যশোর সদর হাসপাতালের মেঝেতে পড়ে আছে একাত্তরের সূর্য্য সন্তান, দেখার কেউ নাই !

0
1995
বীর মুক্তিযোদ্ধা মাতব্বর গাজী পড়ে আছে যশোর সদর হাসপাতালের নোংড়া মেঝেতে, ছবি-বেলাল হোসেন বনি

ডি এইচ দিলসান : যশোর সদর হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বেড বরাদ্দ থাকলেও একাত্তরের রনাঙ্গন কাপানো ৮০ বছরের বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা মাতব্বর গাজী পড়ে আছে নোংড়া মেঝেতে। যদিও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মান সকলের উপরে।

মাতব্বর গাজী মনিরামপুর উপজেলার ফতেয়াবাদ এলাকার মৃত সোনাই গাজীর ছেলে।

একাত্তরের এ বীর মুক্তিযোদ্ধা মাতব্বর গাজী ম্যাগপাই নিউজকে, বলেন, যুদ্ধ শুরু হওয়ার সাথে সাথে আমি চব্বিশ পরগনা জেলার বশিরহাট ক্যাম্পে শওকতের নেতৃত্বে ট্রেনিং নিযে দেশে ফিরে এসে শওকতের সাথেই যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। দেশ স্বাধীনের পর ভাতের অভাবে কত রাত না খেয়ে কাটিয়েছি তা শুধু আল্লাহ জানেন। তিনি বলেন ২০ বছর ধরে মনিরামপুর থানার লাশ টেনেছি, কেউ দেখেনি, পাইনি কোন সন্মান, শুধু সরকারের দেওয়া ভাতাটাই যা পাই।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মাতব্বর গাজী পড়ে আছে যশোর সদর হাসপাতালের নোংড়া মেঝেতে, ছবি-বেলাল হোসেন বনি

তিনি আক্ষেপ করে জানান গত ৪ মাস ধরে বিছানায় পড়ে আছি কেউ আসেনি খবর নিতে। এখন যখন হাসপাতালে আসলাম বাচার জন্য তখনও মেঝেতে পড়ে থাকতে হচ্ছে।

মাতব্বর গাজীর স্ত্রী ফাতেমা বেগম ম্যাগপাই নিউজকে বলেন, আমার স্বামী নীজের জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছে, আর তার বিনিময়ে দেশ ওনাকে সদর হাসপাতালের মেঝেতে একটা বিছানা উপহার দিয়েছে। তিনি বলেন, চিকিৎসার অভাবে যদি আমার স্বামী মারা যান তাহলে দায় নিতে হবে সরকারকে।

মাতব্বর গাজীর নাতী আব্দুর রাজ্জাক ম্যাগপাই নিউকে বলেন, আমার নানার জন্য সরকারের কাছে একটা বেড চাই, যাতে আমার নানা একটু শান্তি তে হাসপাতালে থেকে সুচিকিৎসা পেতে পারে। তিনি বলেন, বার বার মনিরামপুর উপজেলার সাবেক কমান্ডার আল্লাউদ্দীন সাহেবের সাথে যোগাযোগ করা হলেও তিনারা কেউ আসেনি আমার নানাকে দেখতে। কেউ ২টা টাকা দিয়ে আমাদের সাহায্য করেনি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here