাইক স্ট্যান্ড ও মোড় সংলগ্ন এতদাঞ্চলের অন্যতম কাঁচাবাজার স্থাপিত হওয়ায় অধিকাংশ সময় এই ব্যস্ততাই পরিণত হচ্ছে মারাতœক যানযটে। যার খেসারত গুণতে হচ্ছে সাধারণ পথচারীসহ ছোট যানগুলোর চালক ও যাত্রীদের। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের। যান চলাচলের ব্যস্ততা আর যানযটের কারণে এখানে প্রতিনিয়তই ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা। গত ১০ ডিসেম্বর ট্রাকের ধাক্কায় এক মোটর সাইকেল আরোহী আহত হন এখানে। এর দু’দিন আগে যশোরগামী একটি পরিবহনের ধাক্কায় জখম হন নান্নু নামের জনৈক সাইকেলআরোহী। ২০ ডিসেম্বর ট্রাকের চাপায় দু’রিকশারোহী ও চালক গুরুতর আহত হয়। আগস্ট মাসে এ মোড়ে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত এক পথচারী পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। চলতি বছরে সড়ক দূর্ঘটনায় এখানে সেনাবাহিনীর এক সদস্য ও এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে। এছাড়াও প্রতিনিয়তই এ মোড়ে ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা। যা নিয়ন্ত্রণে এখানে গত দেড় বছরেও নিয়োগ করা হয়নি কোন ট্রাফিক সদস্য।
খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, স্বাধীনতা ভাস্কর্য মোড় সংলগ্ন এলাকাগুলো শহরের অন্যতম আবাসিক এলাকা হিসেবে পরিচিত। বিশেষ করে যশোর সেনানিবাস সংলগ্ন হওয়ায় এ এলাকাগুলোতে গড়ে উঠেছে ঘনবসতি। যার বাসিন্দাদের বাজার-ঘাটসহ চলাচলের একমাত্র কেন্দ্রবিন্দু এ সড়ক। যে কারণে প্রাত্যহিক কাজ সমাধানে এ মোড়টিকে বিকল্প হিসেবে ব্যবহারের ন্যুনতম সুযোগও নেই কারো। স্বাভাবিকভাবেই যান চলাচলের পাশাপাশি পথচারীদের কারণে সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে আরো ব্যস্ত হয়ে উঠেছে এ মোড়টি।
স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, মোড়ে দু’টি ইজিবাইক স্ট্যান্ড থাকায় দখল হয়ে গেছে মূল সড়কের পার্শ্ববর্তী সড়ক ও জনপথের জায়গা। যদিও তরকারি বাজার উঠিয়ে দেওয়ায় কিছুটা ফাকা হলেও মোড় দিয়ে চলাচলকারী ঝিনাইদহ জেলাসহ উত্তরবঙ্গের সকল জেলার যাত্রীবাহি বাসগুলোর চালকদের যাত্রী ওঠা-নামানোর জন্য দাঁড়াতে হয় মূল সড়কের উপরই। একই অবস্থা চুড়ামনকাটি রুটের ইজিবাইকগুলোর। জায়গা না থাকায় ওই রুটে চলাচলকারী অন্তত দেড় ডজন ইজিবাইক সর্বদাই অবস্থান নেয় মূল সড়কে। যে কারণে সর্বদাই মাত্র দশ-এগারো ফুটের এ সড়কটির অর্ধেকের বেশীরভাগ অংশ ইজিবাইক ও বাস-ট্রাকের দখলে থাকে। এতে অন্যান্য যান চলাচলে মারাতœক বিঘœ ঘটে। তারা অভিযোগ করেছেন, মূলত ট্রাফিকিং ব্যবস্থা না থাকা আর মূল সড়ক বিভিন্ন যানের কারণে দখলে চলে যাওয়ায় ঘটছে এসব দুর্ঘটনা। অন্যদিকে মুড়লি মোড় দিয়ে ঢাকা খুলনার মধ্যে যাত্রিবাগী ও পন্যবাহী গাড়ি চলাচল করে, সেখানেও ইজিবাই আর লোকাল বাসের দেীরাত্যে নাজুক অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।
এ ব্যাপারে যশোরের টি আই সার্জেন্ট সাখাওয়াত আরে বলেন, ইচ্ছা থাকলেও লোকবল সংকটের কারণে যশোরের প্রবেশ দ্বার গুলোতে ট্রাফিক সদস্য নিয়োগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তিনি বলেন বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এরপর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে ডেপুটেশনে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এ সেক্টরে। কিন্তু সেটা চাহিদানুযায়ী না হওয়ায় এখনও গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি স্থানে ট্রাফিক সদস্য নিয়োগ দেয়া সম্ভব হয়নি বলে তিনি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here