যশোর সেইলরের এটিএম কার্ড প্রতারণায় সর্বশান্ত হচ্ছেন ক্রেতারা

0
23

ডি এইচ দিলসান : যশোরের অভিযাত পোশাক বিপনী সেইলর থেকে এটিএম কার্ডের মাধ্যম্যে পণ্য ক্রয় করে সর্বশান্ত হয়েছেন যশোরের টপ লেবেল থেকে শুরু করে সাধারন মানুষ। অভিনব এ প্রতারণার ফাদে পা দিয়ে আটকে যাচ্ছেন ক্রেতারা।
সেইলর থেকে পণ্য ক্রয় করে এটিএম কার্ডের মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করে চলে যাওয়ার পরে একটি নাম্বার থেকে ফোন করে সেইলরের কর্মকর্তা পরিচয় দেয়। ক্রেতা কি কি কেনেন এবং কত টাকার মালামাল ক্রয় করেন তার সঠিক বিবরণও দেন। এর পর বলেণ আমাদের একটু যাত্রিক ত্রুটির কারনে পেমেন্টটা ঠিক ঠাক হয়নি। আপনার ফোনে ব্যাংক থেকে ফোন দিয়ে আপনার সম্মতিতে ত্রুটিটা ঠিক করে দেবেন।
এরপর যথারিতি ব্যাংকের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ফোন করে ওটিপি নাম্বার চান, নাম্বার দেওয়ার সাথে সাথে ব্যাংকে থাকা অবশিষ্ট সব টাকা তুলে নেয় প্রতারক চক্রটি।
এই প্রতারনার ফাদে পা দেন ল্যাফ. কর্ণেল শামিম, যশোর আনসার ভিডিপির কমান্ডার, ডাক্তার সাফায়াত হসেনসহ প্রায় অর্ধশত মানুষ।
এ ব্যাপারে ডাক্তার সাফায়াত হসেন বলেন, আমি গত ২১শে ডিসেম্বর সেইলর থেকে কেনাকাটা করি, এর পর ৩১ শে ডিসেম্বর সন্ধায় ০৯৬৩৮৪২৫১৫৯ নাম্বার থেকে ফোন আসে। সেইলরের কর্মাকর্তা পরিচয় দেয়, আমি কি কি কেনাকাটা করেছি, তার সঠিক বর্ণানা দেন। তিনি বলেণ, আপনি যে সময় ইবিএল কার্ড দিয়ে কেনাকাটা করেন ওই সময় আরো একজন ক্রেতা ইবিএল কার্ড দিয়ে কেনাকাটা করে, সন্দেহপুর্ণ ত্রুটির কারনে আমরা ইবিএল ব্যাংকে যোগাযোগ করি। ইবিএল আপনার কার্ড সাময়িকভাবে স্থগীত করেছে। এখন ইবিএল থেকে আপনাকে ফোন করে যা বলে ওই মাফিক কাজ করলে কার্ড ঠিক হয়ে যাবে।এরপর +১৬২৩০ নাম্বার থেকে ফোন আসে, আমার কাছে ওটিপি নাম্বার চাই। আমি ওটিপি দেওয়ার পর ৭টি ট্রানজেকশনের মাধ্যম্যে আমার একাউন্ট থেকে ৩ লাখ ৪১ হাজার টাকা তুলে নেয়।
এ ব্যাপারে সেইলর যশোরে ব্যাবস্থাপক রাশেদ বলেন, আমার কাছে বিভন্ন লোক অভিযোগ করেছে, আমি ব্যাপরটা আমাদের উচ্চ পর্যায়ে জানিয়েছি। তিনি বলেন আমাদের সারবার হ্যাকের মাধ্যম্যে তথ্য লিকেজ হতে পারে। তিনি দাবি করেন তার ওখান থেকে কোনভাবে প্রতারিত হওয়োর সুযোগ নাই।
তিনি বলেন, আমার সেল সেন্টারে সিটি ব্যাংক এবং ডাস বাংলা ব্যাংকের ২টি পজ আছে, সেখান থেকেও তথ্য লিকেজ হতে পারে।
এ ব্যাপারে ডাস বাংলা ব্যাংক যশোর শাখার ম্যানেজার মিস্টার দিবাকর বলেন, আমরা এই ব্যাপারে কিছু জানি না। রোববার আমাদের এটিএম সেক্টরের লোক সেইলরে গিয়ে দেখবেন। কোন সমস্যা থাকলে তার সমাধান করবেন।
খোজ নিয়ে জানা গেছে ইতমধ্যে ১০ টির মত জিডি জমা পড়েছে যশোর সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিকেশন ইউনিটে।
এ ব্যাপারে যশোর সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিকেশন ইউনিটের দায়িত্বরত কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার বলেন, সেইলরের প্রতারনা নিয়ে ডিবি এবং যশোর সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিকেশন ইউনিটে যৌথভাকে কাজ করছে, তিনি বলেন, আমরা অনেক দুর এগিয়েছি, খুব দ্রুত এর রহস্য উৎযাটন করবো আমরা।