যেসব কারণে রদবদল হতে পারে মন্ত্রিসভায়

0
255

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ১৭ জুলাই সোমবার মন্ত্রিসভার সর্বশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথমে গুঞ্জন, পরে ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যে স্পষ্ট মন্ত্রিসভায় রদবদল আসন্ন। কিন্তু, সরকারের শেষ সময়ে এসে কেন হঠাৎ এই রদবদল? সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একাধিক প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রের আভাস, অন্তত চারটি বিষয়কে সামনে রেখে মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন আসতে পারে।
সূত্র জানায়, সুনির্দিষ্টভাবে সময়সীমা নির্ধারিত না থাকলেও খুব একটা দেরি হচ্ছে না এই পরিবর্তনে। এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অন্তত চারটি বিষয়কে পরিবর্তনের কেন্দ্রবিন্দু করতে চাইছেন। গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর তরফেও এ পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের দাবি।
গোয়েন্দা সূত্রের দাবি, রদবদলের পেছনে প্রথম কারণ হচ্ছে, আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দৃশ্যমান পরিবর্তন দেখানো। বয়স্ক, কাজে পিছিয়ে থাকা, সমালোচিত মন্ত্রীদের এক্ষেত্রে বাদ দেওয়া হতে পারে। দ্বিতীয়ত, ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা অনেক নেতাকেই মন্ত্রী করার কথা দিয়েছিলেন, যাদের অনেকেই বিগত ২০০৮ সালে এবং ২০১৪ সালে ক্ষমতার মেয়াদেও মন্ত্রীত্বের স্বাদ পায়নি। এই প্রবীণ-বঞ্চিতদের নির্বাচনের আগে-আগে মন্ত্রীত্ব দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। তৃতীয়ত, বিগত ৪ থেকে ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন, এমন জনপ্রিয় নেতাদের মধ্যে থেকে কাউকে কাউকে মন্ত্রীত্ব দেওয়ার চিন্তা আছে শেখ হাসিনার।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিল্পমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা আমির হোসেন আমু বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় রদবদলের বিষয়টি তার জানা নেই।’
আর অসুস্থ থাকায় ‘এ বিষয়টি সম্পর্কে কিছুই জানেন না’- বলে জানান আরেক সিনিয়র নেতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী।
সূত্রের দাবি, চতুর্থ কারণটি রাষ্ট্রীয়ভাবেই গোপন করা হচ্ছে নানা কারণে। সরকারের দুটি প্রভাবশালী সংস্থার ইঙ্গিত, এই পরিবর্তনে শেখ হাসিনার নিরাপত্তার প্রশ্নটিও এসেছে। সম্প্রতি প্রতিবেশী একটি দেশের প্রভাবশালী সংস্থা সরকারের ওপরমহলে বার্তা দিয়েছে, শেখ হাসিনার নিরাপত্তার প্রশ্নটি এখনও বলবৎ আছে। এ বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে গোয়েন্দা সংস্থা ও আইন-শৃংখলাবাহিনীর উচ্চপর্যায়ের নিয়মিত বৈঠকে গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন আ. লীগ সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয়ের নিরাপত্তা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বৈঠক প্রকাশ করে গতকাল।
তবে সূত্রটি শেখ হাসিনার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কী ধরনের প্রশ্ন এবং এর সঙ্গে মন্ত্রিসভা রদবদলের কী সম্পর্ক এ নিয়ে স্পষ্ট করেনি। সূত্রের দাবি, বিভিন্ন ধরনের খবর মাথায় রেখে গোয়েন্দাসংস্থাগুলো ক্ষমতাসীন দলের নেত্রীর নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। এই প্রেক্ষিতে বিভিন্ন দল ও সংগঠনের অনেককেই নজরদারিতে রাখা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, শেখ হাসিনার ওপর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা ছাড়াও এর আগে তাকে ১৯ বার হত্যার চেষ্টা চালানো হয়েছিল। এর মধ্যে কখনও নিজ বাসভবনে, কখনও জনসভায় আবার কখনও তার গাড়ির বহরে হামলা বা হামলার চেষ্টা চালানো হয়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও একটি অনুষ্ঠানে ব্যস্ত থাকায় তার মন্তব্য নেওয়া যায়নি।
আর সড়ক, পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘রদবদলের সম্ভাবনা রয়েছে।
এই রদবদল কখন হতে পারে এই প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়টি সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। তাই তিনিই ঠিক করবেন কখন হবে রদবদল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here