যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল কেন্দ্রিক চিকিৎসা জনিত ব্যবসা জমপেশ

0
595

এম আর রকি : চিকিৎসা নিতে এসে সর্বশান্ত হয়ে বাড়ি ফিরছে যশোর অঞ্চলের বিভিন্ন গ্রামের সহজসরল নারী পুরুষেরা।মানবতার পেশাকে ভর করে এক শ্রেনীর চিকিৎসক নামের অর্থলোভী চিকিৎস ও বিভিন্ন পেশার ব্যবসায়ীরা যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালকে টার্গেট করে গড়ে তুলেছে প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক,ডায়াগনষ্টিক সেন্টারসহ বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্র।তারা কথিত দালাল নিয়োগ করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় নারীপুরুষকে কৌশলে ভাগিয়ে নিয়ে তোলে তাদের চুক্তিবদ্ধ হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গুলিতে। সেখানে থাকা অনবিজ্ঞ ব্যক্তিদের দ্বারা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে সর্বশান্ত। সূত্রগুলো বলেছে,২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করতে আসা পুলিশ সদস্যরা দালালদের অর্থের উপর ভাগ বসায়। কর্তব্যরত পুলিশদের ভাগ না দিলে তারা দালালদের প্রথম পর্যায় ধরে রেখে পরে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করে দালাল হিসেবে আখ্যায়িত করে। গত এক বছরে অত্র হাসপাতাল থেকে কথিত দালাল ধরা পড়েছে ৪০ জন। এদের কাছ থেকে পুলিশ গত এক বছরে আয় করেছে প্রায় লক্ষাধিক টাকা। পুলিশকে ম্যানেজ না করলে দালালদের হাসপাতালে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়। টাকা দিলে পুলিশের দেওয়া নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়।সূত্রগুলো বলেছে,যশোর জেনারেল হাসপাতালে কমপক্ষে বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গুলির সাথে চুক্তিবদ্ধ দালালের সংখ্যা ২০ জনের মতো। এর মধ্যে পেশাদার দালাল হিসেবে পরিচিতর সংখ্যা ২০জন।পেশাদার দালালেরা প্রত্যেক দিন অবৈধ পন্থায় উপার্জন করছে মাথাপিছু নূন্যতম ৪শ’ থেকে ৩ হাজারের অধিক। তারা ৫০ শতাংশ চুক্তিতে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা বিভিন্ন পেশার অসহায় নারী পুরুষদের কৌশলে ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের অংশ হিসেবে দাবি করে বাইরে গড়ে ওঠা প্রাইভেট হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারগুলোতে তোলে। দালালের উপর নির্ভর করে জেনারেল হাসপাতালের সামনে গড়ে উঠেছে কমপক্ষে ৩০টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান। এ সব চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশগুলোকে নেই কোন নিয়ম বালা। সূত্রগুলো আরো জানায়,জেলা সিভিল সার্জন দপ্তরে কোনভাবে আবেদন জানিয়ে রাতারাতি চালু করছে অবৈধ চিকিৎসার প্রতিষ্ঠান। চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লাখলাখ টাকা। প্রতিদিন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল,ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গুলির আয় ৫লক্ষাধিক টাকা। সূত্রগুলো বলেছে, এ সময় প্রতিষ্ঠানের মালিকেরা বিভিন্ন পন্থায় ফাদ পেতে নিরীহ জনগনের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে কয়েক লাখ টাকা। বিষটি অতিদ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোরে বিভিন্ন পেশার মানুষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here