যশোর সদর হাসপাতালে চালু হচ্ছে আইসিইউ

0
217

নিজস্ব প্রতিবেদক : বহুদিন ধরে যশোরে আইসিইউ নিয়ে দুশ্চিন্তায় সাধারণ মানুষ। করোনা সংক্রমণের পর বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ সংযোজন হয়েছে। কিন্তু গত এক বছরেও যশোরে তা সম্ভব হয়নি। কিছু যন্ত্রাংশের ঘাটতির কথা উঠে এসেছে বারবার। সেই সংকট সমাধানের উপায় বের করেছে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি। জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা ও ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শনিবার দুপুরে সার্কিট হাউসে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় কয়েকজন বিশিষ্টজন সহযোগিতার আশ্বাসও দিয়েছেন।

জেলা প্রশাসক ও জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক দিলীপ কুমার রায়। তিনি বলেন, হাসপাতালে একটি ওয়ার্ড খালি করে আইসিইউ ইউনিটের জন্য উপযুক্ত করা হয়েছে। হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের চিকিৎসক ও ১১ জন ট্রেনিং প্রাপ্ত সেবিকা ওই ইউনিটের জন্য প্রস্তুত করা হয়। হাসপাতালের জন্য ১০টি বেড বরাদ্দ দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে ৬টি ভেন্টিলেটর পাঠিয়েছে। তার মধ্যে তিনটি নষ্ট হয়ে পড়েছে। অবশিষ্ট তিনটি ভেন্টিলেটরসহ আইসিইউ বেড স্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু কিছু উপকরণ ও মেশিনের জন্য এখনো এই ইউনিট চালু করতে পারছেন না তারা। এরপর সভায় উপস্থিত সদস্যরা আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেন আইসিইউ চালুর জন্য প্রয়োজনী সরঞ্জাম জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী নেতাদের সহযোগিতা নেওয়া হবে। পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদারও সহযোগিতার আশ^াস দেন।

এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে শহরের বড়বাজার স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বড়বাজারের কাঁচাবাজার সম্প্রসারণ করে কালিবাড়ি থেকে খালদার রোড পর্যন্ত নেওয়ার সিন্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কাঁচাবাজার ফাঁকা হওয়ার পরে মাছবাজার বর্তমান কাঁচাবাজারে আনার সিন্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাজারের পরিস্থিতি দেখতে গেছেন কমিটির একটি দল। আজ পৌরসভার মিটিংয়ে চুড়ান্ত করা হবে বাজার স্থানন্তরের বিষয়টি। এছাড়া যশোরে সরকারের কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসন ও পুলিশের সাথে ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সাহয্য কামনা করেন করোনা কমিটির নেতৃবৃন্দ।

সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক হুসাইন শওকত, যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ার্দার, সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন, যশোর পৌরসভার মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দার গনি খান পলাশ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালাউদ্দিন শিকদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) তৌহিদুল ইসলাম, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন প্রমুখ।