যশোর সদর হাসপাতালে বহু কাক্সিক্ষত অক্সিজেন প্লান্ট উদ্বোধন

0
41

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সদর হাসপাতাল থেকে অক্সিজেনের অভাবে অনেক রোগীকে রেফার্ড করা হতো। এখন থেকে সেই সমস্যার সমাধান হলো। অক্সিজেনের অভাবে অন্য হাসপাতালে যেতে হবে না কোনো রোগীকে। মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতালের কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ প্লান্টের উদ্বোধন শেষে একথা বলেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আখতারুজ্জামান।

তিনি আরও বলেন, প্রথম পর্যায়ে করোনা ও আইসিসিইউ রোগীদের এখান থেকে অক্সিজেন সাপোর্ট পাবে। পরবর্তীতে সকল রোগীদের সেন্টাল অক্সিজেনের আওতায় আনা হবে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ভর্তিকৃত জটিল রোগীদের সার্বক্ষণিক অক্সিজেন সরবরাহ করার লক্ষ্যে হাসপাতাল প্রাঙ্গণে ছয় মাস আগে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্ট বসানোর কার্যক্রম শেষ হয়। বিশেষ করে করোনা আক্রান্ত রোগীদের সার্বক্ষণিক অক্সিজেনের সাপোর্ট দিতে হয়। কিন্তু হাসপাতালে অক্সিজেনের পর্যাপ্ত মজুদ না থাকার পাশাপাশি বিভিন্ন সমস্যার কারণে বেশিরভাগ সময়ই করোনা রোগী ও জটিল রোগীদের খুলনা বা ঢাকায় স্থানান্তর করা হচ্ছিল।

সম্প্রতি যশোরে করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্ত রেকর্ড সংখ্যক হলে হাসপাতালে অক্সিজেনের তীব্র সংকট দেখা দেয়। এ পরিস্থিতি বিবেচনা করে ২৯ মার্চ থেকে শুরু হলো সেন্টাল অক্সিজেন কার্যক্রম। আর এ প্লান্ট থেকে পাইপের মাধ্যমে পুরো হাসপাতালের অক্সিজেন সরবরাহ করার মাধ্যমে রোগীদের সার্বক্ষণিক অক্সিজেন সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার আখতারুজ্জামান জানান, এ অক্সিজেন প্লান্টটি চালু হয়ায় রোগীরা আর অক্সিজেনের অভাবে কষ্ট পাবে না। সময় মতো সকল রোগীকে পর্যাপ্ত অক্সিজেন সেবা দেওয়া সম্ভব হবে। এ প্লান্টটির ধারণ ক্ষমতা ছয় হাজার ঘন লিটার। এক বার প্লান্টটি রিফিল করলে সাত-নয় দিন অক্সিজেন সরবরাহ সচল থাকবে।

তিনি আরও জানান, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর প্রধান কারণ হচ্ছে অক্সিজেনের স্বল্পতা। হাসপাতালে থাকা অক্সিজেনের সিলিন্ডারগুলো থেকে পর্যাপ্ত অক্সিজেন দিয়ে করোনা রোগীসহ জটিল রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হয় না। পর্যাপ্ত অক্সিজেনের অভাবে যশোর থেকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে কয়েকশ’ করোনা রোগীসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীকে। এ সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্টটি হওয়ায় হাসপাতাল থেকে রোগীদের সার্বক্ষণিক অক্সিজেন দেওয়া সম্ভব হবে। ফলে অক্সিজেনের অভাবে কোনো রোগীদের আর অন্য হাসপাতালে পাঠাতে হবে না।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আরিফ আহমেদ জানান, হাসপাতালের প্রতিটা রোগীর শয্যার পাশে অক্সিজেনের সংযোগ দিয়েছি এবং যাদের অক্সিজেন দরকার হবে, তারা অক্সিজেন পাবে। তবে, বর্তমান করোনা আক্রান্ত ও আইসিসিইউ রোগীদের সেন্টাল অক্সিজেন সরবরাহ করা হবে। পরবর্তীতে সকল রোগীকে সেন্টাল অক্সিজেনের আওতায় আনা হবে।