রণাঙ্গনে যশোর ও সংবাদপত্রে যশোর রণাঙ্গন নিয়ে অনন্য উচ্চতায় সাংবাদিক সাজেদ রহমান

0
114

সমৃদ্ধ হলো যশোরের মুক্তিযোদ্ধা ও সংবাদপত্রের ইতিহাস

ডি এইচ দিলসান : “রণাঙ্গনে যশোর” ও “সংবাদপত্রে যশোর রণাঙ্গন” এই বই দুটি সৃষ্টি করে একদিকে যেমন সমৃদ্ধ সহয়েছে যশোরের মুক্তিযোদ্ধা ও সংবাদপত্রের ইতিহাস তেমনি অনন্য উচ্চতায় অধিষ্টিত হয়েছেন বই দুটির জনক যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি সাজেদ রহমান বকুল। বুধবার প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি সাজেদ রহমান বকুলের লেখা রণাঙ্গনে যশোর ও সংবাদপত্রে যশোর রণাঙ্গন গ্রন্থের যশোরে মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের আয়েজনে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানের মধ্যোমনি সাজেদ রহমানের সাথে কথা বলে তার দুটি বইয়ের মর্ম কথা পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।
দৈনিক জনকন্ঠের বিভিন্ন রিপোর্ট করতে গিয়ে যশোরের অনেক গ্রাম ঘুরেছি। কথা বলেছি অনেক মুক্তিযোদ্ধা এবং সেইসব পরিবারের সাথে। বুঝেছি একাত্তরে যশোর রণাঙ্গন ছিল দেশের অন্যান্য জেলার চেয়ে ভিন্ন। সেই সব নিয়ে কাজ করতে গিয়ে মনে হয়েছি বইয়ের কাজে হাত দিই। তাই আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস ‘রণাঙ্গনে যশোর’।
যশোরে পাক বাহিনীর ছিল বড় সেনানিবাস। ছিল বিমান বন্দর। আবার সীমান্ত জেলা হওয়ায় দেশের নানা প্রান্তের মানুষ যশোরের পথ ধরেই গেছে ভারতে। তাই যশোরে সবচেয়ে বেশি গণহত্যার ঘটনা ঘটেছে। সেসব নিয়ে কাজ হয়েছে কম। বধ্যভূমির সংখ্যাও যশোরে বেশি। আমি সবগুলো বধ্যভূমির নাম দেয়ার চেষ্টা করেছি। গণকবরেরও। প্রায় ১ বছর ধরে সবগুলো বৈধ্যভূমি এবং গণকবর স্থলে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। অনেক মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের পরিবারের সদস্যরা সাহায্য করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতসহ বিদেশের বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিক সবচেয়ে বেশি এসেছে যশোর রণাঙ্গণে। আমি আমার বইতে চেষ্টা করেছি তাঁদের সেই রিপোর্ট গুলো খুঁজে বের করে আনার। কারণ তাঁদের সেই রিপোর্ট গুলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যন্য দলিল।
স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আমাদের যশোর অঞ্চলে পশ্চিম পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টি(ইপিসিপি)-এর প্রভাব ছিল। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে ওই দলের কি ভূমিকা ছিল, সেটা নিয়ে অনেক সময় আলোচনা হলেও তা বিস্তারিত হয়। আমি একটি অধ্যায়ে এ নিয়ে আলোচনা করেছি। আমি মনে করি ভবিষ্যতে এ বিষয়টি নিয়ে আরও আলোচনা হবে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এই বই লিখতে গিয়ে আমাকে কিছু বইয়ের সাহায্য নিতে হয়েছে। কিছু নিবন্ধও নিয়েছি। প্রতিটি অধ্যায়ে সহায়ক গ্রন্থের নাম উল্লেখ করেছি।
কিছু ভুলক্রুটি রয়ে গেছে। বিভিন্ন মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে কথা বলেছি, ৫০ বছর পর অনেকের স্মৃতি থেকে কিছু ঘটনা মুছে গেছে। ফলে একই যুদ্ধের বর্ননা ভিন্ন ভিন্ন নাম এসেছে। তারপরও আমি চেষ্টা করেছি, যাঁদের নাম এসেছে, সবার নামটিই রাখতে। যেসব ভুভক্রুটি রয়ে গেছে আগামী সংস্করণে তা দূর করতে পারব বলে আশা রাখি।
মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে যশোরের প্রতিরোধ যুদ্ধ এবং সার্বিক ভুমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ। পাকিস্তানিরা প্রচারণা চালাত এই লড়াই মুক্তিযুদ্ধ নয়, ভারতীয়দের পাকিস্তান দখলের পাঁয়তারা। এটাকে বিশ^বাসীর কাছে মিথ্যা প্রমাণে যশোর এলাকা মুক্ত রাখা অপরিহার্য হয়ে পড়েছিল। বস্তুত যশোরের জনগণ আওয়ামী লীগ নেতৃত্বসহ অন্যান্য স্বাধীনতাকামী শক্তি, সেনা, ইপিআর, পুলিশ, আনসার সবাই একাত্তরে তাঁদের সেই লক্ষ্য বজায় রাখতে মরণপণ প্রতিরোধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। সে ইতিহাস দীর্ঘ, তার বর্ণনায় আসতে পারে হাজার হাজার যোদ্ধা এবং শহীদের নাম, অসংখ্য ঘটনাবলী। সব কথা স্বপ্ল পরিসরে নির্ভুলভাবে তুলে ধরা সহজসাধ্য নয়। প্রকৃতপক্ষে একাত্তরের প্রতিরোধ যুদ্ধের নিয়ামক ছিলেন জনগণ, নেতৃত্ব দেখিয়েছিল পথ। তাঁদের সবার অবদান বর্ণমালায় হয়ত কোনদিন গাথা হবে না, কিন্তু রয়ে যাবে বাংলার মানুষের হৃদয়ে।

অন্যদিকে, আমাদের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পুরো নয় মাস যশোরের খবর সারা বিশে^র প্রচার মাধ্যমে গুরুত্ব পায়। বাঙালিদের প্রতিরোধ যুদ্ধ, হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর বর্বরতা-এসব খবরের ভিতর দিয়ে বিশ^বাসী জানতে পারেন পূর্ব বাংলার প্রকৃত অবস্থা। স্বাধীনতাকামী বাঙালিদের জন্য সেদিন তা অত্যন্ত সহায়ত ভূমিকা পালন করেছিল। বলা বাহুল্য, প্রায় সমস্ত ক্ষেত্রেই বিদেশী প্রচার মাধ্যমগুলোর প্রচার-প্রচারণা ছিল স্বাধীনতা যুদ্ধের স্বপক্ষে। কয়েক জন বিদেশী সাংবাদিক নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যশোরের বিভিন্ন যুদ্ধক্ষেত্রে এসে সরেজমিন প্রতিবেদন তৈরি করেছিলেন। আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধে তাঁদের অবদানও কম নয়।
বিদেশী প্রচার মাধ্যমে যশোর এলাকা বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছিল তার অবস্থানগত কারণে। ১ মার্চ-১৯৭১-এ। অসহযোগ আন্দোলন শুরু হলে যশোর শহরের নিয়ন্ত্রণভার চলে আসে স্বাধীনতাকামীদের হাতে। কলকাতার পত্র-পত্রিকাগুলো পূর্ব বাংলার খবর প্রকাশের পাশাপাশি যশোরের পরিস্থিতিও তুলে ধরতে থাকে সাধ্যমতো। ওই সময় প্রায় প্রতিদিনই কলকাতা থেকে ৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে সাংবাদিকরা আসতেন বেনাপোল চেকপোষ্ট লাগোয়া ভারতীয় এলাকা হরিদাশপুরে। ২৬ মার্চ হরিদাশপুরে সাংবাদিকদের ঢল নামে। ভারতীয় ছাড়াও তাদের অনেকে ছিলেন যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি প্রভৃতি দেশের। যশোর শহরের পতন ঘটে ৪ এপ্রিল। আর স্বেচ্ছায় রণকৌশলগত কারণে মুক্তিবাহিনী বেনাপোল ত্যাগ করে ১৯ মে। ফলে, ২৬ মার্চ থেকে এ সময়কাল পর্যন্ত অগণিত সাংবাদিক যশোর শহর এবং বেনাপোলসহ অন্যান্য মুক্ত এলাকা ভ্রমণের সুযোগ পান।
১৯৭১ সালে ভারতের সকল অঞ্চলের পত্রপত্রিকাগুলো বাংলাদেশের পত্রিকা হয়ে উঠে। কলকাতার প্রধান বাংলা দৈনিক ‘আনন্দবাজার পত্রিকা’, ‘যুগান্তর’, ‘দৈনিক বসুমতি’, ‘দৈনিক সত্যযুগ’, ‘দৈনিক কালান্তর’, ‘গণবার্তা’, ‘দেশ’ সাময়িকী, ইংরেজি ‘দি স্টেটসম্যান’, ‘অমৃতবাজার পত্রিকা’,সহ পান্নালাল দাশগুপ্ত সম্পাদিত ‘কম্পাস’, নতুন দিল্লির ইংরেজি পত্রিকা ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’, মাদ্রাজ বা চেন্নাই-এর প্রভাবশালী দৈনিক ‘দি হিন্দু’, আসামের ‘আসাম ট্রিবুন’, মেঘালয়ের ‘শিলং টাইমস’, মুম্বাই-এর ব্লিৎস’, ত্রিপুরার প্রধান দৈনিক ‘দৈনিক সংবাদ’,-এর ভূমিকা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অংশ। ভারতের জাতীয় সংবাদ সংস্থা ‘প্রেস ট্রাষ্ট অব ইন্ডিয়া’ বা পিটিআই’ এবং ইউনাইটেড নিউজ অব ইন্ডিয়া’ বা ‘ইউএনআই’ ব্যাপকভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সংবাদ সরবরাহ করেছে।
