যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেলহাসপাতাল ঘিরে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকাংশের মান নিয়ে শুরু হয় সংশয়

0
367

এম আর রকি  : সরকারের উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করতে অর্থলোভী কতিপয় চিকিৎসক ও ব্যক্তিরা স্বাস্থ্য সেবার নামে জনগনের টাকা পয়সা লুটে নিচ্ছে। যার ফলে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ঘিরে এই ব্যবসা এখন ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। স্বাস্থ্য নীতিকে উপেক্ষা করে প্রতিনিয়ত গড়ে উঠছে হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনষ্টিক সেন্টার,ফিজিও থেরাপীসহ স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট হরেক নামে প্রতিষ্ঠান। নামে মাত্র অনুমতি পত্র পাওয়ার আবেদন জানিয়ে রাতারাতি গড়ে ওঠা ওই সব প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশেই প্রকৃত চিকিৎসার নাম বালা নাই। তবে রোগে জর্জরিত নিরীহ মানুষদের কাছে প্রতারণা করে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে লাখ লাখ টাকা। সরকারের বন্ধের দিনে এই ব্যবসা চমপেশভাবে হয়ে থাকে। এ তথ্য বিভিন্ন সূত্রের।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,বর্তমান সরকারের স্বাস্থ্যনীতিকে ভূলুন্ঠিত করতে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীরা নিজেদের পকেট ভারী করতে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবসার প্রতি বেশী ঝুঁকে পড়ছে। যশোর ২৫০শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ঘিরে এই ব্যবসা এখন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সরকারের নিয়মকে উপেক্ষা করে রাতারাতি গড়ে উঠছে বিভিন্ন হরেক নামের স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান। এ সব প্রতিষ্ঠানে সরকারের স্বাস্থ্য নীতি উপেক্ষা করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য সেবার মান দেখার দায়িত্বে নিয়োজিত সিভিল সার্জন দপ্তরে নামে মাত্র আবেদন জমা দিয়ে রাতারাতি গড়ে তোলা হচ্ছে হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনস্টিক সেন্টার,ফিজিওথেরাপীসহ স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান।সূত্রটি জানিয়েছে,যশোর সরকারি হাসপাতাল থেকে যে দূরত্ব বজায় রেখে হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে তোলার নিয়ম রয়েছে। সে নিয়ম মানা হচ্ছে এখানে। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সামনে দক্ষিণ ও পূর্বে গড়ে উঠেছে কমপক্ষে গোটা ৩০টি স্বাস্থ্য সেবার নামে প্রতিষ্ঠান । এই প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশগুলোতে সেবা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার মান অতি শোচনীয়। তবে নিরীহ ও সাধারণ রোগিদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে প্রতি নিয়ত লাখ লাখ টাকা। সম্পূর্ণ অবৈধভাবে গড়ে ওঠা স্বাস্থ্য সেবার নামে প্রতিষ্ঠান গুলোতে নাই মান সম্মত চিকিৎসক,সেবিকা,পরীক্ষা নিরীক্ষার সরাঞ্জাম, অভিজ্ঞ টেকনিশিয়ান,ওয়ার্ডবয়সহ স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা। যার ফলে ডিগ্রী না থাকলেও চিকিৎসক ব্যক্তিটির নামে ডিগ্রী লিখে জনসাধারণের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব প্রতিষ্ঠানের মান নিয়ে জনসাধারনের কাছে দেখা দিয়েছে সংশয়। রোগের ধরণ না বুঝলেও চিকিৎসার দোহায় দিয়ে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে সর্বস্ব্য। সূত্রটি আরো জানিয়েছে,জেলা সিভিল সার্জন দপ্তরে কর্মরত কর্মকর্তাদের তদারকির অভাবে অর্থলোভী স্বাস্থ্য সেবার নামে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা প্রতিনিয়ত জনসাধারণের সাথে প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে। মানব পেশার সাথে সরাসরি জড়িত চিকিৎসকগন এই পেশার সাথে অধিকাংশরা জড়িত। যার ফলে মানুষেরা বিশ্বাস করে অতি সহজে। এই সুযোগে সর্বশান্ত করছে অসহায় নারী পুরুষ ও শিশুদের। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোরের সর্বস্তরের মানুষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here