যশোর-৫ আসনে দলীয় লবিং-গ্র“পিংয়ের মধ্যে জোট ও মহাজোটের সম্ভাব্য ৯ প্রার্থী মাঠে

0
558

এম আর রকি : যশোর জেলার দক্ষিণ পূর্ব এলাকায় মনিরামপুর উপজেলা গঠিত। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৫ মনিরাপুর উপজেলার এই আসনে ২শ ৪৯টি গ্রাম রয়েছে। এই উপজেলায় ১৭টি ইউনিয়নে বর্তমানে জনসংখ্যা ৪ লক্ষ ১৭ হাজারের অধিক। যশোর-৫ সংসদীয় এ আসনটিতে ভোটার সংখ্যা ২ লক্ষ ৮৫ হাজার ৬৯০ জন। জলবদ্ধতাসহ বিভিন্ন কারণে অবহেলিত এ উপজেলায় রয়েছে রাজনৈতিক সংঘাত ও গ্রুপিং লবিং। এর মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামীলীগ-বিএনপি জোটের সম্ভাব্য প্রার্থীরা নির্বাচন মুখি হয়েছেন। এই আসনটিতে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র নেতাদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে । আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানেও যাচ্ছেন আয়োজন করে। এমনটি তারা এখন থেকে জন সাধারণের নিকট দোয়া চাচ্ছেন । ইতিমধ্যে এই আসনের বিভিন্ন স্থানে সম্ভাব্য প্রার্থীর কোন কোন নেতা দোয়া আর্শিবাদ চেয়ে ব্যানার ফেসটুনে ছেয়ে ফেলেছেন। সাধারণ ভোটারগন থেকে সর্ব মহলের জনসাধারণ বলেছেন,এই আসনে আওয়ামীলীগ-বিএনপি এ দু’জোটের মধ্যে সম্ভাব্য ৯ জন প্রার্থীর নাম উপজেলার আনাচে কানাচে প্রচারে রয়েছে। এসব প্রার্থীর মধ্যে ১৪ দলীয় মহাজোট আওয়ামীলীগের বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য্য,সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডঃ খান টিপু সুলতান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব কাজী মাহামুদুল হাসান, সাবেক ছাত্রনেতা কামরুল হাসান বারী ও আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল মজিদ। অপর দিকে,চার দলীয় তথা বর্তমানে ২০ দলীয় জোটের মধ্যে বিএনপি জোটের সাবেক ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জমিয়তে ইসলামের নেতা মুফতি মোহম্মাদ ওয়াক্কাস, উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডঃ শহীদ মোঃ ইকবাল হোসেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোঃ মুছা ও জামায়াতে ইসলামের অন্যতম নেতা এ্যাডঃ গাজী এনামুল হক।
বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য্য,খান টিপু সুলতান,মাহামুদুল হাসান,কামরুল হাসান বারী ও আব্দুল মজিদ একাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। নৌকা প্রতীক পেতে তারা সকলে আশাবাদী।স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছেন,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী স্বপন ভট্টাচার্য্য ২০০৯ এর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মাধ্যমে তিনি রাজনীতির মাঠে নামেন। ওই নির্বাচনে আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী হয়ে তিনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়ী হন। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক ছাড়াই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আওয়ামীলীগ দলীয় প্রার্থী এ্যাডঃ খান টিপু সুলতানের কাছে তিনি ২০ হাজার ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হন। এরমধ্যে তিনি আওয়ামীলীগ দলীয় সংসদ সদস্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করার আশায় মাঠে রয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডঃ খান টিপু সুলতান। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি ৫ বার নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন এ আসন থেকে। একাধিকবার নির্বাচিত খান টিপু সুলতান ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হওয়ার পর বদলে যায় মণিরামপুরের প্রেক্ষাপট। তার এক শ্রেণীর কর্মীদের নির্যাতনে বিএনপি-জামায়াতের অসংখ্য পরিবার নির্যাতিত হন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব কাজী মাহামুদুল হাসান আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হতে নৌকা প্রতীক চাইবেন বলে জানাগেছে। সাংগঠনিক কর্মকান্ডেও তার বর্হির প্রকাশ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। উপজেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান একমাত্র কান্ডারী হিসেবে কাজী মাহামুদুল হাসান রয়েছেন। দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফার আকম্মিক মৃত্যু হওয়ার পর উপজেলা আওয়ামীলীগের সকল কর্মকান্ডে একমাত্র কান্ডারী কাজী মাহামুদুল হাসান।
অপর আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী দোয়া চেয়ে উপজেলা এলাকায় ব্যানার ফেসটুনে ছেয়ে ফেলেছেন আলহাজ্ব কামরুল হাসান বারী। আওয়ামীলীগের আরেক নেতা আব্দুল মজিদ নির্বাচন করবেন দলীয় প্রার্থী হয়ে। জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এই নেতা উপজেলার জন সাধারণের কাছে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন। আওয়ামীলীগের ন্যায় বিরোধীদল
বিএনপি জোটের হয়ে নির্বাচন করবেন জমিয়াতে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সভাপতি মুফতি মোহাম্মাদ ওয়াক্কাস। স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে এ আসন থেকে ৮৬ সালের নির্বাচনে প্রথম অংশ নেন তিনি। লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ৮৮ এর নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিত হয়ে ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হন তিনি। ৯১-৯৬ সালের নির্বাচনেও এ আসন থেকে নির্বাচন করেছেন। সর্বশেষ ২০০১ এর নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিত হন। এছাড়া,ধানের শীষ প্রতীকের জন্য দলীয় হাইকান্ডের কাছে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডঃ শহীদ মোঃ ইকবাল হোসেন। বর্তমানে ৩৬ মামলার আসামী হয়েও বিএনপির এই নেতা সাংগঠনিক কর্মকান্ড নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। ৯১-৯৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে লড়েছেন তিনি। এছাড়াও নিজ ইউপিতে ৩বার এবং পৌর মেয়র হিসেবে ২ বার নির্বাচিত হয়েছেন। আগামী সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করবেন এমন প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে রয়েছেন তিনি।
বসে নেই জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোঃ মুছাও। তিনিও এ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীকের জন্য দলের নীতি-নির্ধারকদের কাছে দেনদরবার করেই চলেছেন। নিজ ইউনিয়ন চালুয়াহাটীতে ৩বার নির্বাচিত হয়েছেন চেয়ারম্যান পদে। ৮৯ এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও অংশ নিয়ে বিজয়ী হয়ে ছিলেন। ৭৮-৯০ পর্যন্ত এ উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এবং ৯০ থেকে ২০০২ পর্যন্ত উপজেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন এ নেতা। বর্তমান দলের অভ্যন্তরিন কোন্দলের ফলে মুছা-ইকবাল নামে দলের দু’টি শিবিরে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন সাংগঠনিক কর্মকান্ড।
জামায়াতে ইসলামী ও বিএনপি জোটে থাকলে এ আসনটি চাইবেন তারা। সেক্ষেত্রে জেলা জামায়াতের সুরা সদস্য এ্যাডঃ গাজী এনামুল হকের নাম উঠে আসছে জনগণের মুখে। জামায়াতের এ নেতার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি যশোর-৫ আসন থেকে নির্বাচন করতে আশাবাদ প্রকাশ করেছেন।এই আসনটি এখন নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here