রাজগঞ্জের খালিয়া গ্রামের হতদরিদ্র বর্গা চাষি গনি মিয়া কলা চাষে অধিক সাবলম্বি

0
741

উত্তম চক্রবর্ত্তী : বর্গা চাষি গনি মিয়া। যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ঝাঁপা ইউনিয়নের খালিয়া গ্রামের মৃত জোব্বার সরদারের ছেলে হতদরিদ্র বর্গা চাষি গনি মিয়ার।
এক সময় গনি মিয়া অল্প বয়সী ৫ছেলে মেয়েসহ ৭ সদস্যের সংসার চালাতে স্বামী ও স্ত্রী উভয়ে বর্গা জমিতে রাত দিন হাড় ভাঙ্গা খাটুনি খাটতো। তার পরও অতি কষ্ঠের দিন পার হত। এরই মাঝে বর্গা গনি মিয়া গ্রামের এক ধনি পরিবারের কাছ থেকে ১৯৯২ সালে এক একর ৪ শতক জমি বর্গা নিয়ে পাঁকা কলার চাষ শুরু করে। প্রথম বছরে কলা বিক্রি করে জমির মালিককে বর্গা বাবদ ২৫ হাজার টাকা দেওয়ার পর তার প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা লাভ হয়। বর্গা চাষি গনি মিয়া প্রতি বছর জমির মালিককে বর্গার টাকা টাকা দেওয়ার পর কলা চাষে এক থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত লাভ পেতে থাকে। দিন দিন সে কলা চাষে প্রসার ঘটাতে থাকে। স্বল্প দিনে কলা চাষ করে সে অঢেল টাকার মালিক বনে যান। এর মাঝে সামান্য মেটে কুড়ে ঘরের গনি মিয়া বসত বাড়িতে প্রায় ৮/১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি ভবন নির্মান করেন। একই সময়ে আরো সাড়ে চার লাখ টাকা ব্যয়ে তার বড় ছেলে শামিমকে মালায়েশিয়ায় পাঠান। এরই ২ বছর পর চার লাখ টাকা ব্যয় করে মেঝ ছেলে আমিনকে বিদেশ পাঠান। এ ছাড়া কলা চাষ করে লাভবান হয়ে সংসার জীবনে সুখ আনতে ও ভবিষ্যতের চিনতাই প্রায় ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে চাষকৃত ২৫ শতক জমি ক্রয় করেন। সর্বশেষ এ বছর গনি মিয়া ৫ বিঘা বর্গা জমি ও ১০ কাঠা নিজস্ব জমিসহ মোট সাড়ে ৫ বিঘা জমিতে কলার চাষ করেছে। কলার ফলন ভাল হওয়ায় এ বছর কলা বিক্রি করে জমি মালিকের বর্গা বাবদ ৮০ হাজার টাকা দেওয়ার পর প্রায় দুই থেকে আড়াই লাখ টাকা লাভ হবে বলে কলা চাষি জানিয়েছেন। তিনি দৈনিক যশোরের সাংবাদিককে কলা চাষের বিভিন্ন পন্থা ও নিয়ম বিধির কথা বলেন, কলা চাষে কোন উর্বর জমির প্রয়োজন হয়না। যে কোন জায়গা কলা চাষের জন্য উপযোগী। কলা চাষে জমি ভাল ভাবে তৈরী না করলেও চলে। ৪৮ শতকের ১ বিঘা জমিতে ৬ থেকে সাড়ে ৬ শ কলার চারা রোপন করা যায়। একবার চারা রোপনের পর  জমি ও কলা গাছের সঠিক তত্বাবধায়ন করলে ৭/৮ বছর পর্যন্ত কোন কলার চারা রোপনের প্রয়োজন হয়না। কলা চাষে প্রথম বছর বেশি খরচ হয়। পরের বছর থেকে খরচের পরিমান খুবিই কম। যার কারনে প্রথম বছরের তুলনায় শেষের বছরের দিকে লাভের পরিমান দ্বিগুন হতে থাকে। তবে প্রাকৃতিক ঘুর্নি ঝড়ের কবলে পড়লে কলা চাষে অতুলনীয় ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা থাকে। সে ক্ষেত্রে অধিক লোকসান হওয়ার সম্ভবনা থাকে। এছাড়া কলা চাষে কোন চাষির লোকসান হওয়ার সম্ভবনা নেই।  সবশেষে কলা চাষি গনি মিয়া জানাই, দুই যুগের উর্দ্ধে কলা চাষ করে আমি অধিক সাবলম্বি হয়েছি। আগামীতে আরো বেশি পরিমান জমিতে কলার চাষ করবো বলে আমি মনে করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here