যশোর সদরের কাশিমপুর ইউনিয়নের ডাকাতিয়ার আব্দুল আজিজ মোল্যার বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ!

0
220

রেজিষ্ট্রি বিয়ে ছাড়াই ১৬ বছর ঘর করার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোর সদর উপজেলার ৬নং কাশিমপুর ইউনিয়নের ডাকাতিয়া গ্রামের প্রতারক আব্দুল আজিজ সহজ সরল গৃহবধূ আনজিরা খাতুনকে দিয়ে তার প্রথম স্বামী আতিয়ার রহমানকে তালাক করিয়ে রেজিষ্ট্রি কাবিন ছাড়াই র্দীঘ ১৬ বছর যাবত স্ত্রী হিসেবে ভোগ করে জোরপূর্বক তালাক দেওয়ার ঘটনায় ওই এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। প্রতারক আব্দুল আজিজ এবার এলাকার লোকজনকে শায়েস্তা করতে পুনরায় আনজিরা খাতুনকে জমি লিখে দেওয়াসহ তাকে ঘর বাধার স্বপ্ন দেখাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।অপর দিকে,আব্দুল আজিজ মোল্যার মেয়ে মিতা আনজিরা খাতুনের প্রথম পক্ষের ছেলে আলামিনসহ পুলিশের হাতে গ্রেফতারের ঘটনায় এলাকায় নানা গুঞ্জন চলছে।
নড়াইল জেলার সদর উপজেলার ভূয়াখালী গ্রামের মৃত আজিবর মোল্যার মেয়ে আনজিরা খাতুন প্রতারক আব্দুল আজিজকে শায়েস্তা করতে গত ২ জুলাই যশোর পুলিশ সুপারের কাছে দায়েরকৃত অভিযোগে বলেছেন,যশোর সদর উপজেলার ৬ নং কাশিমপুর ইউনিয়নের ডাকাতিয়া গ্রামের রুস্তম বিশ্বাসের ছেলে আতিয়ার রহমানের সাথে তিনি ঘর সংসার করছিলেন। ঘর সংসার করাকালে স্বামী আতিয়ার রহমানের এলাকার প্রতিবেশী মৃত রহমত আলী মোল্যার ছেলে প্রতারক আব্দুল আজিজ গৃহবধূ আনজিরা খাতুনের সাথে কৌশলে সম্পর্ক তৈরী করে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় রটে যায়। আতিয়ার রহমান লোক লজ্জার কারনে তার প্রাণ প্রিয় স্ত্রী আনজিরা খাতুনকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে প্রতারক আব্দুল আজিজ সহজ সরল গৃহবধূ আনজিরা খাতুনকে বাগে আনার জন্য ওই সময় আতিয়ার রহমানকে তালাক দেওয়ার কাজটি সারে। আব্দুল আজিজ মোল্যার চক্রান্তে গৃহবধূ তার প্রথম স্বামী আতিয়ার রহমানকে তালাক দেয়। তালাক করিয়ে প্রতারক আব্দুল আজিজ অবলা আনজিরা খাতুনকে রেজিষ্ট্রি বিয়ে না করে ঘরে তোলে। তার সাথে স্বামীস্ত্রীর সম্পর্ক গড়ে তোলে। এভাবে রেজিষ্ট্রি বিয়ে ছাড়াই আনজিরা খাতুনের সাথে অবৈধ মেলামেশা করে আব্দুল আজিজ মোল্যা সম্প্রতি আনজিরা খাতুনকে ভুল বুঝিয়ে গত ২৮ জুন সকালে প্রতারক আব্দুল আজিজ মোল্যাসহ তার বড় ছেলে নয়ন,সুমনসহ কয়েকজন ওই এলাকার সহকারী কাজী শহিদুল ইসলামের মাধ্যমে কৌশলে আব্দুল আজিজ মোল্যাকে তালাক করিয়ে নেয়। ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর গৃহবধূ আনজিরা খাতুন হুশ ফেরেন। তিনি প্রতারক আব্দুল আজিজ মোল্যার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। সাংবাদিকরা গৃহবধূ আনজিরা খাতুনের দায়ের করা অভিযোগ নামা পেয়ে আব্দুল আজিজ মোল্যার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিকরা বলেন,আনজিরা খাতুন তাকে স্বেচ্ছায় তালাক দিয়েছে। তাছাড়া,তার সাথে রেজিষ্ট্রি বিয়ে হয়েছে কিনা জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, রেজিষ্ট্রি বিয়ে না হলেও ঘরোয়াভাবে বিয়ে হয়েছিল আনজিরা খাতুনের সাথে। আনজিরা খাতুনের দয়ের করা অভিযোগের খবর শুনে প্রতারক আব্দুল আজিজ মোল্যা বেসামাল হয়ে পড়েন। তিনি আনজিরা খাতুনের সাথে যোগাযোগের এক পর্যায় তাকে জমি লিখে দেওয়াসহ পুনরায় ঘর সংসারের প্রলোভন দেখাতে থাকেন বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। তিনি এলাকার কিছু লোকজনকে শায়েস্তা করতে পুনরায় গৃহবধূ আনজিরা খাতুনের সাথে যোগাযোগ পাকাপোক্ত করেছে। আব্দুল আজিজ মোল্যার সামাজিক অবস্থানের এই মুহুর্ত পরিস্থিতি কেটে গেলে তিনি আনজিরা খাতুনকে আবার ছুড়ে ফেলবে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। পুলিশী ঝামেলা থেকে রক্ষা করতে আনজিরা খাতুনকে প্রলোভন দেখাতে শুরু করেছে। অবিলম্বে আব্দুল আজিজ মোল্যা কিভাবে দেশের প্রচলিত আইনকে উপেক্ষা করে বিয়ে ছাড়াই অবলা গৃহবধূ আনজিরা খাতুনের সাথে ঘর সংসার করেছে এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন ওই এলাকার সর্ব শ্রেনীর মানুষ।সর্বশেষ খবর অনুযায়ী জানাগেছে,আব্দুল আজিজ মোল্যার মেয়ে মিতা আনজিরা খাতুনের প্রথম স্বামী আতিয়ার রহমানের ছেলে আলামিনের ঘরে শনিবার সন্ধ্যায় জোর পূর্বক উঠেছে। ইতিপূর্বে আব্দুল আজিজ মোল্যার মেয়ে মিতা আনজিরা খাতুনের গর্ভের প্রথম পক্ষের স্বামী আতিয়ার রহমানের ছেলে আলামিনের সাথে ইতিপূর্বে বের হয়ে উপশহর পুলিশ ফাঁড়ি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়। এ বিষয় এলাকাবাসীর মধ্যে নানা গুঞ্জন রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here