যাত্রীছাউনিগুলি ব্যবহার উপযোগী করুন

0
341

ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় সাতটি যাত্রী ছাউনি আছে। তন্মধ্যে অধিকাংশ ছাউনিতেই তাহাদের বসিয়া বিশ্রাম লইবার সুযোগ নাই। সম্প্রতি পত্রিকান্তরে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, এই সাতটি যাত্রীছাউনির ছয়টিই রহিয়াছে পুলিশ ও ভবঘুরেদের দখলে। অপরিষ্কার ও নোংরা থাকায় বাকি একটির অবস্থাও ছাত্র-ছাত্রীদের বিশ্রাম লইবার পক্ষে অনুপোযুক্ত হইয়া পড়িয়াছে। শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বলিয়া কথা নহে, সমগ্র ঢাকা শহরের যাত্রীছাউনিগুলির অবস্থাও ইহার চাইতে ব্যতিক্রম কিছু নহে। জানা মতে, রাজধানী ঢাকার প্রায় দুই শতাধিক যাত্রীছাউনির অধিকাংশই এখন অবৈধ দখলের শিকার। পণ্যসামগ্রীর দোকান হইতে শুরু করিয়া বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানেরও দেখা মিলে এই ছাউনিগুলিতে। আবার কোনো কোনোটি হইয়া পড়িয়াছে ঝুঁকিপূর্ণ ও ব্যবহারের অযোগ্য। অনেকগুলিতে মাথার উপরে জং ধরা এবড়ো থেবড়ো কিছু লোহার স্টিল ছাড়া ছাদ ও বসিবার স্থান কোনোটাই নাই। কোথাও কোথাও ময়লা-আবর্জনার কারণে যাত্রীছাউনিগুলিতে নাই বসিবার উপযুক্ত পরিবেশ। তাহা ছাড়া কোনো কোনো যাত্রীছাউনিকে কেন্দ্র করিয়া রাত্রিবেলায় সংঘটিত হয় বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডও।

জানা যায়, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় ১২৯টি এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সীমানায় যাত্রীছাউনি রহিয়াছে ৮৬টি। সিটি করপোরেশন, সড়ক ও জনপথ, বিআরটিসিসহ বিভিন্ন সংস্থার অধীনে রহিয়াছে এই সকল ছাউনি। বলা যায়, এই সকল সংস্থার অব্যবস্থাপনার ফলেই মূলত যাত্রীছাউনিগুলি দিনে দিনে নাজুক হইয়া পড়িতেছে। তাহা ছাড়া সর্বশেষ ২০০৭ সালে ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নূতন করিয়া রাজধানীর বেশ কিছু স্থানে যাত্রীছাউনি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার অর্থায়নে নির্মিত এই যাত্রীছাউনিগুলিরও বেশিরভাগ এখন ব্যবহূত হইতেছে ব্যক্তিগত বিভিন্ন বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ডে। অন্যদিকে নগরীর যাত্রী বা পথচারীরা রোদে পুড়িয়া, বৃষ্টিতে ভিজিয়া খোলা আকাশের নিচেই গাড়ির জন্য অপেক্ষার প্রহর গোনেন। আর ইহার কারণেও তৈরি হইতেছে নানান ধরনের বিড়ম্বনা। যাত্রীছাউনির পরিবর্তে রাস্তার উপরেই অপেক্ষা করিতে হয় সাধারণ যাত্রীদের। গাড়ি ধরিবার জন্য ফুটপাত ছাড়িয়া রাস্তায় নামিয়া আসিবার কারণে ক্ষেত্রবিশেষে ঘটিয়া থাকে সড়ক দুর্ঘটনাও।

গতিশীল নগরে পরিচ্ছন্ন পার্ক, হাঁটিবার জন্য প্রশস্ত ফুটপাত এবং পরিবহনের জন্য যাত্রীছাউনি অপরিহার্য। পৃথিবীর প্রায় সকল দেশেই নগরজীবনে একটু স্বস্তির জন্য এই সকল অবকাঠামো গড়িয়া তোলা হয় এবং কঠোর তত্ত্বাবধানে এইগুলি রক্ষণাবেক্ষণ করিয়া ব্যবহারোপযোগী রাখা হয়। সুতরাং জনদুর্ভোগ কমাইতে সংশ্লিষ্ট মহলকে এই ব্যাপারে অবশ্যই সক্রিয় হইতে হইবে। বিশেষ করিয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো এমন গুরুত্বপূর্ণ এলাকার যাত্রীছাউনিগুলির যথাযথ ও সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনেরও নিজস্ব উদ্যোগ থাকা জরুরি বলিয়া আমরা মনে করি। এই ব্যাপারে শিক্ষার্থীরাও কেন নিজেদের অধিকার আদায়ে উদাসীন থাকিবেন তাহাও আমাদের বোধগম্য নহে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here