যশোর সদরে নৌকার মনোনয়ন পেলেন নুর জাহান নীরা আর ধানের শীষের প্রার্থী নুর উন নবী

0
184

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উপ নির্বাচন নির্বাচন

ডি এইচ দিলসান : আগামী ২০ অক্টোবর যশোর সদর উপজেলা পরিষদের উপ নির্বাচনে নিজ নিজ দলীয় প্রার্থী চুড়ান্ত করেছে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি। যশোর জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান নুর জাহান ইসলাম নীরা আসন্ন উপ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন লাভ করেছেন। দলের দেড় ডজন প্রার্থীকে পিছনে ফেলে নীরা দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন লাভ করেন। গতকাল বিকেলে আওয়ামীলীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা নুর জাহান ইসলাম নীরাকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা দেন। অপরদিকে গতকাল বিকেলে যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে উপজেলা বিএনপির সভাপতি নূর উন নবীর হাতে দলীয় মনোনয়নপত্র তুলে দিয়েছেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম।
আগামী ২০ অক্টোবর যশোর সদর উপজেলা পরিষদের উপ- নির্বাচন । আর এ নির্বাচনে আওয়মীলীগের নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি, বর্তমান উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নুরজাহান ইসলাম নীরা। সোমবার বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় তাকে মনোনয়ন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।যশোর সদরের এই নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগি সংগঠনের ১৯ নেতা আবেদন করেন। যাদের মধ্যে থেকে নুরজাহান ইসলাম নীরাকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়।
এদিকে যশোর সদর উপজেলা নির্বাচন নিয়ে নুরজাহান ইসলাম নীরার ভাবনা নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি রাজনৈতিকে পরিবারের সন্তান। আমার বাবা মরহুম রফিউদ্দীন আহমেদ পাকিস্তান আমলে বাঘারপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। এ কারনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ও পারিবারিক সহযোগিতায় আমি ১৯৮১ সাল থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি করার মধ্যদিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করি। ওই সময় সরকারি মহিলা কলেজে লেখাপড়া করা কালীন কলেজ ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও পরবর্তীতে জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করি। ১৯৯৩ সালে যশোর পৌরসভার সাবেক ২ নম্বর ওয়ার্ড বর্তমান ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হই। ১৯৯৭ সালে তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভোটে যশোর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হই। গত বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার এক বছরের মাথায় এ বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যানে দায়িত্ব পায়।
তিনি বলেন, দলীয় মনোনয়ন পেয়েছি, এখন যদি জনগনের ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারি তাহলে সদর উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের প্রত্যেকটা গ্রামে, পাড়ায়, মহল্লায় আমি উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দিবো। তিনি বলেন সদরের প্রতিটি গ্রামের রাস্তা আমি পাকা করবো, রাস্তার মোড়ে মোড়ে সৌর বাতি জালাবো। সকল শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন করা হবে। উপজেলার সব দফতরের অনিয়ম,দুর্নীতি দূর করে জনগনের মাঝে প্রদান করা হবে সঠিক সেবা । কোন মানুষকে উপজেলা পরিষদের কাজে এসে দুর্ভোগে পড়তে হবে না। সেই সাথে সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মানুষের মুখে হাসি ফোটানো হবে।
তিনি আরো বলেন, করোনা কালীন পরিস্থিতিতে সব সময় উপজেলারবাসির পাশে থেকেছি। এই পরিস্থিতিতে গরিব মানুষের খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। এখন মানুষের বিভিন্ন সেবা প্রদান করছি। আগামীতে যদি উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারি। তাহলে বেশি বেশি সেবা প্রদান করতে পারবে। আর যদি চেয়ারম্যান না হই,তারপরও জনগনের পাশে থাকবো।
অপরদিকে যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন লাভ করেছেন সাবেক পৌর কমিশনার ও যশোর সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি নুর উন নবী। গতকাল বিকেলে নূর উন নবীর হাতে দলীয় মনোনয়নপত্র তুলে দেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম। নিজ বাসভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে তার হাতে মনোয়নপত্র তুলে দেন তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শামসুল হুদা, গোলাম রেজা দুলু, প্রফেসর গোলাম মোস্তফা, অ্যাড. মোহাম্মদ ইসহক, অ্যাড. নজরুল ইসলাম, আব্দুস সবুর মন্ডল, আব্দুস সালাম আজাদ, আলহাজ্ব মিজানুর রহমান খাঁন, একে শরফুদ্দৌলা ছোটলু, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুনীর আহম্মেদ সিদ্দিকী বাচ্চু, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আজম, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য, অ্যাড. হাজী আনিসুর রহমান মুকুল, সিরাজুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম চৌধুরী মুল্লুক চাঁদ প্রমুখ।
দলীয় মনোনয়ন পত্র গ্রহনের পর এক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির প্রার্থী নুর উন নবী বলেন, জনগণের ভোট ও ভাতের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে এই অর্জন একধাপ এগিয়ে থাকলো। উপজেলার প্রতিটি নাগরিকের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করতে প্রাণপন চেষ্টা করবো। দল যে প্রত্যাশা নিয়ে আমাকে এ্ি পদে দলীয় মনোনয়ন প্রদান করেছেন তা পূরনের জন্য সকল স্তরের নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে সাথে নিয়ে নির্বাচনী কর্মকান্ড পরিচালনা করবো। সকল প্রকার ভয়ভীতি উপক্ষো করে দলের সকল স্তরের নেতাকর্মীদের নির্বাচনী কর্মকান্ডে সক্রিয় হওয়ার পাশাপাশি তিনি দলের খুলনা বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ও জেলা বিএনপির আহবায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগমের পরামর্শ মোতাবেক নির্বাচনী কর্মকান্ড পরিচালনা করা হবে বলে তিনি তার মতামত তুলে ধরেন। তিনি বলেণ, আসন্ন উপ নির্বাচনে যদি সর্বস্তরের মানুষ ভোট কেন্দ্রে গিয়ে তাদের মুল্যবান ভোট প্রদান করতে পারে তাহলে তিনি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। তিনি বলেন নির্বাচিত হতে পারলে যশোর সদর উপজেলা পরিষদকে একটি মডেল উপজেলা পরিষদে রুপান্তির করতে তিনি সাধ্যমতো সব করবেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের অভিনন্দন জানান তার প্রতি আস্থা ও বিশ^াস রাখার জন্য।

উল্লেখ্য গত ১৪ সেপ্টেম্বর যশোর সদর উপজেলাসহ দেশের ৮টি উপজেলার চেয়ারম্যান ও দুইটি উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। ২৬ সেপ্টেম্বর দাখিলকৃত মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষ বৈধ প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে। ৩ অক্টোবর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিন ঘোষণা করা হবে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা। আর ২০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে ভোট গ্রহণ।