যশোর শহরের লাল দিঘীর পাড়ে এক ব্যবসায়ীর সাড়ে ৬ লাখ টাকা ছিনতাই ঘটনা পুলিশ গোপন করার খবর ফাঁস

0
448

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর শহরের লাল দিঘীর পাড় থেকে এক ব্যবসায়ীর সাড়ে ৬লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা স্বীকার করলেও থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়নি এটা পুলিশ দাবি করেছে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ খোদ শহরের মধ্যে ছিনতাইয়ের ঘটনা এড়িয়ে অপরাধ ঘটনা লুকাতে চাচ্ছে। তাহলে কি পুলিশ অপরাধ মূলক কর্মকান্ড গোপন করে নিজেদের দায়ভার এড়াতে চাচ্ছে নাকি এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে যশোরে কর্মরত সংবাদি কর্মিদের মধ্যে।
যশোর শহরের লাল দিঘীর পাড় থেকে এক ব্যবসায়ীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে একটি ছিনতাইকারী চক্র তার কাছে থাকা নগদ সাড়ে ৬লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ জেনেও না জানার ভান করে। বৃহস্পতিবার বিকেলে সাংবাদিকগন কোতয়ালি মডেল থানার ডিউটি অফিসা নূর ইসলামের ছিনতাইয়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান,তিনি শুনেছেন ২/৩ তিন পূর্বে শহরের লাল দিঘীর পাড়ে এক ব্যবসায়ীর সাড়ে ৬লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। তবে যার কাছ থেকে টাকা নিয়ে গেছে তিনি থানায় মৌখিকভাবে জানিয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন। তিনি আরো জানান, ছিনতাইয়ের ঘটনার পর লাল দিঘীর পাড় এলাকা পুলিশ বিচারণ করছে ওই চক্রটিকে ধরার জন্য। সাংবাদিকগন তার কাছে লিখিত কোন অভিযোগ জমা আছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করে বলেন কোন লিখিত অভিযোগ দেননি ছিনতাই হওয়া ব্যক্তিটি। সম্প্রতি কোতয়ালি মডেল থানায় অফিসার ইনচার্জ হিসেবে মোঃ মনিরুজ্জামান যোগদান করার পর সাংবাদিকদের মধ্যে তথ্য লেনদেন এক পর্যায় বন্ধ করে দেন। তিনি থানায় জমাকৃত অপরাধের সংবাদ গুলি গোপন শুরু করেন। সাংবাদিকগন অপরাধমূলক কর্মকান্ডর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে গিয়ে বলেন পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত,অপারেশন্স ও কমিউনিটি এন্ড পুলিশিং কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে সংবাদ নিবেন। অথচ যোগদানের পর থেকে তিনি সাংবাদিকদের কাছে অপরাধমূলক খবর না জানিয়ে একেবারে চেপে যান। যার ফলে অপরাধীরা পুলিশের এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অবাধে অপরাধ মূলক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। পুলিশের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছে,মাসিক মিটিংয়ে অপরাধ মূলক কর্মকান্ডর জবাব দিতে থানার অফিসার ইনচার্জ এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করে চলেছেন। তিনি থানার ডিউটি অফিসার থেকে শুরু করে সকলকে জানিয়েছেন,সাংবাদিকদের কোন তথ্য প্রদান থানা থেকে করা যাবে না। বিধায় অপরাধীদের পক্ষে বর্তমানে কোতয়ালি পুলিশ অবস্থান নিয়েছেন বলে সাংবাদিকসহ যশোরের বিভিন্ন পেশার মানুষ ধারণা করছেন। তাই অবিলম্বে বিষয়টি দেখার জন্য পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here