যশোর শিশু হাসপাতাল থেকে ৮ দিনের শিশু চুরি

0
73

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর শিশু হাসপাতাল থেকে আট দিন বয়সী একটি শিশু চুরির ঘটনা ঘটেছে। রবিবার (৬ মার্চ) বেলা ১২টার দিকে ওই শিশুর মা ও নানীর কাছ থেকে বোরকা পরিহিত অজ্ঞাত এক নারী কৌশলে শিশুটিকে চুরি করে নিয়ে যায়।

বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পুলিশ হাসপাতালের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করেছে।

চুরি হয়ে যাওয়া ওই শিশুটির মা আসমা খাতুন ও বাবা মেহেদী হাসান জনি ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌর শহরের বাসিন্দা। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি এই দম্পতির প্রথম সন্তান কালীগঞ্জের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভূমিষ্ট হয়। জন্মের পরপরই অসুস্থ ওই শিশুটির চিকিৎসার জন্যে যশোর শহরতলীর খাজুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত যশোর শিশু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখানে এক সপ্তাহ চিকিৎসা শেষে আজকেই তাকে রিলিজ দেয়া হয়।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির বাবা মেহেদী হাসান জনি তার বাচ্চাটিকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্যে বাইরে একটি ভাড়া গাড়ি আনতে যান। ওইসময় শিশুটির মা ও নানী বাড়ি যাওয়ার জন্যে গোছগাছ করছিলেন। ওই সময় অজ্ঞাত ওই মহিলা তাদের কাছে আসে এবং বাচ্চাটিকে তার কোলে দিয়ে গোছাতে বলেন। বাচ্চাটিকে কোলে নিয়ে তিনি কিছু সময় পাশে ঘোরাঘুরি করার একপর্যায়ে তাকে কোলে নিয়ে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান। গোছগাছ হওয়ার পর শিশুটির মা ও নানি তাদের শিশু কিংবা ওই নারী কাউকেই খুঁজে পাননি। তারা গোটা হাসপাতাল ও আশপাশ খুঁজে তার কোনো হদিস না পেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেন।

যশোর শিশু হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সৈয়দ নূর-ই-হামীম বলেন, সকালের রাউন্ড শেষ করেই শিশুটিকে রিলিজ দেয়া হয়। তারা হাসপাতালের তিন তলায় ছিলো। বিবষয়টি জানার পরপরই আমরা হাসপাতালের প্রধান গেট বন্ধ করে দিই। পরে সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, ওই মহিলা শিশুটিকে কোলে নিয়ে দুই চার মিনিট আশপাশে ঘোরাঘুরির পর নেমে রাস্তার বামদিকে চলে যাচ্ছেন। বিষয়টি তাৎক্ষণিক পুলিশকে অবহিত করা হয়।

যশোর উপশহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই এজাজুল হক বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। হাসপাতাল থেকে প্রয়োজনীয় ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। শিশুটিকে উদ্ধারে পুলিশি তৎপরতা শুরু হয়েছে।

যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি তাজুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পুলিশের একাধিক টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শিশুটিকে উদ্ধারে পুলিশ কাজ করছে।