যশোর সদরের ১৫ ইউপিতে নির্বাচন : দৃষ্টিতে আ.লীগের বিদ্রোহীরা

0
100

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ৫ জানুয়ারি যশোর সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীদের চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী এক ডজন প্রার্থী। রোববার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। বিদ্রোহীদের দিকে চোখ রেখেছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। যাদের সিদ্ধান্তের উপর বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীর জয়-পরাজয় নির্ভর করবে।

এদিকে, গত ৯ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে বৈধ প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পর সব ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষে বর্ধিত সভা করা হয়েছে। ওই সব সভা থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনসহ ‘প্রভাবশালী’ নেতারা বিদ্রোহী প্রার্থীদের কঠোরভাবে হুঁশিয়ারী দিয়েছেন। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিন পার হওয়ার পর বিদ্রোহীদের মাঠে নামতে না দেয়ারও হুমকি দিয়েছেন তারা। এজন্য প্রত্যাহারের শেষ দিনে কারা প্রার্থী থেকে যাচ্ছেন তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন অনেকে।

সদর উপজেলার ১ নম্বর হৈবতপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সিদ্দিক। তবে তাকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা হরেন কুমার বিশ্বাস। এই ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী থাকলেও মূলত হরেন কুমার বিশ্বাস হতে যাচ্ছেন নৌকার প্রার্থীর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী।

লেবুতলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলীমুজ্জামান মিলন। মনোনয়নপত্র দাখিল করা তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শহিদুল ইসলাম। তবে তার নামে সরকারি ওএসএস’র চাল বিক্রির ডিলারিশিপ থাকায় শহিদুলের মনোনয়ন বাতিল হয়ে গেছে। এরপর তিনি উচ্চ আদালতের দারস্ত হচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

ইছালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত সাবেক চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেনের স্ত্রী ফরদৌসি ইয়াসমিন। তার জয়-পরাজয় নির্ভর করতে এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আয়ুব হোসেন, আওয়ামী লীগ নেত্রী শাহানারা খাতুন ও আজিজুর রহমান ডেবিটের উপর। তারা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করলে কঠিন চ্যালেঞ্জে পড়তে হবে নৌকার প্রার্থীকে।

নওয়াপাড়া ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন রাজিয়া সুলতানাকে। তবে ধীর্ঘদিন মাঠে থাকার কারণে এই ইউনিয়নে বেশ ভাল অবস্থানে আছেন ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক হুমায়ন কবির তুহিন। এছাড়া নিজস্ব কর্মী বাহিনী আছে আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগ নেতা কাজী আলমগীর হোসেনের। ইতিমধ্যে এই ইউনিয়নের আরেক আলোচিত বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা যুবলীগের সদস্য কেরামত আলী তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির নিজ ইউনিয়ন হওয়ায় বিদ্রোহী প্রার্থী তুহিন ও আলমগীর নিজেদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করছেন কিনা তা জানতে নেতাকর্মীদের বেশ আগ্রহ রয়েছে।

উপশহর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন বর্তমান চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু। তবে তাকে একমাত্র প্রার্থী হিসেবে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত হোসেন রতœ।

কাশিমপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন শরিফুল ইসলাম। একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী থাকলেও ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএম সাইফুল ইসলামই মূলত তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী। তবে তিনি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবেন না-কি নিজেকে প্রত্যাহার করে নেবেন তা জানা যাবে আজই।

চুড়ামনকাটিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি দাউদ হোসেন দফাদারকে ইতিমধ্যে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে দিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্না।

দেয়াড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন লিয়াকত আলী। তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক বর্তমান চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান আনিস।

আরবপুরে মীর আরশাদ আলীকে দেয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন। তিনি ছাড়াও ইউনিয়নটি থেকে সাতজন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে শেষ পর্যন্ত বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল ইসলাম বা আসাদুল ইসলাম হয়ে যেতে পারেন নৌকার প্রার্থীর প্রাধান প্রতিপক্ষ। এজন্য তাদের দিকে নজর রেখেছেন ইউনিয়নটির রাজনৈতিকভাবে সচেতন মানুষ।

তফসিল ঘোষণার পর অনেকে আলোচনায় থাকলেও শেষ মুহূর্তে চাঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়া হয় সেলিম রেজা পান্নুকে। তিনি জেলা শ্রমিকলীগের শ্রম ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক। তার বিরুদ্ধে ‘একজোট হয়ে’ বিদ্রোহী প্রার্থী করা হয়েছে ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ বিশ্বাসের ছেলে শামীম রেজাকে। তিনি যদি প্রার্থী হিসেবে শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকেন তাহলে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে নৌকা প্রতীকের পান্নুকে।

রামনগর ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান নাজনীন নাহার। তার বিরুদ্ধে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে বিদ্রোহী প্রার্থীদের মধ্যে আলোচিত জেলা তরুণ লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান লাইফ।

ফতেপুর ইউনিয়নে গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে হেরে যাওয়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ সোহরাব হোসেন আবারো দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। তার বিপরীতে প্রার্থী হতে ছয়জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে এরই মধ্যে সবাইকে টপকে আলোচনার শীর্ষে চলে এসেছেন ফাতেমা আনোয়ার। তিনিও আওয়ামী পরিবারের সন্তান।

কচুয়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক পাওয়া বর্তমান চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান ধাবক ছাড়াও সাত প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ হয়। তাদের মধ্যে জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ধাবককে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করার ক্ষমতা আছে সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শেখ মাহমুদ হোসনের।

নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া মোদাচ্ছের আলী ইতিমধ্যে বেশ খানিক ব্যাকফুটে রয়েছেন। তারই দলের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী সদর উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন ও সদর উপজেলা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ রীতিমতো ‘মাঠ দখলে’ নিয়েছেন।

বসুন্দিয়ায় নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম খান রাসেল। এই ইউনিয়নে তিনি ছাড়াও বৈধ প্রার্থী আছেন আরো পাঁচজন। তাদের মধ্যে আলোচনায় আছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বিদ্রোহী প্রার্থী আজিজুর রহমান।