যোগ্যতা ও কর্মের স্বীকৃতি

0
286

বিশ্বের কোথাও কোথাও যখন ক্ষমতাধরদের বোমার আঘাতে প্রাণ হারাইতেছে অসংখ্য শিশু, ঠিক এমন এক সময়ে অটিস্টিক শিশুদের সুরক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুলের প্রাপ্ত আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিটি বৈশ্বিকভাবে বাংলাদেশকে স্থান করিয়া দিয়াছে অনন্য এক আসনে। শুধু দেশেই নহে, অটিজম বিষয়ে বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক মনোযোগ আকর্ষণ করিবার ক্ষেত্রেও তিনি পালন করিয়াছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ইহার স্বীকৃতিস্বরূপ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) গত ২ এপ্রিল দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় অঞ্চলে তাঁহাকে অটিজম বিষয়ক চ্যাম্পিয়ন হিসাবে মনোনীত করিয়াছে। উল্লেখ্য যে সায়মা ওয়াজেদ ২০০৮ সাল হইতে শিশুদের অটিজম এবং স্নায়ুবিক জটিলতা সংক্রান্ত বিষয় লইয়া কাজ শুরু করেন। অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ব জুড়িয়া ভূয়সী প্রশংসা পায় তাঁহার কাজ। ইহার ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাঁহাকে ‘অ্যাক্সিলেন্স ইন পাবলিক হেলথ অ্যাওয়ার্ড’ পদকে ভূষিত করে। তিনি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান অটিজম স্পিকস-এর পরামর্শক হিসাবেও কাজ করেন। ২০১৩ সালের জুনে তিনি মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ পরামর্শক প্যানেলের অন্তর্ভুক্ত হন। তাঁহার উদ্যোগেই ২০১১ সালের জুলাই মাসে ঢাকায় অটিজম নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের পরে গড়িয়া ওঠে সাউথ এশিয়ান অটিজম নেটওয়ার্ক। আর তাঁহার উদ্যোগেই বলা যায়, অটিজম সচেতনতায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্বাহী পরিষদে সর্বসম্মতভাবে গৃহীত হইয়াছে বাংলাদেশের একটি প্রস্তাব।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রধান ডা. পুনাম ক্ষেত্রপাল সিং বলেন, বৈশ্বিকভাবে প্রতি ১০ হাজার মানুষের মধ্যে ১৬০ জন অথবা প্রতি ৬২ জনের মধ্যে একজন অটিজম আক্রান্ত। আর ইহার চিকিত্সাও খুব ব্যয়বহুল। তাই স্বল্প এবং মধ্যম আয়ের দেশসমূহে অটিস্টিক শিশুরা প্রয়োজনীয় চিকিত্সা সেবা পায় না। ইহার ফলে দুর্বিষহ হইয়া ওঠে তাহাদের জীবন। তাহা ছাড়াও উন্নয়নশীল দেশে অটিস্টিকদের জন্য কাজ করা খুব কঠিন। কেননা, এই ধরনের দেশগুলিতে অটিজম মোকাবিলায় দারিদ্র্যই একমাত্র সমস্যা নহে, এইখানে আছে গোঁড়ামি, কুসংস্কার, মানসম্মত সেবাদানকারীর অপ্রতুলতাসহ বিশেষায়িত চিকিত্সাকেন্দ্রের স্বল্পতা। এতসব প্রতিকূলতা জয় করিয়া যখন কেহ কোনো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পান, তখন তিনি দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর কন্যা হিসাবে নহে, স্বীয় যোগ্যতা ও কর্মগুণেই প্রশংসা পাইবার যোগ্য বলিয়া বিবেচিত হন। তাঁহার এই স্বীকৃতি নিঃসন্দেহে দেশের জন্যও গৌরব বহন করিয়া আনিয়াছে। আমরা তাঁহাকে অভিনন্দন জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here