যশোর শিক্ষাবোর্ড মডেল, কালেক্টরেট ও পুলিশ লাইন স্কুলে অনলাইন ভর্তি যুদ্ধ লটারিতে

0
256


নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর শিক্ষাবোর্ড মডেল স্কুল, কালেক্টরেট ও পুলিশ লাইন স্কুলে লটারির মাধ্যমে শুরু হয়েছে অনলাইন ভর্তি যুদ্ধ। এসব নামিদামি স্কুলসহ মোট সাতটি স্কুলে ১ হাজার ৬শ ২৬ আসনের বিপরীতে আবেদন পড়েছে ৫ হাজার । গত ১৫ ডিসেম্বর থেকে শুরু করা হয় আবেদন কার্যক্রম। যশোর শিক্ষা বোর্ড সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ , পুলিশ লাইন ও কালেক্টরেট স্কুলে ভর্তির আবেদন নেয়া হয় অনলাইনে। বাকি স্কুলগুলো ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভর্তি কার্যক্রম চালাচ্ছে।

যশোর শিক্ষা বোর্ড সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজে তৃতীয়, ষষ্ঠ ও নবম শ্রেণিতে ১৫০ আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ১ হাজার ৬৩০ শিক্ষার্থী।

কালেক্টরেট স্কুলে তৃতীয় শ্রেণিতে ১০০ আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ১ হাজার ১শ শিক্ষার্থী। এ স্কুলে আবেদনের শেষ সময় ৩১ ডিসেম্বর। অধ্যক্ষ মোদাচ্ছের হোসেন জানান ১শ আসনের বিপরীতে বাইরে থেকে নেয়া হবে ৮৫জন শিক্ষার্থী। আর কালেক্টরেট কোটায় ১৫ জনকে ভর্তি নেয়া হবে।

যশোর পুলিশ লাইন স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১০ আসনের বিপরীতে ৮৯৬টি আবেদন ও ষষ্ঠ শ্রেণিতে ২৫ আসনের বিপরীতে আবেদন পড়েছে ৫৫৬ আবেদন। এ স্কুলে অন্যান্য ক্লাসে অটোপাস শিক্ষার্থীসহ জেলা পুলিশ সদস্যের ছেলে মেয়ে ভর্তি করা হবে। এ স্কুলে লটারি কার্যক্রম ইতোমধ্যে শেষ করা হয়েছে বলে জানান প্রধান শিক্ষক মনতোষ কুমার নন্দি।

এমএসটিপি গালর্স স্কুল এন্ড কলেজের তৃতীয় শ্রেণিতে ১২০ আসনের বিপরীতে ১৫০ আবেদন, ষষ্ঠ শ্রেণিতে ২৪০ আসনের বিপরীতে ৩শ আবেদন। নিউটাউন বালিকা বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণিতে ৪৮০ আসনের বিপরীতে ২৫০ আবেদন। সম্মিলনী ইন্সটিটিউশনে ২০০ আসনের বিপরীতে ৪০ আবেদন পড়েছে। বাকি আসনের অটো পাস করা শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়া হবে। একই অবস্থা আদর্শ বালিকা বিদ্যালয়ে। এখানে ৩শ আসনের বিপরীতে আবেদন পড়েছে ৪০টি। বাকি আসনের অটোপাস করা শিক্ষার্থী ভর্তি নেয়া হবে। এছাড়া যশোরের সকল বেসরকারি স্কুলে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভর্তির আবেদন নেয়া হচ্ছে। সকল বিদ্যালয়ে আগামী ১ জানুয়ারি থেকে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে।