যেভাবে নামকরণ হয় ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ এর, জেনে নিন অর্থ

0
233

অনলাইন ডেস্ক : বঙ্গোপসাগরের পূর্ব-মধ্যভাগে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’। ক্রমেই শক্তিবৃদ্ধি করছে এটি। বুধবার ভয়ঙ্কর রূপ নিয়ে স্থলভাগে আছড়ে পড়তে চলেছে ইয়াস। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সাগর দ্বীপ ও উড়িষ্যার পারাদ্বীপের মধ্যে দিয়ে ঘূর্ণিঝড়টি স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেই জানিয়েছে সেখানকার আবহাওয়া অফিস।

ভারতের আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পোর্ট ব্লেয়ারের ৬০০ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমে অবস্থা করছে। ২৪ মে সকাল থেকেই ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিয়েছে ইয়াস। আগামী ২৪ ঘণ্টায় অতি তীব্র রূপ ধারণ করবে এই ঘূর্ণিঝড়।

দেশটির আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি দিঘা থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থান করছে। সোমবার বিকালের দিকে সমুদ্রে ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বেগে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। সেই সঙ্গে প্রবল বাতাসের কারণে জলোচ্ছ্বাস উঠতে পারে ২০ ফুট পর্যন্ত।
কীভাবে নামকরণ হল ‘ইয়াস’ এর?

বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার সাইক্লোন সংক্রান্ত আঞ্চলিক সংস্থা এসকাপের তালিকা অনুযায়ী এই নামটি প্রস্তাব করেছে ওমান। এর অর্থ ‘হতাশা’, দুঃখ।

পারসি ভাষা থেকে এই শব্দটি এসেছে। ভারত, বাংলাদেশ, মিয়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কাসহ ১৩টি দেশ নিয়ে গঠিত কমিটি ওমানের দেওয়া এই নাম ঠিক করেছে।

আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, যে মহাসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়, তার অববাহিকায় থাকা দেশগুলো নামকরণ করে। ইয়াসের পর আরও যে ঘূর্ণিঝড়ের নাম ঠিক করা হয়েছে, সেগুলো হল- গুলাব, সাহিন, জাওয়াদ, অশনি, সীতরাং, মানদৌস, মোচা।