যুবদের বয়সসীমা ৩৯ থেকে কমিয়ে ৩৫

0
240

নিজস্ব প্রতিবেদক : যুবদের বয়সসীমা কমছে। তাদের বয়সসীমা ৩৯ থেকে কমিয়ে ৩৫ বছর করা হচ্ছে। এখন থেকে ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী যে কোনো নাগরিক যুব বলে গণ্য হবেন। এমন বিধান রেখে জাতীয় যুবনীতি-২০১৭ এর খসড়া তৈরি করেছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ নীতি উপস্থাপনের কথা রয়েছে। এ ছাড়া বৈঠকে সামুদ্রিক মৎস্য আইন ও শেখ হাসিনা জাতীয় যুব উন্নয়ন ইনস্টিটিউট আইন এবং বাংলাদেশ-ভুটান সম্পর্ক উন্নয়নের বিষয় উপস্থাপন করা হতে পারে।
প্রস্তাবিত নীতিতে বলা হয়েছে, উগ্র ধর্মীয় বা রাজনৈতিক কুফল সম্পর্কে যুবদের সচেতন করতে সরকারকে বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে হবে। ১৫ শ্রেণির যুবদের কল্যাণে সরকার বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এর মধ্যে রয়েছে- বেকার যুব, যুব নারী, যুব উদ্যোক্তা, অভিবাসী যুব, গ্রামীণ যুব, শিক্ষা থেকে ঝরেপড়া যুব, নিরক্ষর ও স্বল্পশিক্ষিত যুব, অদক্ষ যুব, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর যুব, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন যুব, অসুস্থ জীবনে আসক্ত যুব, গৃহহীন ও বস্তিবাসী যুব, হিজড়া যুব, প্রাকৃতিক দুর্যোগ অথবা দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত যুব এবং মানব পাচার ও নির্যাতনের শিকার যুব সম্প্রদায়। এসব যুবদের প্রশিক্ষণ ও প্রণোদনার মাধ্যমে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। এ ছাড়া বিশেষত ভিন্নভাবে সক্ষম যুবদের জন্য বিভিন্ন কাজে অংশগ্রহণের উদ্যোগ গ্রহণ করবে সরকার ।
খসড়া যুবনীতি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, এতে ১৭টি ধারা ও বেশ কিছু উপধারা রয়েছে। খসড়া নীতির উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে- মুক্তিযুদ্ধে চেতনায় যুবদের গড়ে তোলা, জাতীয় যুব কাউন্সিল গঠন করা, উন্নত নৈতিক মূল্যবোধের আলোকে যুবদের উন্নত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিয়ে মানবসম্পদে পরিণত করা, তথ্যপ্রযুক্তিসহ দক্ষতাভিত্তিক প্রশিক্ষণ দেওয়া, যুবকর্মে উৎসাহিত করা, যুবকর্মকে একটি পেশা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা, নাগরিক ও সামাজিক কাজে সম্পৃক্ততা বাড়ানো, সব ধরনের সামাজিক ব্যাধি থেকে যুবদের নিবৃত্ত করা।
নীতিতে আরও বলা হয়েছে, চলাচলসহ সমাজের সব জায়গায় যুব নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। সব ধরনের গণপরিবহনে যুব নারী ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন নারীদের আসন সংরক্ষণ করতে হবে। কোনো ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা দল দ্বারা জবরদস্তি, হিংস্রতা, প্রতারণা বা অন্য কোনো অমানবিক আচরণ থেকে যুবদের রক্ষা করা সরকারের দায়িত্ব। জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে যুবদের প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ দিতে হবে। সন্ত্রাসী কার্যকালাপ ও দুর্নীতি প্রতিরোধে যুবদের উদ্বুদ্ধ করতে নানা ধরনের ব্যবস্থা নেবে সরকার। উগ্র ধর্মীয় বা রাজনৈতিক কুফল সম্পর্কে সচেতন করতে এবং উগ্রবাদী আচরণ থেকে সকল যুবকে বিরত রাখতে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের মতো আন্তর্জাতিক অপরাধের বিষয়ে যুবদের সচেতনতা বাড়ানো এবং এসব অপরাধবিরোধী মনোভাব তাদের মধ্যে জাগ্রতের কথা বলা হয়েছে এ নীতিতে। প্রস্তাবিত নীতিতে আরও বলা হয়েছে, মাদকদ্রব্যের উৎপাদন, আমদানি, বাজারজাতকরণ কঠোরভাবে রোধ করতে হবে। ধূমপানের কুফল সম্পর্কে যুবদের সচেতনতা সৃষ্টিতে যুবদের সম্পৃক্ত করতে হবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিব বলেন, যুবনীতিকে যুগোপযোগী করা হয়েছে। দেশের জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীংশই যুব। তাদের জনশক্তিতে পরিণত করতে প্রস্তাবিত নীতিতে নানা উদ্যোগ গ্রহণের কথা বলা হয়েছে বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here