এ ক্ষেত্রে কিছু সাংবাদিকের নাম না বললেই নয়-এরা হলেন ‘স্টেটম্যান’এর অমূল্য গাঙ্গুলি, অশেষ চক্রবর্তী, মনোজ মিত্র, মানস ঘোষ, সত্যব্রত চক্রবর্তী, ‘আনন্দবাজার-এর অসীম দেবরায়, তুষার পন্ডিত, বরুণ সেনগুপ্ত, অরুণ চক্রবর্তী, ‘যুগান্তর’-এর অনিল ভট্রাচার্য, সুখরঞ্জন সেনগুপ্ত, কল্যাণ বসু, ‘টাইমস অব ইন্ডিয়ার সুভাষ চক্রবর্তী, কীরিট ভৌমিক, ‘পিটিআই’-এর মধুসূদন গুহ রায় ও মানিক চৌধুরী, ‘আকাশবাণী’র উপেন তরফদার, প্রণবেশ সেন, নির্মল সেনগুপ্ত, সনৎ মুখার্জি এবং ইউএনআই’এর কে কে চাড্ডা। পেশাগত দায়িত্বের বাইরে বেরিয়ে এঁরা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে নিজেদের লড়াই বলে গ্রহণ করেছিলেন।
গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন চিত্র সাংবাদিক কিশোর পারেখ, রবীন সেনগুপ্ত ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা সুখদেব।
‘আকাশবাণী’ কলকাতা কেন্দ্রের ভূমিকা ছিল অনেক বেশি। দ্বীপেশ চন্দ্র ভৌমিক, দিলীপ সেনগুপ্ত, দেবদুলাল বন্দোপাধ্যায়সহ আরও অনেকে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। ‘আকাশবাণী’ কলকাতা কেন্দ্রের প্রাত্যাহিক বাংলা সংবাদ ও ‘সংবাদ পর্যালোচনা’ মুক্তিবাহিনী ও বাংলাদেশের মানুষের মনোবল বাড়িয়েছে বহুগুণ।
এছাড়াও ব্রিটেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন বা রাশিয়া, হাঙ্গেরি, যুগোস্লাভিয়া, জাপান, জার্মানি, কানাডা, সুইডেন, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশের পত্রপত্রিকার ভূমিকাও প্রসংশাযোগ্য।
এছাড়া এসেছিলেন আরও কবি, সাংবাদিক, ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকরা। তারাও ঘুরে ঘুরে নানা প্রতিবেদন করেছেন যশোর অঞ্চলের। যা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম দলিল। তবে এই বই লেখার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে কলকাতার যুগান্তর পত্রিকার রিপোর্টকে। কারণ ওই পত্রিকায় কোন কোন দিন যশোরের সংবাদ লিড হয়েছে। এছাড়া যুগান্তর পত্রিকাটি আমি একাত্তরের মার্চ থেকে ডিস্মেবর এবং জানুয়ারি পর্যন্ত পড়েছি। সেখানে যশোরের নিউজ গুলো আমি আলাদা করেছি। আরও নিয়েছি যশোরের ওপারে ভারতের অংশের রিপোর্ট, যা আমাদের মুক্তিযুুদ্ধের অন্যন্য দলিল। সেই সব সাংবাদিকদের রিপোর্ট নিয়েই আমার লেখা বই ‘সংবাদপত্রে যশোর রণাঙ্গন’।
এদিকে বই দুটির মোড়ক উন্মোচন করেন লেখক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী ইদ্রিস । অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজি আহমেদ সাঈদ বুলবুল। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এইচ আর তুহিনের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, বইয়ের লেখক সাজেদ রহমান বকুল, প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ছড়াকার রিমন খান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও প্রেসক্লাব যশোরের যুগ্ম সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, দৈনিক লোকসমাজের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আনোয়ারুল কবির নান্টু, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি এম আইয়ুব, টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য সচিব শিকদার খালিদ, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মনিরুজ্জামান মুনির, যশোর জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সিনিয়র সহসভাপতি তৌহিদ মনি। এর আগে অতিথিদেও ফুল দিয়ে বরন করেন যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম সম্পাদক তবিবর রহমান ও নির্বাহী সদস্য ডি এইচ দিলসান।