রওশন ইকবাল শাহীর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

0
68

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও পথসভা করেছে ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। শুক্রবার বিকালে যশোর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে এই বিক্ষোভ মিছিল ও পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় ঘন্টাব্যাপী চলা এই কর্মসূচিতে জেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দসহ সাবেক ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দও অংশ নেয়।

জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে যশোর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে যশোর কোতয়ালী মডেল থানার সামনে যেয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। পথ সভায় বক্তরা বলেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) শিক্ষার্থী নাইমুল ইসলাম রিয়াদ হত্যাকান্ডের ঘটনায় যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা মামলা হয়েছিলো। পরে রাজনৈতিক উদেশ্য প্রণোদিতভাবে পুলিশ শাহীকে আসামি করে চার্জশিটভুক্ত করে। বর্তমানে শাহী কারাগারে বন্ধি রয়েছেন।

একজন বঙ্গবন্ধুর আদর্শিত রাজনীতিক কর্মী আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বন্ধি থাকতে পারে না। তাই এ মামলা থেকে রওশন ইকবাল শাহীকে দ্রুত প্রত্যাহার করে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি তোলেন বক্তারা। এসময় বক্তব্য রাখেন যশোর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালাউদ্দিন কবির পিয়াস ও যশোর পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মেহেদী হাসান রনি।

কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন যশোর সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ বিপুল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জুয়েল, সাবেক সহ সভাপতি এস এম নিয়ামত উল্লাহ, সাবেক ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক শেখ সাদিয়া মৌরিন, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ইয়াসিন আরাফাত তরুন, আরিফুর রহমান সাগর, আব্দুর রউফ পিন্টু, রিফাত মোর্তজা, রাজু রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান হৃদয়, মাসুদ হাসান কৌশিক, আসাদ্দুজামান আসাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক ফাহমিদ হুদা বিজয়, সদর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক মুমেল হোসেন, যশোর সরকারি এম এম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুর রহমান তৌহিদ, যশোর সরকারি পলিটেকনিক কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেনসহ ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ১৬ মে সুব্রত বিশ্বাসকে সভাপতি ও শামীম হাসানকে সাধারণ সম্পাদক করে যবিপ্রবি ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কমিটিতে পদবঞ্চিতরা এই কমিটির বিরোধিতা করে। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র নাইমুল ইসলাম রিয়াদ পদবঞ্চিতদের পক্ষে নেতৃত্ব দেওয়ায় তাকে হত্যা করা হয়। ২০১৪ সালের ১৫ জুলাই নিহতের রিয়াদের মামা রফিকুল ইসলাম রাজু ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ২-৩ জনকে আসামি করে কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। হত্যা মামলাটি সিআইডি তদন্ত করে ১১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন। ঐ হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত ৩নং আসামি রওশন ইকবাল শাহী। এই মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিল। ফলে গত ৮ এপ্রিল বিকাল ৪টার দিকে র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্প সদস্যরা শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া (তেতুলতলা) এলাকার নিজ বাড়ি থেকে শাহীকে গ্রেফতার করে। শাহী বর্তমানে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্ধি রয়েছেন।