যশোর শহরের বকচর হুশতলায় গুলিবর্ষন ও হামলার ঘটনায় চোর বিল্লালসহ ৪ সন্ত্রাসীর নামে থানায় মামলা

0
444

বিশেষ প্রতিনিধি : শহরের বকচর হুশতলা চক্ষু হসপিটালের দক্ষিনে কপোতাক্ষ আবাসিক প্রকল্প গেটের কামরুলের চায়ের দোকানের সামনে ইমাদাদুল হক ( ইমাদুল) ও মিন্টু গাজীকের গুলি বর্ষন করে হত্যার ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় শুক্রবার ৮ মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটি দায়ের করেন ইমদাদুল হক (ইমাদুল) এর ভাই বকচর হুশতলার মুক্তিযোদ্ধা মৃত শেখ আলাউদ্দিনের ছেলে শেখ রেজাউল করিম। মামলায় চোর বিল্লালসহ ৪ সন্ত্রাসীর নাম উল্লেখ এবং অপ্সাতনামা ৪/৫জনকে আসামী করেছেন। আসামীরা হচ্ছে,বকচর হুশতলা তানিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া মৃত ইসমাইলের ছেলে বিল্লাল, একই এলাকার মৃত নুরুল ইসলাম পাটোয়ারী (নুরু ড্রাইভার) এর ছেলে লিটন পাটোয়ারী,নজরুল ইসলাম ওরফে বাবলু পাটোয়ারী,সাইফুল পাটোয়ারী।
বাদি তার এজাহারে উল্লেখ করেছেন, আসামীরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মাদক,ইয়াবা ও চোরাই গাড়ী ক্রয় বিক্রয়ের সিন্ডিকেটের সক্রিয় সদস্য। মিন্টু গাজীর নেতৃত্বে সকল আসামীরা স্থানীয় প্রভাবশালীদের প্রভাবে বিভিন্ন অপরাধ মূলক কার্যকলাপ করে বেড়ায়। আসামীরা হুশতলা মাঠপাড়া মেহগুনী বাগানে জোয়ার আসর পরিচালনা করে। একের পর এক আসামীদের অপরাধের কারণে এলাকার লোকজন ও ছোট ভাই ইমদাদুল হক ( ইমাদুল) বাধা নিষেধ করায় আসামীদের সাথে শত্রুতা সৃষ্টি হয়। আসামীরা ইমাদুলকে হত্যার পরিকল্পনা করে সুযোগ খুজতে থাকে। গত ৪ মে বিকেলে ইমাদুল হুশতলা মোড় হকে পায়ে হেটে তার বাড়িতে ফেরার সময় বিকেল সোয়া ৪ টায় উল্লেখিত স্থানে পৌছালে পূর্ব হতে ওৎ পেতে থাকা সকল আসামীরা পিস্তল ও মারাত্মক অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে ইমাদুলকে পথের গতিরোধ করে। আসামীদের মধ্যে নজরুল ইসলাম ওরফে বাবলু পাটোয়ারী ইমাদুলকে জাপটে ধরে বিল্লাল কোমর হতে পিস্তল বের করে ইমাদুলকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি করে। গুলি ইমাদুল হকের হাতের তালা ভেদ করে বের হয়ে যায়। মিন্টু গাজী ঠেকানোর চেষ্টা করলে বিল্লাল ইমাদুল হককে গুলি বর্ষন করলে গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে মিন্টু গাজীর পেটে লেগে গুরুতর আহত হয়। আসামীরা ইমাদুল হককে লাঠি সোটা দিয়ে মারপিট করে। এসময় ইমাদুলের চিৎকারে অন্যান্য লোকজন এগিয়ে আসলে আসামীরা প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় ইমাদুল হককে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।