যশোেরে সন্ত্রাসীরা কর্মকান্ডের অভিযোগ,গ্রেফতার-১

0
200

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রকাশ্যে যশোর সদর উপজেলার মধু গ্রামের ইট ভাটার সামনে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। চিহ্নিত দূবৃর্ত্তরা একটি মোটর সাইকেল গতিরোধ করে কামাল হোসেন নামে এক যুবককে মারপিট করে নগদ ৮৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে মোটর সাইকেল ভাংচুর করে ৩০ হাজার টাকা ক্ষতি সাধণ করেছে। এ ঘটনায় ৭জন আসামীর নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালি মডেল থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। আসামীরা হচ্ছে, সদর উপজেলার বোলপুর গ্রামের মৃত তছিম বিশ্বাসের ছেলে মুক্তার হোসেন বিশ্বাস,মৃত মসলেম মোল্যার ছেলে ওহাব আলী,জালাল হোসেনের ছেলে পারভেজ হোসেন,মোশারেফ হোসেনের ছেলে ইমরান হোসেন,মৃত তছিম বিশ্বাসের ছেলে সাইফুল ইসলাম খোকন,আব্দুল হক,জিনারুল ইসলামসহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮জন। কোতয়ালি মডেল থানার এসআই বাবুন চন্দ্র বিশ্বাস ঘটনার সাথে জড়িত এজাহারে উল্লেখিত আসামী সাইফুল ইসলাম খোকনকে গ্রেফতার করেছে।
সদর উপজেলার বোলপুর গ্রামের আমিন উদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে মাহবুবুর রহমান রাজু বৃহস্পতিবার কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, তার ভাই কামাল হোসেন বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ি হতে নগদ ৮৫ হাজার টাকা নিয়ে ব্যাংকে জমা দেয়ার জন্য যাচ্ছিল। সকাল সাড়ে ৮ টায় বাড়ি হতে বের হয়ে মোটর সাইকেল যোগে মধুগ্রাম ভাটার সামনে পৌছালে পূর্ব শত্রুতার জের হিসেবে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হাতে লোহার রড,হাতুড়ি,গাছি,দা ও অবৈধ অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মোক্তার হোসেনের নেতৃত্বে মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে। পরে লোহার রড দিয়ে মুক্তার হোসেন মাথায় আঘাত করলে মোটর সাইকেল নিয়ে পড়ে যায়। সাথে সাথে আসামী ুওহাব তার হাতে থাকা হাতুড়ি দিয়ে কামাল হোসেনের ডান পায়ের হাটুর নীচে আঘাত করে। ইমরান হোসেন ও সাইফুল ইসলা খোকন বাম পায়ে হাটুর নীচে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে হাড়ভাঙ্গা জখম করে। অন্যান্য আসামীরা ধারালো দা দিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। মুক্তার হোসেন বিশ্বাস মোটর সাইকেল ভাংচুর করে মুক্তার হোসেন বিশ্বাস ও ওহাব কামাল হোসেনের পকেটে থাকা ব্যাংকে জমা দেওয়ার উদ্দেশ্যে নেওয়া ৮৫ হাজার টাকা জোর পূর্বক কাড়িয়ে নেয়। গুরুতর আহত কামাল হোসেনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীর প্রকাশ্যে হুমকী দিয়ে চলে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় কামাল হোসেনকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর কোতয়ালি মডেল থানার এসআই বাবুন চন্দ্র বিশ্বাস সাইফুল ইসলাম খোকনকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আসামীরা খোকনকে ছাড়িয়ে নেওয়ার তদ্বীর চালাচ্ছে। উল্লেখ্য,বোলপুর ব্রীজের সামনে রাজুর ভাইপো কামরুজ্জামান মুকুলের একটি মার্কেট রয়েছে। আসামীরা উক্ত মার্কেটের একটি দোকান সম্পূর্ন অবৈধভাবে জবরদখল করে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করে আসছে। বিষয়টির ব্যাপারে বাধা নিষেধ করলে মুকুল ও ভাই কামাল হোসেনকে খুন জখম করার জন্য বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করতে থাকে বলে রাজু তার দায়েরকৃত এজাহারে উল্লেখ করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here