যশোর শিক্ষাবোর্ডের পাঁচ কোটি টাকা লোপাট : দুই এমপির ডিও লেটারের পরও বহাল তবিয়তে চেয়ারম্যান-সচিব

0
47

নিজস্ব প্রতিবেদক : চেক জালিয়াতি করে যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডে থেকে পাঁচ কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান, সচিবসহ পাঁচজনের নামে মামলা করেছে দুদক। এই মামলায় প্রভাবমুক্ত তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্তদের অপসারণে শিক্ষামন্ত্রীকে যশোরের দুই সংসদ সদস্য ডিও লেটার দিয়েছেন। কিন্তু ঘটনার দুই সপ্তাহ পার হলেও অভিযুক্তরা এখনো রয়েছেন বহাল তবিয়বে।

বোর্ড কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আশঙ্কা, অভিযুক্ত শীর্ষ কর্মকর্তাদের স্বপদে রেখে সঠিক তদন্ত করা সম্ভব হবে না। তারা নিজেরা বাঁচতে প্রভাবিত করে মামলাটি ভিন্নখাতে নিতে কাজ করবেন। ইতিমধ্যে অভিযুক্তরা সাদা কাগজে জোর করে অনেকের স্বাক্ষর নিয়েছেন। এনিয়ে কথা বলতেও তাদের নিষেধ করা হয়েছে।

এদিকে, যশোর শিক্ষাবোর্ডের কোটি কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে বোর্ড চেয়ারম্যান মোল্লা আমির হোসেনসহ অভিযুক্তদের বোর্ডের স্ব স্ব পদ থেকে অপসারণ চেয়েছেন যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) নাসির উদ্দিন ও যশোর-৬ আসনের সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার। গত ২৫ আগস্ট তারা শিক্ষামন্ত্রীর কাছে এজন্য ডিও লেটার দেন। কিন্তু এখনো মন্ত্রণালয় থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

বোর্ডের একাধিক সূত্র বলছে, স্ব পদে বহাল থেকে চেয়ারম্যান মোল্লা আমির হোসেন দুর্নীতির এই ঘটনার তদন্তে প্রভাবিত করছেন। ঘটনার পর যশোর শিক্ষা থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু সেই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন এখনো জমা দেয়া হয়নি। চেয়ারম্যানের অধিনে যারা চাকরি করেন তাদের পক্ষে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া কঠিন। এজন্যই একাধিকবার সময় বাড়িয়েও কমিটি এখনো তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়নি।

তবে তদন্ত কমিটির প্রধান যশোর শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক কেএম রব্বানী বলছেন, ‘তদন্ত শেষ। আমরা দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছি। চলতি সপ্তাহে আমরা প্রতিবেদন জমা দিবো।’

শুধু তাই নয়, দুদক মামলা করলেও এখনো তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ হয়নি। ফলে বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মনে ঘুরপাক খাচ্ছে নানা কথা। তারা আশংকা করছেন বোর্ড চেয়ারম্যান তদবির করে তদন্ত কার্যক্রম প্রভাবিত করতে পারেন।

জানতে চাইলে দুর্নীতি দমন কমিমশনের যশোর কার্যালয়ের উপপরিচালক নাজমুচ্ছায়াদাত বলেন, ‘বোর্ডের দুর্নীতির মামলার ফাইল দুদকের প্রধান কার্যালয়ে পৌঁছে গেছে। সেখান থেকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হবে। আশা করছি চলতি মাসের মধ্যে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ হবে।’

জানা যায়, গত ৭ অক্টোবর আত্মসাতের প্রথম ঘটনাটি ধরা পড়ে। ওইদিন ধরা পড়া ৯টি চেক জালিয়াতি করে দুই কোটি ৫০ লাখ ৪৪ হাজার ১০ টাকা তুলে নেয়ার তথ্য সামনে আসে। ১৮ অক্টোবর দুদকের সমন্বিত যশোর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মাহফুজ ইকবাল এ বিষয়ে শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোল্লা আমীর হোসেন, সচিব অধ্যাপক এএম এইচ আলী আর রেজা, হিসাব সহকারী আবদুস সালাম, প্রতারক প্রতিষ্ঠান ভেনাস প্রিন্টিং এন্ড প্যাকেজিংয়ের মালিক শরিফুল ইসলাম বাবু ও শাহীলাল স্টোরের মালিক আশরাফুল আলমের নামে মামলা করেন। এরপর ২১ অক্টোবর ধরা পড়ে আরো আড়াই কোটি টাকার জালিয়াতি।

সবমিলে ২৬টি চেকে বোর্ডের পাঁচ কোটি টাকা আর্থিক কেলেঙ্কারির ঘটনা সারাদেশে সমালোচনার ঝড় ওঠে। কিন্তু এতো বড় দুর্নীতির অভিযোগের পরও বহাল তবিয়বে রয়েছেন বোর্ড চেয়ারম্যান, সচিবসহ অভিযুক্তরা।
শিক্ষা বোর্ডের কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবলু অভিযোগ করেন, দুই সংসদ সদস্য ডিও লেটার দিলেও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এখন তিনি দুর্নীতির মামলার আসামি হয়েও স্বপদে রয়েছেন। ফলে সঠিক তদন্ত হবে কিনা সন্দেহ রয়েছে। আর বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও তার অনিয়মের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন।
সুত্র : প্রতিদিনের কথা