রণাঙ্গনে রাজেক আহমেদ

0
79

ডি এইচ দিলসান : রাজেক আহমেদ বলেন ১৯৭১ সালের ডিসেম্বর প্রথম দিকে জালাল, আজিজসহ ৪১ জনের টিম নিয়ে যশোরের ঘুরুলিয়া এলাকা থেকে যশোর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের গাড়িটি ড্রাইভার নজরুল ইসলাসসহ আয়াত্বে নেয়। এর পর থেকে তারা এ অঞ্চলের মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্র, গোলাবারুদ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বহনে গাড়িটি ব্যবহার করতে থাকে।
এর পর ৬ ডিসেম্বর সকালে তিনি নজরুলকে নিয়ে একা একা মধুগ্রামে রবিউল আলমমের গ্রুপকে খবর দেওয়ার উদ্দেশ্যে মধুগ্রামে যায়। কনেজপুরের ভেতর দিয়ে যাওয়ার সময় খালপাড়ে হানাদার বাহিনীর সামনে পড়ে যায়। তখন মৃত্যুকে হাতের মুঠোয় নিয়ে গাড়ি থামিয়ে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে একাই গুলি করতে শুরু করে। তখন রাস্থার ওপাশ থেকে পুরাতন কসবার মনা চিৎকার করে বলেন, রাজেক ভাই আমি মনা, ভয় নাই আমরাও আছি, গুলি চালিয়ে যান। একপর্যায়ে মনাদের গ্রুপ এবং গ্রাম বাসির সহযোগিতায় তিনি ৩ জন পাকিস্থানী সেনা সদস্যকে আটক করে হাত পা বেধে এই গাড়িতে করে নিয়ে আসে। বর্তমানে দড়াটানা শহীদ চত্ত্বরে যখন হানাদার বাহিনীর ৩ সদস্যকে গুলি করতে যান তখন এ্যাড হাসান আলী ইমাম ও বিএলফ প্রধান আলী হোসেন মনি চিৎকার করে বলেন, রাজেক মারিস না মারিস না, ওদের দিয়ে বন্দি বিনিময় করতে হবে, এখন ওদের জেলখানায় রেখে দাও। এর পর তারা ৩ জনকে জেলখানায় রেখে আসে।