যশোর ১৪ ‘মাদক ব্যবসায়ীকে’ ধরিয়ে দিতে পুলিশের পোস্টার

0
329

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা পুলিশ সন্ত্রাস, জঙ্গি ও মাদকবিরোধী আরো ১০১ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। ১ জুন থেকে এ কর্মসূচি (অভিযান) শুরু হবে। শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ও গডফাদার হিসেবে ১৪ জনকে চিহ্নিত করেছে। এদের ছবি দিয়ে পোস্টার তৈরি করা হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টায় প্রেসক্লাব কনফারেন্স রুমে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান এ তথ্য জানান। এ সময় তিনি শেষ হওয়া ১০০ দিনের অভিযানের সাফল্যও তুলে ধরেন।
পুলিশ সুপার জানান, ১০১ দিনের কর্মসূচির আওতায় যশোরের ৬৩ ইউনিয়নে সন্ত্রাস, জঙ্গি ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সরাসরি অ্যাকশনে যাওয়া হবে।
তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাস, জঙ্গি ও মাদক রুখতে জনপ্রতিনিধিদেরও দায়িত্ব রয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে ডোর টু ডোর গিয়ে মাদক নির্মূলে কাজ করা হবে। দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ মতবিনিময়কালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ মোহম্মদ আবু সরোয়ার, কোতয়ালী থানার ওসি আজমল হুদা, ডিবির ওসি ইমাউল হক, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক এস এম তৌহিদুর রহমান, সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান তোতা, সাবেক সম্পাদক আহসান কবীর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে ১৪ ‘মাদক ব্যবসায়ীকে’ ধরিয়ে দিতে পুলিশের পোস্টার রেব করছে। কথিত এসব মাদক ব্যবসায়ী ও গডফাদারকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য সর্বাধিক ২৫ হাজার, সর্বনি¤œ দশ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে।
প্রেসক্লাব যশোরে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে আরো ১০১ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এই অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার বিষয়টি জানান। এর কিছু সময়ের মধ্যে সংবাদকর্মীদের ই-মেইলে ১৪ জনের ছবিসম্বলিত পোস্টার পাঠানো হয়।
এই ১৪ জন ছাড়াও আরো মাদক ব্যবসায়ী, গডফাদারের পরিচিতি প্রকাশ করা হবে বলে পোস্টারে ইঙ্গিত দেওয়া হয়। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পক্ষে মো. জাহাঙ্গীর আলম এই পোস্টারটি সংবাদকর্মীদের কাছে পাঠান। এতে এক নম্বরে রয়েছে বেবী খাতুন নামে এক নারীর নাম; যাকে ‘ হেরোইন স¯্রাজ্ঞী’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। তিনি শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া এলাকার মৃত ওলিয়ার রহমান ও মৃত আমেনা খাতুনের মেয়ে।
এছাড়া তালিকায় একই এলাকার মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী রুমা বেগম, শঙ্করপুর এলাকার পিয়ারু কাজীর ছেলে তারেক কাজী ওরফে পাউডার তারেক, চৌগাছার বড় কাবিলপুর গ্রামের সোনাই ছেলে শফি মেম্বার ওরফে ডাইল শফি, অভয়নগরের গুয়াখোলা এলাকার আব্দুল গনির ছেলে কামরুল, বুইকারা এলাকার হিরু স্ত্রী লিপি বেগম ওরফে মাদক রানি, বেনাপোল পোর্ট থানার ভবারবেড় কলুপাড়ার মৃত হোসেন আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম বারপোতার রিয়াজুল ইসলাম, চৌগাছার ফুলসারা গ্রামের মৃত আব্দুল হকের ছেলে আশরাফুল আলম ওরফে ইঞ্চি আলম, শার্শার কোটা পশ্চিমপাড়ার শের আলী দফাদারের ছেলে আনোয়ার হোসেন আনা ওরফে বাবা আনা, চৌগাছার বড় কাবিলপুরের রিয়াজউদ্দিন ইসরাইল হোসেন নুনু খোকন ওরফে ওষুধ খোকন, শার্শার কাশিপুর- গোপীনাথপুরের আসাদুল ইসলাম (আশা), বেনাপোল পোর্ট থানার রঘুনাথপুরের (বর্তমানে নারায়ণপুর) বাদশা মল্লিক এবং রঘুনাথপুরের গোলাম মোস্তফা ওরফে গোলা ঢাকালের ছেলে জাহাঙ্গীরের নাম রয়েছে।
এদের মধ্যে প্রথম আটজনকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য জনপ্রতি ২৫ হাজার এবং শেষ ছয়জনকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য জনপ্রতি দশ হাজার টাকা করে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এসপি আনিসুর রহমান জানান, পুলিশের সোর্স মানি থেকে এই টাকা ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে (বিকাশ বা অন্য কোনো উপায়ে) অথবা নগদে পরিশোধ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here